বৃহস্পতিবার ২৮শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং ১৪ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

গাজীপুর মহানগর ও ঝুঁকিপূর্ণ হয়েই গড়ে উঠেছে। ভবন মালিকদের নোটিশ প্রদান

আপডেটঃ ৫:১১ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ২৯, ২০১৬

 

এস,এম মনির হোসেন জীবন : চ্যানেল সেভেন বিডি :গাজীপুর মহানগরী টঙ্গী অঞ্জল এলাকার ১১৭টি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষনা করে ভবনের মালিকদেরকে নোটিশ জারি করেছে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ। প্রাচীন এসব ভবন নির্মানের পর সক্ষমতার মেয়াদ অতিক্রম করেছে বলে জানিয়েছেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন টঙ্গী অঞ্জলের সহকারী প্রকৌশলী মোজাহিদুল ইসলাম। এদিকে, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আব্দুল মতিন স্বাক্ষরিত নোটিশ গুলো ইতি মধ্যে জারি করা হয়েছে।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন টঙ্গী অঞ্জলের সহকারী প্রকৌশলী মোজাহিদুল ইসলাম বলেন, এসব ঝুঁকিপূর্ণ ভবন নির্মান করা হয়েছে বহু বছর আগে। ভবন গুলোর নির্মাণ সামগ্রী সক্ষমতা মেয়াদ অনেক আগেই অতিক্রম করেছে। অবকাঠামো গুলো হয়ে গেছে নড়বড়ে।
তিনি আরো বলেন, অনেক ভবন মালিক রাজউক থেকে প্ল্যান অনুমোদন করিয়ে অনুমোদনের অতিরিক্ত বহুতল ভবন নির্মাণ করেছেন। তবে, নোটিশ প্রাপ্ত ভবন মালিকরা তাদের ভবন ঝুঁকিপূর্ণ নয় মর্মে সনদপত্র গ্রহনের জন্য অভিঞ্জ প্রকৌশলী দিয়ে তা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে সিটি কর্পোরেশনে সেই রিপোর্ট জমা দিতে পারবেন বলেও জানান গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন টঙ্গী অঞ্জলের সহকারী প্রকৌশলী মোজাহিদুল ইসলাম।
সনদ জমা দেওয়ার নির্ধারিত সময় অতিক্রম করার পর এসব ঝুঁকিপূর্ণ ভবন ভেঙ্গে ফেলার জন্য নোটিশ জারি করা হবে জানান গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন টঙ্গী অঞ্জলের সহকারী প্রকৌশলী মোজাহিদুল ইসলাম।
সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আব্দুল মতিন জানান, নোটিশ জারির এম মাসের মধ্যে ভবনের আর্কিটেকচারাল ডিজাইন,পাস করা প্ল্যান ও সনদপত্র সংগ্রহ করে নোটিশের জবাব দিতে ভবন মালিকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
অপর দিকে, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সিনিয়র নগর পরিকল্পনাবিদ মইনুল ইসলাম জানান, সিটি কর্পোরেশনের ভবনের প্ল্যান পাস করার অনুমোদন নেই। প্ল্যান পাস করবে রাজউক। অনেক ভবন মালিক অবৈধবাবে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে প্ল্যান অনুমোদন করিয়ে ভবন নির্মাণ করছেন। ফলে এসব ভবন হচেছ ঝুঁকিপূর্ণ। গাজীপুর মহানগর ও ঝুঁকিপূর্ণ হয়েই গড়ে উঠেছে। নতুন এ মহানগরকে ঝুঁকিপূর্ণমুক্ত করে গড়ার লক্ষ্যেই এসব নোটিশ দেওয়া হচেছ।
এদিকে, নোটিশ পেয়ে ভবন মালিকরা অনেকটাই বেকায়দার মধ্যে পড়েছেন। টঙ্গী স্টেশন রোড,আউচপাড়া,দত্তপাড়া,টঙ্গী বাজার এলাকার একাধিক ভবন মালিকের সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলেও তারা সাংবাদিকদের সাথে এবিষয়ে কোন কথা বলতে রাজী হননি।
এবিষয়ে জানতে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমানের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।