সোমবার ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ ইং ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

গর্ভাবস্থায় প্রয়োজনীয় ব্যায়াম

আপডেটঃ ১২:৪৫ অপরাহ্ণ | আগস্ট ১৮, ২০১৬

গর্ভাবস্থায় সারাদিন শুয়ে বসে থাকা মোটেও নিরাপদ নয়। এতে গর্ভের শিশুর ক্ষতি হতে পারে। গর্ভাবস্থায় প্রত্যেক মায়েরই হাঁটাচলা কিংবা কাজকর্মের মাঝে থাকা উচিৎ। আর যদি সেরকম কোনো শারীরিক সমস্যা না থাকে তাহলে গর্ভাবস্থায় কিছু কিছু ব্যায়াম মা ও অনাগত শিশু দুজনের জন্যই ভালো।

১। সাঁতার হচ্ছে সবচাইতে ভালো ব্যায়াম। এটা দেহের বিভিন্ন অস্থিসন্ধি, লিগামেন্ট ইত্যাদির ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে।

২। হাঁটাহাঁটি করা ভালো। দিনের যেকোনো সময় চাইলে হাঁটতে পারেন। তবে খুব দ্রুত হাঁটা থেকে বিরত থাকুন। খারাপ লাগলে একটু জিরিয়ে নিন আবার হাঁটুন।

৩। যোগব্যায়াম করুনঃ গর্ভাবস্থায় যেসব আসন উপকারী বা করা যাবে শুধু সেই আসনগুলোই করুন। ভালো হয় যদি কোনো গ্রুপের সাথে মিলে করতে পারেন। এতে আপনার বেশি ভালো লাগবে।

৪। ব্যায়ামের সময় ঢিলেঢালা এবং আরামদায়ক পোশাক পরুন।

৫। গর্ভাবস্থায় যেসব আসন করা যাবেঃ বজ্রাসন, ভদ্রাসন, পদ্মাসন, বীরভদ্রাসন, পর্বতাসন, কেটপোজ, তারাসন, ত্রিকোনাসন, সব সাইডবেন্ডিং, শবাসন ইত্যাদি। আরো ভালো হয় যদি আপনি আপনার প্রশিক্ষকের পরামর্শ নিয়ে করেন।

৬। গর্ভাবস্থায় যদি আপনি নিয়মিত ব্যায়াম করেন আপনি গর্ভকালীন অনেক সমস্যা থেকে দূরে থাকবেন। কারণ, ব্যায়াম মা ও শিশুর মধ্যে রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়, কোমর, পা ইত্যাদি ব্যাথা কমাতে সাহায্য করে, সন্ধি, লিগামেন্ট, পেশীকে শিথিল করে, ফিটনেস ঠিক রাখে, অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি থেকে বাঁচায়, পরিপূর্ণ ও গভীর ঘুমে সাহায্য করে, কোষ্ঠকাঠিন্য, অস্থিরতা, দুঃশ্চিন্তা ইত্যাদি দূর করে, পায়ের রক্তনালি ফুলে ওঠা দূর করে এবং স্বাভাবিক প্রসবে সাহায্য করে।

তবে যাই করুন না কেন অবশ্যই আপনার ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে সকল টেস্ট ও চেকআপ করুন। যদি গর্ভকালীন কোনো সমস্যা না থাকে তবে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে একজন ভালো প্রশিক্ষকের কাছে নিয়মিত ব্যায়াম করুন।