শুক্রবার ১৯শে জুলাই, ২০১৯ ইং ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

টঙ্গীতে চাঞ্জল্যকর ৩ সন্তানের জননীকে ধর্ষণের ঘটনায় মামলার মূল-ধর্ষণকারী মোঃ ইমরান র‌্যাবের হাতে আটক

আপডেটঃ ১২:৪২ অপরাহ্ণ | জুন ২৩, ২০১৯

এস,এম,মনির হোসেন জীবন ॥ গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পশ্চিম থানার সাতাইশ ব্যাংক পাড়া এলাকায় চাঞ্জল্যকর এক গৃহবধূকে ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ, নির্যাতন ও তাকে মেরে ফেলার হুমকীর ঘটনায় ধর্ষণশারী ভিকটিম মূল আসামী মো: ইমরান খান (২৮) কে আটক করেছে র‌্যাব-১ এর একটি দল। ইমরান খানের পিতার নাম মৃত ইব্রাহিম খান, সাং- সাতাইশ মধ্যপাড়া, থানা- টঙ্গী পশ্চিম, জিএমপি, গাজীপুর। শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ৮টার দিকে গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পূর্ব থানাধীন টঙ্গী কলেজ গেইট এলাকায় অভিযান চালিয়ে ধর্ষণকারী মোঃ ইমরান খানকে আটক করে র‌্যাব-১ এর একটি দল।

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-১) এর অধিনায়ক লেফটেন্ট্যান্ট কর্ণেল মোঃ সারওয়ার-বিন-কাশেম আজ শনিবার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পশ্চিম থানাধীন সাতাইশ ব্যাংক পাড়া মহিলা মাদ্রাসার দক্ষিণ পার্শ্বের এমারত খান এর বাড়ীর ভাড়াটিয়া ভিকটিম তার ৩ কন্যা সন্তান নিয়ে বসবাস করে আসছিল। গত ১১ জুন ২০১৯ তারিখে গৃহবধুকে বাসায় একা পেয়ে একই এলাকার বাসিন্দা ইমরান খান জোরপূর্বক ভিকটিমের বাসায় ঢুকে ভিকটিমকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ,নির্যাতন ও মারধর করে। উক্ত ঘটনার কথা কাউকে না বলার জন্য ভিকটিমকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। পরবর্তীতে ভিকটিম বিষয়টি তার স্বামী ও এলাকাবাসীকে জানালে ধর্ষক ইমরানের পরিবার বিষয়টি মিমাংসা করতে তৎপরতা শুরু করে। বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য ধর্ষকের পরিবার ও এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদান করে। বিষয়টি পরবর্তীতে জানাজানি হলে ধর্ষণকারী ইমরান খান গ্রেফতার এড়ানোর জন্য কৌশলে পালিয়ে যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, সে ২০০৫ সালে এসএসসি পাশ করার পর থেকে তার চাচার রেষ্টুরেন্টে কাজ করে। সে ইতিপূর্বেও বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ভিকটিমকে কু-প্রস্তাব দেয়। ভিকটিম তার কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সে গত ১১ জুন ২০১৯ তারিখ সন্ধ্যায় সে ভিকটিমকে বাসায় একা পেয়ে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় ভিকটিম ধর্ষণে বাধা দেওয়ায় তাকে শারীরিক নির্যাতন করে মর্মে ধৃত আসামী স্বীকার করে। ধৃত আসামী একজন ইয়াবা ব্যবসায়ী এবং সে নিজেও দীর্ঘ দিন যাবৎ ইয়াবা সেবন করে। তার বিরুদ্ধে টঙ্গীসহ বিভিন্ন থানায় একাধিক মাদক মামলা আছে। তার বিরুদ্ধে বাড়িঘর ভাংচুর এবং ডিস ব্যবসাকে কেন্দ্র করে গোলাগুলির ঘটনায় একাধিক মামলা চলমান আছে। এসব মামলায় বর্তমানে জামিনে আছে বলে ধৃত আসামী জানায়। এছাড়াও ধৃত আসামীর বিরুদ্ধে গাজীপুরের বিভিন্ন থানায় মারামারি, চাঁদাবাজি, নারী শ্লীলতা হানীসহ অসংখ্য মামলা রয়েছে বলে জানা যায়।

পরবর্তীতে এ ধর্ষনের ঘটনায় ভিকটিম বাদী হয়ে টঙ্গী পশ্চিম থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১০ তারিখ ১৩/০৬/২০১৯ ইং মামলা নং-১০ তারিখ ১৩/০৬/২০১৯ ইং ধারা- নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধনী ২০০৩) এর ৯(১)। গ্রেফতারকৃত ধর্ষণকারী ইমরান খানকে টঙ্গী পশ্চিম থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব-১।

টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: এমদাদুল হক ধর্ষণকারী ইমরান খানকে র‌্যাব আটক করেছে বলে স্বীকার করেছেন।