রবিবার ২৪শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং ১০ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

মহেশপুরে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার হওয়া জাফরের নিরাপত্তাহীন জীবনযাপন!

আপডেটঃ ১:০৭ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ০১, ২০১৬

মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জল ঝিনাইদহ মহেশপুর: ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ১১ নং মান্দারবাড়ীয়া ইউপির কাশিপুর মাঠ থেকে গত ১১ ই অক্টোবর ভোরবেলা এলাকাবাসী জাফর নামের এক যুবককে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ইউপির চৌকিদার আ: হালিমের মাধ্যমে মহেশপুর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ সময় তার মাথায়, পিঠে ও কোমরে কোপের ক্ষত ছিল।

এ ঘটনায় গত ১৪ ই অক্টোবর দৈনিক সত্যপাঠ পত্রিকা সহ কয়েকটি পত্র পত্রিকায় সংবাদটি প্রকাশ হয়। জাফর (৩০) পার্শ্ববর্তী চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবনগর উপজেলার বারান্দী গ্রামের শওকত আলীর পুত্র। জাফরের পিতা শওকত আলী জানান ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার কাজীরবেড় ইউপির নতুনকোলা গ্রামের রাহাজউদ্দিন এর কন্যা আনোয়ারার সাথে গত ১২ বছর পুর্বে ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক বিবাহ হয়। সংসার জীবনে ৯ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। গত ২ বছর আগে আনোয়ারা গ্রামের রহিদুল ইসলাম নামের এক ব্যাক্তির সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে বাড়ি থেকে চলে যায়। এ ঘটনায় জাফর বাদী হয়ে স্ত্রী, শশুর ও রহিদুল কে আসামী করে ৩৬৪/৩২৬/৩০৭/৩৪ ধারায় মামলা দায়ের করলে ঐদিন সন্ধ্যায় সন্ত্রাসীরা জাফর কে অপহরন করে চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা গোয়ালবাড়ীর মাথাভাঙ্গা নদীর ধারে হাত পায়ের রগ কেটে ফেলে রেখে যায়। এলাকার লোকজনের সহযোগীতায় জেলার মুন্সীগঞ্জ ফাড়ি পুলিশ তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালে ভর্তি করে। সংবাদটি চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রকাশিত দৈনিক মাথাভাঙ্গা পত্রিকাসহ জাতীয় পত্র পত্রিকায় প্রকাশ হয়। মামলা চলমান থাকাকালীন সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে গন্যমান্য ব্যাক্তিদের সমঝোতায় স্ত্রীকে মেনে নেয়। কিছুদিন যেতে না যেতেই দুজনের মধ্যে আবারো মনমালিন্য সৃষ্টি হয়ে স্ত্রী তার পিতার বাড়িতে চলে গিয়ে স্বামী জাফরের নামে যৌতুক মামলাসহ কয়েকটি মামলা দায়ের করে। গত ৯ ই অক্টোবর জাফর আদালতে হাজিরা দিয়ে ফেরার পথে কালীগঞ্জ থেকে আবারো সন্ত্রাসীরা তাকে অপহরন করে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মহেশপুর উপজেলার মান্দারবাড়ীয়া ইউপির কাশিপুর মাঠে ফেলে রেখে যায় । সে জানায় তার স্ত্রী আনোয়ারা সন্ত্রাসী দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে এহেনো ঘটনা ঘটিয়েছে। একের পর এক সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হয়ে জাফর এখন নিরাপত্তাহীন জীবন যাপন করছে। এ ব্যাপারে বিভিন্ন আইন সহায়তার সাহায্য কামনা করা হচ্ছে।