বৃহস্পতিবার ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ ইং ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

রংপুরে ধর্ষণে জন্ম নেয়া সন্তানের স্বীকৃতি পেলেন মা…

আপডেটঃ ১২:৪৭ পূর্বাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০২১

রংপুর প্রতিনিধি :-রংপুরে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে শফিকুল ইসলাম নামে এক ধর্ষককের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন বিচারক। ধর্ষণের কারণে জন্ম নেয়া শিশুটির সকল ভরণ পোষনসহ তার ওয়ারিশ নিযুক্ত করে রায় দিয়েছেন জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত-২ এর বিচারক মো. রোকনুজ্জামান।
সোমবার জনার্কীন আদালতে তিনি এই রায় ঘোষণা করেন। সেই সাথে ধর্ষকের কোনো সম্পত্তি না থাকলে ওই শিশুর ব্যয়ভার রাষ্ট্রকে বহন করার আদেশ দেয়া হয়। দীর্ঘ ১৩ বছর পর শিশুটি ও তার মা পৈত্রিক স্বীকৃতি পেলেন।
মামলা সূত্রে জানা যায়, পীরগাছা উপজেলার অন্নদানগর ইউনিয়নের অন্নদানগর গ্রামের দিনমজুর হানিফ উদ্দিন দুই মেয়ে, এক ছেলে ও স্ত্রীকে রেখে অন্য জায়গায় চলে যান। সেখানে হানিফের মেয়েকে উত্যক্ত করতেন প্রতিবেশী মৃত মজিবর রহমানের ছেলে পান ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম। একপর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ওই কিশোরীর সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলেন শফিকুল।

মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালত-২ এর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) জাহাঙ্গীর হোসেন তুহিন বলেন, ঘটনার দিন ২০০৭ সালের ২৬ অক্টোবর বিকালে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে শফিকুল। এ পর্যায়ে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। বিষয়টি জানাজানি হলে ২০০৮ সালের ১ ফেব্রুয়ারি শফিকুল জোরপূর্বক গর্ভপাত ঘটানোর চাপ দেয়। প্রায় চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় ১০ফেব্রুয়ারি পীরগাছা থানায় মামলা করতে গেলে থানা থেকে আদালতে মামলা করার পরামর্শ দেয়া হয়। পরে মেয়েটি নিজে বাদী হয়ে ২০০৮ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি আদালতে শফিকুলসহ তার বাবা মজিবর, চাচা মমতাজ উদ্দিন ও ফুফ নজিরনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পরে ২০০৮ সালের ৪আগস্ট মেয়েটি একটি পুত্র সন্তানের জন্ম দেয়। এরই মধ্যেই প্রতারক শফিকুল অন্যত্র বিয়ে করেন।
তিনি আরও জানান, আদালতের নির্দেশে ধর্ষণে জন্ম নেয়া শিশু এবং ধর্ষকের ডিএনএ পরীক্ষা করা হয়। এই মামলায় ৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে গতকাল সোমবার এই রায় প্রদান করা হয়। রায়ে অপর দুই আসামিকে খালাস দেয়া হয়। এছাড়াও প্রতারক শফিকুলের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ছাড়াও এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।