শুক্রবার ১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

নেত্রকোনার পূর্বধলায় যুবলীগ নেতার গাড়িতে হামলা,ভাংচুর-সংবাদ সম্মেলন…

আপডেটঃ ৩:৩৩ পূর্বাহ্ণ | অক্টোবর ০৯, ২০১৯

হামিদুর রহমান অভি:নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধিঃ নেত্রকোনা – পূজামন্ডপ পরিদর্শনে গিয়ে জেলার পূর্বধলায় হামলার শিকার হয়েছেন লন্ডন প্রবাসী যুবলীগ নেতা তুহিন আহাম্মদ খান। এ সময় লন্ডন প্রবাসী ওই নেতার ব্যবহৃত গাড়িটিও ভাংচুর করা হয়। এরই প্রতিবাদে মঙ্গলবার উপজেলার খলিশাউড় ইউনিয়নের খলিশাউড় খানপাড়ায় তুহিন আহাম্মদ খান সংবাদ সম্মেলন করেন।
অভিযোগে জানা গেছে, জেলার পূর্বধলার খলিশাউড় ইউনিয়নের খলিশাউড় খানাপাড়া গ্রামের বাড়ি থেকে লন্ডন প্রবাসী যুবলীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ইঞ্জিনিয়ার তুহিন আহাম্মদ খান রোববার রাতে পূর্বধলা উপজেলা সদরে পূজামন্ডপ পরিদর্শনে বের হন। উপজেলা সদরের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ দেখে উপজেলা শহরের মঙ্গলবাড়িয়ায় যান। এ সময় ওই পূজা মন্ডপে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সুজন ও তাদের কর্মী সমর্থকরা ছিলেন। তুহিন আহমদ খানের সাথে আহমদ হোসেনের কুশল বিনিময় হয় ও কৃুশল শেষেএক পর্যায়ে তাদের মধ্যে উত্যাপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। পরে তাদের সমর্থক কতিপয় যুবক তার সাথে তুহিন আহম্মদ খানের সাথে অসৌজন্য মূলক আচরণ করে। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিলে আইনশৃংখলা রক্ষায় নিয়োজিত স্থানীয় পুলিশ তাকে ওই এলাকা ত্যাগ করার কথা বলে।
ইঞ্জিনিয়ার তুহিন আহাম্মদ খান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আহমদ হোসেন আমাকে বলেন তুমি পূর্বধলায় কেন লন্ডনে চলে যাও। আমি বলেছি আমার বাড়ি এখানে আসবনা কেন। এর কিছুক্ষণ পরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজন ও আহমদ হোসেনের সমর্থক মাহাবুব, মজিবুর রহমান, জাহিদ, প্রিন্সসহ ১০-১২জন যুবক পূর্বধলার কলেজ রোড এলাকায় গাড়িতে হামলা চালায়। তারা লাথি মারে এবং ইট দিয়ে গাড়িটি ভাংচুর করে। আমাকে টেনে হিছরে গাড়ি থেকে বের করার চেষ্টা চালায় তারা। এ সময় গাড়িতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ার হোসেন, ময়মনসিংহ মহানগর শাখা তাঁতী লীগের যুগ্ন আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম, পূর্বধলা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুমি আকন্দ গাড়িতে ছিলেন। যুবকরা সুমি আকন্দকে নাজেহাল ও অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে। এমনকি তার কাপড় খুলে নেয়ারও হুমকি দেয়।
পূর্বধলা উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সুমি আকন্দ বলেন, আমি তুহিন ভাইয়ের সাথে পূজা ম-প পরিদর্শণ করছিলাম। এখানে যে ঘটনা ঘটেছে তা দুঃখ জনক। আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছে হামলাকারী যুবকরা। আমার শাড়ী কাপড় খুলে নেয়ার হুমকিও দিয়েছে তারা।
পূর্বধলা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজন বলেন, তুহিনের গাড়ি ভাংচুরের ঘটনা আমি জানিনা। হয়তো নিজের গাড়ি নিজেই ভেঙ্গে আলোচনায় আসতে চাইছেন তিনি। ঘটনা যদি ঘটেই থাকে পুলিশ তদন্ত করে বের করবে কি ঘটেছে।
কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, তুহিনকে আমি মজা করে বলেছি সংসদ নির্বাচনের আরও চার বছর সময় আছে। এখনই কেন- পরে আস। এখন লন্ডন চলে যাও। ঘাড়ি ভাংচুরের বিষয়টি আমার জানা নেই। ভাংচুরের বিষয়টি হয়ত সাজানো নাটক হতে পারে আলোচনায় আসার জন্য।
পূর্বধলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মাদ তাওহীদুর রহমান জানান, প্রকৌশলী তুহিন আহম্মদ খানের গাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ব্যাপারে থানায় তিনি অভিযোগ করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।