মঙ্গলবার ১৫ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং ৩০শে আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

কলারোয়ায় প্রধানমন্ত্রীর বাসগৃহ প্রকল্পের দূর্নীতির তদন্তে আসলেন দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব………

আপডেটঃ ৩:০৭ পূর্বাহ্ণ | জুলাই ১২, ২০১৯

জুলফিকার আলী-কলারোয়া(সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি: কলারোয়ায় প্রধানমন্ত্রীর বাসগৃহ প্রকল্পের কাজের অনিয়ম দূর্নীতির একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়। বুধবার বেলা সাড়ে ১০টায় এ অভিযোগের সরেজমিনের তদন্তে আসেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব এটিএম কামরুল ইসলাম। তিনি এসময় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামালকে সাথে নিয়ে কলারোয়ায় আসেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের রুমে বসে তদন্তের কাজ শুরু করেন। এসময় সেখানে কলারোয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরএম সেলিম শাহনেওয়াজ, সহকারী কমিশনার (ভুমি) আক্তার হোসেন, জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার রায়, হেলাতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন, কেরালকাতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল হামিদ সরদার, লাঙ্গলঝাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম, সোনাবাড়ীয়া ইউপি চেয়ারম্যান এসএম মনিরুল ইসলাম, কেড়াগাছি ইউপি চেয়ারম্যান এসএম আফজাল হোসেন হাবিল, চন্দনপুর ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম মনি, কয়লা ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ইমরান হোসেন, কুশোডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান আসলামুল ইসলাম আসলাম, দেয়াড়া ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবর রহমান মফে, জালালাবাদ ভারপ্রাপ্ত ইউপি চেয়ারমান আবুল কালাম আজাদসহ উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত চেয়ারম্যানগণ কলারোয়া প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুলতানা জাহানের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উপস্থাপন করেন। চেয়ারম্যানরা বলেন-২০১৮-১৯ইং অর্থ বছরে এ প্রকল্পের আওতায় প্রতিটি ইউনিয়নে ১টি করে ও বীরমুক্তিযোদ্ধাদের ২টি এবং উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের ৩টি করে মোট-১৭ ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়। যেটি ছিলো প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দ। যা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সুলতানা জাহান নিজের ক্ষমতা বলে বন্ধ করে রেখেছে। ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের কোন জবাবদিহি নেই। এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্পে তার বিরুদ্ধে রয়েছে হাজারও অভিযোগ। টাকা ছাড়া কোন ফাইল সহি হয়না। যেখানে নিয়মিত চেয়ারম্যান ও মেম্বারগণ হয়রানি শিকার হচ্ছে। এবিষয়ে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল বলেন-কলারোয়া প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুলতানা জাহানের বিরুদ্ধে ১৭টি বাসগৃহ নির্মানের অনিয়মের তদন্ত শুরু হয়েছে, অভিযোগের সত্যতা গেলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রনালয় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন। অন্যদিকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব এটিএম কামরুল ইসলাম বলেন, কলারোয়া পিআইও সুলতানা জাহানের বিরুদ্ধে দূর্নীতি অনিয়মের অভিযোগের ভিত্তিতে তিনি কলারোয়ায় আসছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান ও সকল ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে বসে কথা বলেছেন, উপজেলায় অসমর্থ কাজ গুলি দ্রুত করার নির্দেশ দিয়েছেন এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রনালায় তদন্তের রিপোর্টা জমা দেয়ার পরে তার বিরুদ্ধে কি সিদ্ধান্ত নেয়া হয় তা পরে জানাতে পারবেন। এদিকে অভিযুক্ত পিআইও’র ফোন বন্ধ থাকায় তার মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।