মঙ্গলবার ১৫ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং ৩০শে আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

পেঁয়াজের রপ্তানি মূল্য তিনগুণ করল ভারত! কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা

আপডেটঃ ২:১৬ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯

আজ থেকে খোলাবাজারে বিক্রি

নিজস্ব প্রতিবেদক-: বন্যার কারণ দেখিয়ে পেঁয়াজ রপ্তানির মূল্য প্রায় তিনগুণ বাড়িয়েছে ভারত। গত দুই মাসের ব্যবধানে দু’দফায় এই মূল্য বাড়িয়ে প্রতি মেট্রিক টন পেঁয়াজ ৮৫২ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করায় বিপাকে পড়েছেন হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা।
ভারত পিয়াজের রপ্তানিমূল্য বাড়িয়েছে এমন ঘোষণার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পিয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা। এক দিন আগে ৫৫ টাকায় বিক্রি হওয়া পিয়াজ গতকাল বিক্রি হয়েছে ৭৫ টাকায়। শুধু তা-ই নয়, বেড়েছে রসুন ও আদার দামও। গতকাল প্রতি কেজি পিয়াজ খুচরা বাজারে বিক্রি হয়েছে ৭০-৭৫ টাকা পর্যন্ত। আদা বিক্রি হয়েছে ১৮০ টাকা কেজিতে। অথচ প্রতি কেজি আদা এক সপ্তাহ আগেও ১৪০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।গতকাল প্রতি কেজি রসুন বিক্রি হয়েছে ১৫০-১৬০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে ছিল ১৪০ টাকা। দাম বাড়ার পেছনে একশ্রেণির অসৎ ব্যবসায়ীর কারসাজি রয়েছে বলে মনে করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ভারতের স্থানীয় বাজারে পিয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় দেশটির সরকার রপ্তানিমূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে। সেই বাড়ন্ত দামের পিয়াজ বাংলাদেশে আসতে এখনো অন্তত আরও ১৫ দিন সময় লাগবে। অথচ শুক্রবার ঘোষণা দেওয়ার ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই বাংলাদেশের পাইকারি পিয়াজ ব্যবসায়ীরা পণ্যটির দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। ফলে খুচরা বাজারে শনিবার সন্ধ্যার পর থেকে ৭০ টাকার নিচে আর পিয়াজ পাওয়া যাচ্ছে না। এতে একটা বড় ধরনের সিন্ডিকেট কাজ করছে বলে মনে করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা মনে করেন, একশ্রেণির অসৎ ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট করে বাজারে অস্থিরতা সৃষ্টি করছে। এ ছাড়া পাইকারি বাজারটাও নিয়ন্ত্রণ করছে এই সিন্ডিকেট। পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও নিয়ন্ত্রণে আনতে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ব্যবসায়ী প্রতিনিধি, টিসিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। মন্ত্রীর দফতরের একটি সূত্র জানায়, গতকাল দিনভর তিনি এসব নিয়ে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাসহ গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। এমনকি সন্ধ্যার পর সচিবালয়ে মন্ত্রীর দফতরে ফোন করা হলে জানানো হয়, তিনি বৈঠকে রয়েছেন। জানা গেছে, নিজেদের বাজার সামাল দিতে পিয়াজ রপ্তানির ন্যূনতম মূল্য টনপ্রতি ৮৫০ ডলার বেঁধে দিয়েছে ভারত। বাড়ন্ত এই দামে পিয়াজ আমদানি করলে প্রতি কেজির আমদানি মূল্য দাঁড়াবে ৭০-৭২ টাকা। তবে সেটি আমদানি হওয়ার পর। বর্তমানে বাজারে যেসব পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে সেগুলো অন্তত তিন মাস আগে আমদানি করা। কেননা আমদানির জন্য এলসি খোলার অন্তত ১৪ থেকে ২১ দিন পর ওই এলসি নিষ্পত্তি হয়। পণ্য আসতে সময় লাগে আরও কয়েক দিন। ফলে ভারত বাড়ন্ত রপ্তানিমূল্য কার্যকর করলেও বাংলাদেশের বাজারে এখনই এর প্রভাব পড়ার কথা নয়। এখানে একটা সিন্ডিকেট কাজ করছে। সরবরাহ স্বাভাবিক থাকা সত্ত্বেও তারা অধিক মুনাফার লোভে ইচ্ছাকৃতভাবে দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। প্রতিবছর সারা দেশে ৩৫-৪০ লাখ টন পিয়াজের চাহিদা রয়েছে বলে ব্যবসায়ীদের ধারণা। তারা মনে করেন, প্রতিবছর চাহিদার ৬০-৭০ শতাংশ পিয়াজ দেশেই উৎপাদিত হয়। বাকিটা আমদানি করা হয়।
আজ থেকে খোলাবাজারে পিয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি : পিয়াজের দামের ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে সরকারি প্রতিষ্ঠান টিসিবির মাধ্যমে খোলাবাজারে ট্রাকসেলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। গতকাল সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
এ ছাড়া পিয়াজ আমদানির ক্ষেত্রে এলসি মার্জিন এবং সুদের হার কমানোর বিষয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে বাংলাদেশ ব্যাংকে এবং বন্দরে আমদানিকৃত পিয়াজের খালাস প্রক্রিয়া দ্রুততার সঙ্গে সম্পন্ন করার জন্য কাস্টমসসহ যথাযথ কর্তৃপক্ষকেও চিঠি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।
তবে নতুন মূল্যের এই পেঁয়াজ দেশে আসতে এখনও দুই-তিনদিন সময় লাগতে পারে বলে জানা গেছে। এর ফলে ভারত থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৮০-৯০ টাকা দরে বাংলাদেশে বিক্রি করা হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
হিলি স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীরা জানান, এরপর থেকে দেশের ব্যবসায়ীরা কোনো রপ্তানি মূল্য ছাড়াই ১৫০-২০০ ডলার মূল্যে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি করতেন। ফলে বন্দরের ব্যবসায়ীরা ১৫-২০ টাকা করে পাইকারি মূল্য পেঁয়াজ বিক্রি করছিলেন। গত দুই মাস থেকে পেঁয়াজের দাম বেড়ে ৩৫০-৪০০ ডলারে বৃদ্ধি করলে ৩২-৩৬ টাকায় পাইকারি বিক্রি হয়।
জানা যায়, ভারতের মহারাষ্ট্র ও উত্তর প্রদেশে বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হয়। এবার এসব অঞ্চলসহ ভারতের বিভিন্ন প্রদেশে বন্যায় পেঁয়াজ উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে। এজন্য ভারতজুড়ে পেঁয়াজের দাম বাড়তে থাকে। গত দুই মাস থেকে ৩৫০-৪০০ ডলারে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি করা হচ্ছিল। সর্বশেষ গত বুধবার আবার বাংলাদেশে পেঁয়াজের রপ্তানি মূল্য বাড়িয়ে ৮৫২ ডলার করার সিদ্ধান্ত নেয় ভারত সরকার। তবে দেশটির বিভিন্ন অঞ্চলে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৪০-৫০ রুপিতে বিক্রি হচ্ছে।
হিলি বন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক মোবারক হোসেন জানান, ভারত থেকে ৩৫০-৪০০ ডলারে পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছিল। তাতে বন্দরের মোকামে পেঁয়াজের প্রকারভেদে বিক্রি হচ্ছিল ৩২-৩৬ টাকায়। গত বৃহস্পতিবার আবার প্রতি কেজিতে দুই টাকা বেড়ে বিক্রি হয়েছে ৩৮ টাকায়। ৮৫২ ডলারে পেঁয়াজ আমদানি করা হলে প্রতি কেজিতে ৭২ টাকার মত পড়বে। এ কারণে পেঁয়াজ আমদানি করা নিয়ে ব্যবসায়ীরা সবাই চিন্তাগ্রস্ত।
মোবারক আরও জানান, গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কিছু পেঁয়াজের এলসি মূল্য ৪০০ ডলারে করা আছে। সেই পেঁয়াজ আজ শনিবার আমদানি করা হচ্ছে। রোববার নতুন রপ্তানি মূল্যের পেঁয়াজ আমদানি করতে ব্যাংকে এলসি করা হবে। হয়ত এ দিন থেকেই নতুন মূল্যের পেঁয়াজ দেশে ঢুকবে। এতে করে সাধারণ ক্রেতাদেরও বেশি দামে পেঁয়াজ কিনতে হবে।