বৃহস্পতিবার ৪ঠা মার্চ, ২০২১ ইং ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

সরকারকে ধন্যবাদ জানাল তোবা শ্রমিক সংগ্রাম কমিটি

আপডেটঃ ৬:১০ অপরাহ্ণ | আগস্ট ০৯, ২০১৪

তোবা গার্মেন্টস পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। অবশেষে সরকারের উদ্যোগকে স্বাগত জানাল তোবা গ্রুপ শ্রমিক সংগ্রাম কমিটি। সংগ্রাম কমিটির দাবি, তাঁদের আন্দোলন সফল হয়েছে। এ কারণে শ্রমিকরা তিন মাসের বেতন পেতে যাচ্ছেন। এখন আর বড় কোন কর্মসূচীর কথা ভাবছে না আন্দোলনরত শ্রমিক সংগঠনগুলো। তবে অনশনরত তোবা শ্রমিকদের ওপর পুলিশী হামলার প্রতিবাদে আজ শনিবার সারাদেশে শ্রমিক ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য ফোরামের সভাপতি মোশরেফা মিশু জনকণ্ঠকে বলেন, তোবা শ্রমিকরা যে বেতন পাচ্ছেন এটা আমাদের আন্দোলনের ফসল। ইতোমধ্যে দু’মাসের বেতন পরিশোধ করা হয়েছে। এছাড়া ১০ আগস্ট রবিবারের মধ্যে জুলাই মাসের বেতন দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। শ্রমিকদের আন্দোলনের মুখে বিজিএমইএকে দিয়ে বেতন দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এটা সরকার ভাল করেছে। তিনি বলেন, আমাদের সব দাবি এখনও পূরণ হয়নি। বেতনের সঙ্গে ওভার টাইম ও ঈদ বোনাস দেয়া হচ্ছে না। এটা দেয়া হলে আপাতত তোবা নিয়ে আমাদের আর কোন দাবি থাকে না। সরকার ওভারটাইম ও ঈদ বোনাস দেয়ার উদ্যোগ নেবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন। মোশরেফা মিশু অভিযোগ করে বলেন, বৃহস্পতিবার পুলিশের বেশি বাড়াবাড়ি ছিল। তারা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও লাঠিপেটা করে শ্রমিকদের নামিয়ে দিয়েছে। এ কারণে অনেক শ্রমিক আহত হয়েছেন। এদিকে, নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, তোবা শ্রমিকদের আটক রেখে মারপিট করা হলে এবং তাদের বিজিএমইএ ভবনে মজুরি নিতে বাধা দেয়ায় তাদের মুক্ত করতে সরকারী বাহিনী হস্তক্ষেপ করেছে। শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টায় রাজধানীর পান্থপথে বসুন্ধরা সিটিতে ‘গার্মেন্টস খাতে ট্রেড ইউনিয়ন নয়, সরকারই পারে শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষা করতে’ শীর্ষক (ছায়া সংসদ) বিতর্ক প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এতে সরকারী দল হিসেবে অংশ নেয় বিজিএমইএ, ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন এ্যান্ড টেকনোলটি ও বিরোধী দল হিসেবে অংশ নেয় সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটি।
ওই অনুষ্ঠানে শাজাহান খান বলেন, তোবার আন্দোলনে শ্রমিকদের মধ্যে বিভক্তি ছিল। তারা দুই দলে বিভক্ত ছিল। যার ফলে আন্দোলনরত শ্রমিকদের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটে। আর তাদের এই পরিস্থিতি সামাল দিতেই সরকারী বাহিনী কাজ করে।
মন্ত্রী বলেন, যারা অনশন করেছে আমি তাদের আন্দোলনকে সালাম জানাই। তাদের পেটের জ্বালায় মজুরির দাবিতে আন্দোলন করবে এটা স্বাভাবিক। এ কারণে সরকার বাধা সৃষ্টি করেনি। একটানা ১২ দিন আন্দোলন হয়েছে। সরকার এতে বাধা দেয়নি।
মন্ত্রী বলেন, ট্রেড ইউনিয়নের আন্দোলন রাজনৈতিক বেড়াজালে আটকানো যাবে না। এ আন্দোলন হটকারী আন্দোলন হতে পারে না। এ আন্দোলন সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত করতে পারলে শ্রমিকদের স্বার্থ রক্ষা হবে। নৌপরিবহনমন্ত্রী বলেন, দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে গার্মেন্টস মালিক ও শ্রমিকদের অবদান অনেক। এর পেছনে সরকারও তার দায়িত্ব পালন করেছে।
তিনি বলেন, সন্তান না কাঁদলে যেমন মাও যেমন সন্তানকে দুধ দেয় না, এমনিভাবে ট্রেড ইউনিয়ন না কাঁদলে শ্রমিকদের পক্ষেও সরকার কাজ করবে না। শ্রমিকদের সকল অধিকার দেয়ার দায়িত্ব সরকারের। তবে মালিকদের প্রতিষ্ঠান দখল করার জন্য ট্রেড ইউনিয়ন নয় বলে মন্তব্য করেন শ্রমিক নেতা ও মন্ত্রী শাজাহান খান।
মন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের সুষ্ঠু ট্রেড ইউনিয়নের চর্চা করতে হবে। সুষ্ঠু ট্রেড ইউনিয়নের চর্চা করা হলে শ্রমিকদের আন্দোলন হটকারী আন্দোলন হবে না।
তিনি বলেন, গত ঈদ-উল-ফিতরের আগে আমরা তিন মন্ত্রী বসে একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম যে, ঈদের আগে সকল গার্মেন্টস মালিকপক্ষকে শ্রমিকদের বেতন-বোনাস দিতে হবে। তাদের পরিচালিত (বিজিএমইএ) তিন হাজার ৬০০ গার্মেন্টসের মধ্যে কোথাও কোন সমস্যা হয়নি। তোবার মালিক কারাগারে থাকায় গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষ বলেছিল, মালিক না এলে বেতন দেয়া যাবে না। এই নিয়ে বিরোধের সৃষ্টি হয়। যার ফলে আন্দোলন শুরু হয়।
নৌপরিবহনমন্ত্রী বলেন, ধর্মঘট করতে গিয়ে যদি আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটে তখন সরকার আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় হস্তক্ষেপ করে থাকে। বকেয়া বেতন- ভাতার দাবিতে তোবায় শ্রমিকদের আন্দোলন নিয়ে সরাসরি পক্ষপাত ও রাজনৈতিক আন্দোলন না বললেও মন্ত্রী বলেন, ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলন যদি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে পরিচালিত হয় বা রাজনৈতিক বেড়াজালে আটকে যায়, তখন এই আন্দোলন চরিত্র হননের আন্দোলন এবং তার উদ্দেশ্য সফল হয় না। ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির আয়োজনে অনুষ্ঠিত ছায়া সংসদে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।