রবিবার ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

জাতীয় পার্টির সাবেক চেয়ারম্যানের ঘোষণা অনুযায়ী জাপার সভাপতি হলেন -গোলাম মুহম্মদ কাদের….

আপডেটঃ ৩:২৭ পূর্বাহ্ণ | জুলাই ১৬, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুজনিত কারণে ভারমুক্ত হলেন জি এম কাদের। গত ৫ এপ্রিল পার্টির সাবেক চেয়ারম্যানের ঘোষণা অনুযায়ী জাপার সভাপতি হলেন গোলাম মুহম্মদ কাদের।
৫ এপ্রিল ২০১৯ এক বিজ্ঞপ্তিতে এইচ এম এরশাদ জানিয়েছিলেন, তার অবর্তমানে ও চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিদেশে অবস্থানকালে পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন তার ছোট ভাই ও পার্টির কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

এই বিজ্ঞপ্তিতে এরশাদ বলেন, আমি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হিসেবে পার্টির সর্বস্তরের নেতাকর্মী-সমর্থকদের জ্ঞাতার্থে জানাচ্ছি যে, আমার অবর্তমানে বা চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিদেশে থাকাকালীন পার্টির বর্তমান কো-চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।
এইচ এম এরশাদের মৃত্যুর পর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ, না জি এম কাদের- এ নিয়ে দলে আরেক দফা ভাঙনের আশঙ্কা করছিল নেতাকর্মীরা।
কিন্তু পার্টি সূত্রে জানা যায়, শেষ পর্যন্ত এইচ এম এরশাদের সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন জানিয়ে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করছেন। এ ক্ষেত্রে পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ সংসদে বিরোধীদলীয় নেতার দায়িত্ব পালন করবেন। আর এইচ এম এরশাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জি এম কাদের পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে দল পরিচালনা করবেন। অন্যরা সবাই তাদের সহযোগিতা করবেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পার্টির সাবেক মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, পল্লীবন্ধুর বিদায়ে আমরা কাতর। এই সময়ে দলে ঐক্য বেশি প্রয়োজন। ঐক্যবদ্ধভাবে সাবেক এই রাষ্ট্রপতিকে আমরা বিদায় জানাতে চাই।
পার্টিতে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয় এমন কোনো বিষয় আমাদের এখন সামনে টেনে আনা উচিত হবে না।
মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, পল্লীবন্ধু্ আমাদের যে সব আদর্শ ও সিদ্ধান্ত দিয়ে গেছেন সে অনুযায়ী দল পরিচালনা হবে। তিনি বলেন, ঐকমত্যের ভিত্তিতে আমরা সব সিদ্ধান্ত নেবো। এইচ এম এরশাদকে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানানোর অন্যতম পথ হচ্ছে দলে বিশৃঙ্খলা না ঘটিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা।
আরেক প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা বলেন, জি এম কাদেরের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থেকে আমাদের পল্লীবন্ধুর অপূর্ণ স্বপ্ন উন্নত রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। দুঃখী মানুষের মুখের হাসি এবং অন্নের যোগানসহ মৌলিক অধিকার বাস্তবায়ন করে মানুষের উন্নত জীবনের জন্য কাজ করা।
এরশাদ তার কর্ম ও আদর্শ নিয়ে আমাদের মাঝে জীবিত। মৃত এরশাদ এখন অনেক বেশি শক্তিশালী।