সোমবার ২০শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং ৭ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

শুক্রবার শুরু হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমা প্রথম ধাপ…

আপডেটঃ ৩:৫২ পূর্বাহ্ণ | জানুয়ারি ১০, ২০২০

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ শুক্রবার ফজরের নামাজের পর থেকে আ’ম বয়ানের মাধ্যমে শুরু হচ্ছে ৫৫ তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপ। প্রথম ধাপে মাওলানা যোবায়ের পন্থীগণ ১০, ১১ ও ১২ জানুয়ারী খিত্তাওয়ারী অবস্থান নিবেন ৬৪টি জেলার। এর মধ্যে অবস্থান নেবেন- ১নং খিত্তায় গাজীপুর, ২নং খিত্তায় টঙ্গী-১, ৩নং খিত্তায় টঙ্গী-২, ৪নং খিত্তায় টঙ্গী-৩, ৫নং খিত্তায় মিরপুর-১, ৬নং খিত্তায় মিরপুর-২, ৭নং খিত্তায় সাভার-১, ৮নং খিত্তায় সাভার-২, ৯নং খিত্তায় মোহাম্মদপুর, ১০নং খিত্তায় কারকরাইল-৩, ১১নং খিত্তায় কেরানীগঞ্জ-১, ১২নং খিত্তায় কেরানীগঞ্জ-২, ১৩নং খিত্তায় কাকরাইল-১, ১৪নং খিত্তায় কাকরাইল-২, ১৫ (ক) খিত্তায় ডেমরা, ১৫ (খ) নং খিত্তা (সংরক্ষিত খিত্তা), ১৬নং খিত্তায় কাকরাইল-৪, ১৭নং খিত্তায় কাকরাইল-৫, ১৮নং খিত্তায় কাকরাইল-৬, ১৯নং খিত্তায় কাকরাইল-৭, ২০নং খিত্তায় রাজশাহী, ২১নং খিত্তায় নওগাঁ, ২২নং খিত্তায় নাটোর, ২৩নং খিত্তায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ২৪নং খিত্তায় যাত্রাবাড়ী-২, ২৫নং খিত্তায় যাত্রাবাড়ী-১, ২৬নং খিত্তায় সিরাজগঞ্জ, ২৭নং খিত্তায় দোহার, ২৮নং খিত্তায় নবাবগঞ্জ, ২৯নং খিত্তায় মানিকগঞ্জ, ৩০নং খিত্তায় টাঙ্গাইল, ৩১নং খিত্তায় নড়াইল, ৩২নং খিত্তায় ধামরাই, ৩৩নং খিত্তায় রংপুর, ৩৪নং খিত্তায় নীলফামারী, ৩৫নং খিত্তায় কুড়িগ্রাম, ৩৬নং খিত্তায় লালমনিরহাট, ৩৭নং খিত্তায় গাইবান্ধা, ৩৮নং খিত্তায় মুন্সীগঞ্জ, ৩৯নং খিত্তায় মাগুরা, ৪০নং খিত্তায় ঝিনাইদহ, ৪১নং খিত্তায় বগুড়া, ৪২নং খিত্তায় নারায়ণগঞ্জ, ৪৩নং খিত্তায় ফরিদপুর, ৪৪নং খিত্তায় যশোর, ৪৫নং খিত্তায় সাতক্ষীরা, ৪৬নং খিত্তায় বাগেরহাট, ৪৭নং খিত্তায় নরসিংদী, ৪৮নং খিত্তায় ভোলা, ৪৯নং খিত্তায় জামালপুর, ৫০নং খিত্তায় ময়মনসিংহ-১, ৫১নং খিত্তায় ময়মনসিংহ-২, ৫২নং খিত্তায় মেহেরপুর, ৫৩নং খিত্তায় চুয়াডাঙ্গা, ৫৪নং খিত্তায় নেত্রকোনা, ৫৫নং খিত্তায় কিশোরগঞ্জ, ৫৬নং খিত্তায় গোপালগঞ্জ, ৫৭নং খিত্তায় বরিশাল, ৫৮নং খিত্তায় রাজবাড়ি, ৫৯নং খিত্তায় শেরপুর, ৬০নং খিত্তায় শরিয়তপুর, ৬১নং খিত্তায় মাদারীপুর, ৬২নং খিত্তায় সিলেট, ৬৩নং খিত্তায় কক্সবাজার, ৬৪নং খিত্তায় রাঙ্গামাটি, ৬৫নং খিত্তায় খাগরাছড়ি, ৬৬নং খিত্তায় বান্দরবান, ৬৭নং খিত্তায় ফেনী, ৬৮নং খিত্তায় নোয়াখালী, ৬৯নং খিত্তায় লক্ষীপুর, ৭০নং খিত্তায় চাঁদপুর, ৭১নং খিত্তায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ৭২নং খিত্তায় খুলনা, ৭৩নং খিত্তায় পটুয়াখালী, ৭৪নং খিত্তায় বরগুনা, ৭৫নং খিত্তায় চট্টগ্রাম, ৭৬নং খিত্তায় কুমিল্লা, ৭৭নং খিত্তায় পিরোজপুর, ৭৮নং খিত্তায় ঝালকাঠি, ৭৯নং খিত্তায় সুনামগঞ্জ, ৮০নং খিত্তায় হবিগঞ্জ, ৮১নং খিত্তায় মৌলভীবাজার, ৮২নং খিত্তায় পাবনা, ৮৩নং খিত্তায় ঠাকুরগাঁও, ৮৪নং খিত্তায় পঞ্চগড়, ৮৫নং খিত্তায় দিনাজপুর, ৮৬নং খিত্তায় জয়পুরহাট এবং ৮৭নং খিত্তায় কুষ্টিয়া। ৮৮নং থেকে ৯২নং খিত্তা সংরক্ষিত থাকবে।

আখেরী মোনাজাত হবে ১২ জানুয়ারী রবিবার। ইতিমধ্যে বৃহস্পতিবার ভোর থেকে কুয়াশা, কনকনে ঠান্ডা বাতাস, গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি উপেক্ষা করে লাখো মুসল্লী বিশ^ ইজতেমার ময়দানের দিকে ছুটছেন। ১৩ জানুয়ারী যোবাযের পন্থীরা মাঠ বুঝিয়ে দিবেন গাজীপুর জেলা প্রশাসনকে। মাঝে চারদিন বিরতির পর ১৭ জানুয়ারী শুরু হবে বিশ^ ইজতেমার দ্বিতীয় ধাপ। মাওলানা সা’দপন্থীরা অনুরূপভাবে খিত্তাওয়ারি অবস্থান নিবেন। ১৯ জানুয়ারী আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে সমাপ্ত হবে ৫৫তম বিশ^ ইজতেমা ২০২০।


বিশ্ব ইজতেমার ইতিকথা: উপ-মহাদেশের ইতিহাসের ক্লান্তিলগ্নে তাবলীগ জামাতের সূচনা হয়। বিংশ শতাব্দীর প্রখ্যাত ইসলামি চিন্তাবিদ সাধক হযরত মাওলানা ইলিয়াস কান্ধলভী (রহ:) ১৩৪৫ হিজরীতে পবিত্র মক্কায় হজ¦পালন শেষে ভারতবর্ষের দিল্লিতে তাবলীগি গাস্ত শুরু করেন। মানুষের মধ্যে কলেমা নামাজের দাওয়াত দিতে জামাত তৈরি করে রাসূলে পাক (সা:) বাণী বিশ^ব্যাপী ছড়িয়ে দিতে থাকেন। তাবলীগ জামাতের আমির মাওলানা ইউসুফ কান্ধলভী (রহ:) এর আমলে প্রথম ইজতেমা ১৯৪১ সালে দিল্লির নিজাম উদ্দিন মসজিদে ছোট এলাকা মেওয়াতের নুহ মাদ্রাসায় আয়োজন করা হয়। সেখানে প্রায় ২৫ হাজার মুসল্লী অংশগ্রহণ করেন। বাংলাদেশে ১৯৪৬ সালে ঢাকার কাকড়াইল মসজিদে প্রথম ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ১৯৪৮ সালে চট্টগ্রামে হাজী ক্যাম্পে ইজতেমা হয়। ১৯৫৮ সালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্দিরগঞ্জ এলাকায় ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৬৬ সালে টঙ্গীর পাগাড় গ্রামে জাকারিয়া মিলস্ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৬৭ সালে টঙ্গীর রাজউকের হুকুম দখলকৃত ১৬০ একর ভূমি ডুবা, নালা, উচু, নিচু জমিতে বিশ^ ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ^ ইজতেমা কর্তৃপক্ষের (কাকরাইল মসজিদের) মরুব্বীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে টঙ্গীর ভরান মাছিমপুরসহ বিভিন্ন মৌজার ১৬০ একর ভূমি বরাদ্দ দেন। সেই থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত এক ধাপে তিনদিনের বিশ^ ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। স্থান সংকুলনা না হওয়াতে দু’পর্বে ইজতেমা করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। বর্তমান সরকার বিশ^ ইজতেমায় দেশ বিদেশের লাখো মুসল্লীদের পয়:নিষ্কাশন, ওযু, গোসল, খাওয়া-ধাওয়াসহ সার্বিক নিরাপত্তাদানের জন্য ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেন। শত কোটি টাকা ব্যয় করে প্রতি বছর ইজতেমায় আগত মুসল্লীদের সার্বিক সেবায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ নির্দেশে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়, স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন, পুলিশ প্রশাসনসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিষ্ঠার সাথে তাদের দায়িত্ব পালন করে চলছেন।

বিশ^ ইজতেমা ২০২০ এর সার্বিক কার্যক্রম মনিটরিং করার জন্য ৮টি কন্ট্রোল রুম, ১৫টি তোড়ন, পুলিশ বিভাগের জন্য ১৫টি ওয়াচ টাওয়ার, র‌্যাবের জন্য ১০টি স্থাপন করা হয়েছে। নিরাপত্তায় নিয়োজিত বাহিনীর জন্য ৪০০টি অস্থায়ী টয়লেট নির্মাণ করা হয়েছে। ওযু, গোসল, পয়:নিষ্কাশন, সুপেয় পানির জন্য ১৩টি গভীর নলকূপ ৩ কোটি ৫৪ লক্ষ গেলন পানি প্রতিদিন সরবরাহ করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ৬০০ ড্রাম বিলিচিং পাউটার, ২হাজার লিটার কেরসিন, ৬০টি গার্বেস ট্রাক, বর্জ্য অপসারণ করবে। ৬০টি ফগার মেশিন মশক নিধন করবে। নদী ব্রীজের ৩টি নিরাপত্তা বেষ্ট্রনী নির্মাণ করা হয়েছে।

মুসল্লীদের চিকিৎসা সেবা দিতে ৪৫টি ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। আজ বিকেলে ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ এমপি, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী আলহাজ¦ মো: জাহিদ আহসান রাসেল এমপি হামদ্দ ল্যাবরেটরি ওয়াকর্স, ইবনেসিনা ফার্মাসিউটিকেল, টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতাল, টঙ্গী ঔষধ ব্যবসাকী কল্যাণ সমিতি, চাঁদপুর জনকল্যাণ সমিতিসহ বিভিন্ন ফ্রি চিকিৎসা ক্যাম্প উদ্বোধন করেন। বিদেশী মেহমানদের জন্য ১৭৫টি গ্যাসের চুলা, ৬টি টেলিফোন সেট, ২টি হটলাইন। এদিকে টঙ্গী প্রেসক্লাবের উদ্যোগে মিডিয়া সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া জেলা প্রশাসন ও জিসিসির বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটগণ মোবাইল কোট পরচালনা করবেন। পাশাপাশি খিত্তার ভিতর-বাইরে সাদা পোশাক এবং পোশাকধারীসহ বিভিন্ন সংস্থার ৮ হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দায়িত্ব পালন করবেন। ইতিমধ্যে ২৭টি দেশের ৫শতাধিক বিদেশী মেহমান ও ভারত পাকিস্তানের শূরা সদস্যগণ উপস্থিত হয়েছেন। ৫৬নং খিত্তার ২৬৫নং খুঁটির মুসল্লী গোপালগঞ্জ জেলার কোতয়ালী থানার মৃত হাসেম আলীর ছেলে ইয়াকুব সিকদার (৮৫) মৃত্যু হয়। হৃদরোকে আক্রান্ত হয়ে আজ বৃহস্পতিবার ভোরে তিনি মারা যান।