রবিবার ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ ইং ৯ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

গাজীপুরে অসহায় মানুষের পাশে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর চাচা

আপডেটঃ ২:০০ অপরাহ্ণ | জুন ০৭, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক -: যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপির পরামর্শে চাচা মতিউর রহমান মতি অসুস্থ মানুষের জন্য রাত-দিন ছুঁটছেন মানুষের দুয়ারে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে হঠাৎ কর্মহীন নিম্নআয়ের মানুষের পাশে থাকছেন। বাড়িয়ে দিচ্ছেন সহযোগিতার হাত। করোনাকালে গাজীপুর মহানগরীর মানুষের জন্য এমন সেবা দিয়ে যাচ্ছেন মতিউর রহমান মতি। তিনি গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।
বয়স ষাটের দুয়ারে হলেও এখন প্রাণবন্ত মানুষটি। করোনায় স্থবির মানুষের জীবনে গতি আনতে তার এই প্রচেষ্টা। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, করোনদুর্গত নিম্নআয়ের প্রকৃত অভাবী মানুষের তালিকা করে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিচ্ছেন গাজীপুর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের প্রিয় ‘মতি ভাই’। সারাদিন ত্রাণ বিতরণেই ক্ষ্যান্ত হন না। রাতে রান্না করা খাবারের পাত্র পিকআপ ভ্যানে চাপিয়ে ছুটে যান পথের মানুষের কাছে। রেলস্টেশন, ফুটপাতের ভবঘুরে অসহায়দের মুখে তুলে দেন সেই খাবার।
করোনার প্রাদুর্ভাব শুরু পর থেকে নিম্নআয়ের মানুষের বাড়ি বাড়ি চাল-ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন গাজীপুরের প্রয়াত শ্রমিক নেতা ও সাবেক সাংসদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের ছোটভাই মতিউর রহমান মতি।
দেশের বিভিন্ন জায়গায় ত্রাণ বিতরণে যখন অনিয়মের অভিযোগ আসছে তখন গাজীপুর মহানগরীতে ত্রাণ বিতরণে নজির গড়েছেন তিনি। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী এবং ভ্রাতুষ্পুত্র জাহিদ আহসান রাসেল এমপির পরামর্শ অনুযায়ী স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগসহ অন্যান্যদের সহযোগী সংগঠনকে সঙ্গে নিয়ে ত্রাণ বিতরণের এই কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন মতিউর রহমান।
স্থানীয় সূত্র জানা যায়, প্রতিমন্ত্রী ও স্থানীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেলের ব্যক্তিগত অর্থায়নে এখন পর্যন্ত ৭০ হাজারের বেশি পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া মতিউর রহমান নিজেও ব্যক্তিগত তহবিল থেকে দুস্থদের ত্রাণ হিসেবে নগদ অর্থ দিয়েছেন। নিশ্চিত করেছেন চিকিৎসা সেবা। ধর্মমত নির্বিশেষে প্রকৃত অভাবী সবাই এই ত্রাণ সহায়তা পাচ্ছেন। তিনি স্থানীয় ইমাম, মোয়াজ্জিনসহ এতিমখানায় পড়ুয়া ও বসবাসরত শিক্ষার্থীদের মুখে আহার তুলে দিতেও সচেষ্ট আছেন।
এছাড়া করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধিতেও কাজ করছেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের এই নেতা। হ্যান্ডমাইক ব্যবহার করে প্রচারণার পাশাপাশি মসজিদের ইমাম ও মোয়াজ্জিনদের মাধ্যমেও মুসল্লিদের সচেতন করার কাজ করছেন। বিভিন্ন বাজারঘাট, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় ছিটাচ্ছেন জীবাণুনাষক স্প্রে। এ কাজে তার সঙ্গে আছে একদল স্বেচ্ছাসেবী ।
মতিউর রহমান মতি ভাই বলেন, ‘আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য কাজ করি। লোক দেখানো কিংবা মিডিয়ায় প্রচারণার জন্য কখনও কাজ করিনি। আমার বড় ভাই শহীদ আহসান উল্লাহ্ মাস্টার অসহায়, দুস্থ ও শ্রমজীবী মানুষের জন্য সারাজীবন কাজ করেছেন। তিনি আমাকে শিখিয়েছেন মানুষের বিপদে কিভাবে সাহায্যের হাত বাড়াতে হয়। আজ তিনি বেঁচে নেই। কিন্তু তাঁর আদর্শ বুকে ধারণ করে কাজ করে যাচ্ছি। ’
গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পদাক বলেন, ‘গাজীপুর একটি শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকা। এই এলাকায় ভাসমান লোকের সংখ্যা বেশি। এই ক্রান্তিকালে গাজীপুরের নিম্নআয়ের ও দিনমজুর পরিবারগুলো সবচেয়ে বেশি কষ্ট করছে। আমাদের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপির পরামর্শে স্থানীয় আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে গত দেড় মাস যাবৎ আমাদের ত্রাণ বিতরণ কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার আগ পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলবে।’