শনিবার ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

কক্সবাজারে এসিএফ আটকের ঘটনায় বাদীকে হুমকি

আপডেটঃ ৭:২১ অপরাহ্ণ | আগস্ট ১০, ২০১৪

জসিম উদ্দিন সিদ্দিকী কক্সবাজার
কক্সবাজারে এসিএফ আটকের ঘটনায় মামলার আসামী কর্তৃক বাদীকে নানা হুমকি দিয়ে আসছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল ৭ আগষ্ট দুপুরে কক্সবাজার আদালত চত্বরে মামলার বাদী মহেশখালী উপজেলার কালামারছড়ার বাসিন্দা বজল আহমদের ছেলে আবদুর ছাত্তার আইনজীবি ও সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ করেন। অভিযোগে জানা গেছে, শহরের বাহারছড়া এলাকাস্থ বাবুল কোম্পনীর বাসায় এসিএফ হাসান স্বপরিবার নিয়ে ভাড়া থাকেন। তাদের বাসায় গত চার মাস ধরে এক হাজার টাকা মাসিক বেতনে আবদুর সত্তারের মেয়ে নাসরিন কাজ করত। এদিকে হাসান ও তার স্ত্রী জাকিয়া আক্তার মিলে নাসরিনকে প্রতিনিয়তে মারধর করে। প্রমাণ হিসেবে রয়েছে নাসরিনের চোখে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন।
পিতার অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১০ জুলাই বিকালে কক্সবাজার গোয়েন্দা পুলিশের এসআই ইমন কান্তি চৌধুরী হাসানের ভাড়া বাসায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে।
আটকের পর হাসান কাজের মেয়ে নাসরিনকে মারধরের কথা সিনিয়র সাংবাদিকসহ অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের সামনে স্বীকার করেন। এব্যাপারে নাসরিনের বাবা আব্দুর ছাত্তার বাদী হয়ে স্ত্রী জাকিয়া আক্তারসহ হাসানের বিরুদ্ধে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একখানা মামলা দায়ের করেন। উক্ত অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ হাসানকে আদালতে প্রেরণ করে। বিজ্ঞ আদালত এমএ হাসানকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
গত ২৭ জুলাই বিজ্ঞ জেলা দায়েরা জজ আদালত কক্সবাজার থেকে হাসান জামিন পেয়ে জেল হাজত থেকে মুক্তি পান।
নাসরিনের বাবা আব্দুর ছাত্তার অভিযোগ করে বলেন, হাসান মামলা থেকে জামিন পাওয়ার পর থেকে তাকে প্রাণনাশ,বসতবাড়ি উচ্ছেদ, মিথ্যা মামলায় হয়রানীসহ নানাভাবে হুমকি-ধুমকি দিয়ে আসছে। তিনি এ বিষয়ে মামলার অগ্রগতিসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন এমএ হাসান।