বুধবার ২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

গাজীপুরে শিশু আলিফ হত্যার প্রধান আসামি বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত, র‌্যাবের দুই সদস্য আহত, বিদেশি পিস্তল ও গুলি উদ্ধার…..

আপডেটঃ ৬:১০ অপরাহ্ণ | মে ০৪, ২০২০

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : রাজধানীর অদূরে গাজীপুরের কোনাবাড়ীতে শিশু আলিফ হোসেন (৫) হত্যার প্রধান আসামি জুয়েল আহমেদ সবুজ (২২) এলিট ফোর্স র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় র‌্যাবের দুই সদস্য কনস্টেবল ইস্রিস (৩০) ও নায়েক চান মিয়া (৪০) আহত হয়েছেন।এসময় র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল ও ৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে।র‌্যাবের আইনও গনমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক এএসপি সুজয় সরকার আজ সোমবার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।এদিকে,গাজীপুর র‌্যাব-১ এর কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন আজ সোমবার জানান, রোববার দিনগত রাত ২টার দিকে গাজীপুরের হরিণাচালা কাশিমপুর জেলখানা রোড এলাকায় এ ‘বন্দুকযুদ্ধ’ হয়। এ ঘটনায় র‌্যাবের দুই সদস্য ইদ্রিস ও চান মিয়া আহত হয়েছেন।তাদেরকে গাজীপুরের শহীদ তাজ উ্দ্দিন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা করা হয়েছে। নিহত সবুজ নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার পদিপাড়া এলাকার রফিক উল্লাহর ছেলে।নিহত বছরের শিশু আলিফ হোসেন কোনাবাড়ী থানার পারিজাত আমতলা এলাকা ফরহাদ হোসেনের ছেলে।এলিট ফোর্স র‌্যাব-১,উত্তরা এর গাজীপুরের কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন  আরও বলেন, গত ২৯ এপ্রিল বিকেলে আলিফকে অপহরণ করে সবুজ ও সাগর। অপহরণের পর ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করছিল তারা। এক পর্যায়ে নিহতের বাবা ফরহাদ মুক্তিপণের ২০ লাখ টাকা দিতে রাজি হয়। পরে ওই টাকা দিতে মোবাইলে বিভিন্ন জায়গায় তাকে যেতে বলে অপহরণকারীরা। এক পর্যায়ে গত শনিবার সন্ধ্যায় মুক্তিপণের ২০ লাখ টাকা নিয়ে পূবাইল এলাকায় যান তিনি। সেখান থেকে সাগরকে আটক করে র‌্যাব সদস্যরা। পরে তার দেয়া তথ্য মতে, ফরহাদের ভাড়া দেওয়া একটি বাড়ির তৃতীয় তলায় ঝুট গুদাম থেকে আলিফের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এঘটনায় র‌্যাবের পক্ষ থেকে আজ অস্ত্র, ও পুলিশ এ্যাসাল্ট ধানায়  কোনাবাড়ি থানায় একটি মামলা দায়ের করা হবে।উল্লেখ্য যে, গত ২৯ এপ্রিল গাজীপুরের কোনাবাড়ী থানার পারিজাত আমতলা এলাকা থেকে অপহরণের পর আলিফকে হত্যা করা হয়। পরে অপহরণের পাঁচদিন পর গত শনিবার (২ মে) দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে নিজ বাসার তিন তলার একটি গুদাম থেকে আলিফের মরদেহ উদ্ধার করে র‌্যাব ও পুলিশ।