সোমবার ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে চলছে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটিসহ পাশবর্তী ভবনের নির্মাণ কাজ

আপডেটঃ ৫:৩৭ অপরাহ্ণ | আগস্ট ০৭, ২০১৪

জসিম উদ্দিন সিদ্দিকী কক্সবাজার
অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ লাইন নিয়ে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির কার্যক্রম চলছে বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। কক্সবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে পাশবর্তী একটি ভবন থেকে ধারন ক্ষমতার তুলনায় খবই অপ্রতুল একটি বিদ্যুৎ তার ব্যবহার করে সংযোগ নেয়ার কারনে যে কোনো মুর্হতে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা করছেন স্থানীয়রা। এছাড়া একই ভবন থেকে অবৈধ সংযোগ নিয়ে পাশবর্তী আরেকটি নির্মাধীণ ভবনে নির্মাণ কাজ চলারও অভিযোগ রয়েছে। উক্ত স্থানে অবৈধ সংযোগ লাইনের ছড়াছড়ি হওয়ার যে কোনো মুর্হতে দুর্ঘটনার আশংকা করছেন পাশবর্তী লোকজনসহ পথচারিরা। তবে স্থানীয়দের অভিযোগ এ সমস্ত অবৈধ সংযোগ থেকে নানা সুবিধা নিচ্ছে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কিছু অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারি।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পর্যটন এলাকার কলাতলীর মোড়স্থ ডায়নামিক হোটেল থেকে অবৈধ ভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ লাইন নিয়ে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটি কার্যক্রম ও পাশবর্তী একটি নির্মাণাধীন ভবনের কাজ করা হচ্ছে। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নিয়মানুযায়ি এক একটি ভবনের ধারন ক্ষমতা নির্ধারণ করে বিদ্যুৎ সরবরাহ দেয়া হয়ে থাকে। কিন্তু এ ধারণ ক্ষমতার উপর ভর করে ১০ তালা বিশিষ্ট ভবনের অন্যান্য ব্যবসায়িক কার্যক্রমসহ কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির কার্যক্রম ও পাশবর্তী একটি নির্মাণাধীন ভবনের কাজ করা হচ্ছে। যা ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অধিক চাপ সৃষ্টি হচ্ছে বিদ্যুৎ সরবরাহের উপর। যে কারনে যে কোনো মুর্হতে ট্রান্সর্ফামার বিকলসহ পুরো ভবনে অগ্নিকান্ডের আশংকা রয়েছে বলে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিদ্যুৎ কর্মকর্তাসহ স্থানীয় লোকজন। এদিকে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ ব্যবহার এর ব্যাপারে কক্সবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ মুস্তাফিজুর রহমান জানান, স্থানীয় লোকজনের অভিযোগের ভিত্ত্বিতে কলাতলীর মোড়স্থ ১০ তালা বিশিষ্ট ভবনের অন্যান্য ব্যবসায়িক কার্যক্রমসহ কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির কার্যক্রম ও পাশবর্তী একটি নির্মাণাধীন ভবনের নির্মাণ কাজে যে বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হচ্ছে তা আমাদের দৃষ্টিতে এবং বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নীতিমালা অনুযায়ি সম্পূর্ণ অবৈধ। তবে সম্প্রতি ঈদের ছুটির কারনে অভিযান পরিচালনা করা যায়নি। খুবই দ্রুত সময়ের মধ্যে অভিযান চালিয়ে তা সংযোগ লাইন বিচ্ছিন্ন করা হবে। তিনি আরো জানান, আমার জানা মতে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটি ও পাশবর্তী নির্মাণাধীন ভবনে বর্তমানে কোনো প্রকার বৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ নেই।