মঙ্গলবার ১৯শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং ৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

আদালতের ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে টঙ্গীতে দখল প্রক্রিয়া চালাচ্ছে ভূমি দস্যুরা!

আপডেটঃ ৫:০২ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ০৩, ২০১৬

এস,এম মনির হোসেন জীবন,চ্যানেল সেভেন বিডি: গাজীপুর আদালতের ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে আবদুল মালেক ও তার সহযোগি ভূমি দস্যুরা বেআইনি ভাবে টঙ্গীর আউচপাড়া এলাকায় জনৈক মাইনুল হক চৌধুরী নামে এক ব্যক্তির জমি জোর করে জবর দধলের জন্য চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। টঙ্গী মডেল থানা পুলিশকে এ বিষয়টি অবগত করা হলেও তারা ভূমিদস্যু আবদুল মালেক ও তার সহযোগিদের বিরুদ্বেঅজ্ঞাত কারনে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে ও অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, টঙ্গীর আউচপাড়া মৌজায় আর এস ১৩৭ খতিয়ানভুক্ত সাবেক ৪২৮ হালে ৪১৯ নং দাগে মাইনুল হক চৌধুরী ১৯৮৮ সালে সাড়ে সাত শতাংশ জমি ক্রয় করে ভোগ দখল করে আসছে। মাইনুল হক চৌধুরীর মৃত্যুর পর হঠাৎ করে আবদুল মালেক উক্ত জমির একাংশ তার নিজের বলে জোর করে দখল শুরু করে। মাইনুল হক চৌধুরীর ওয়ারিশ গন বাধা দিলে আবদুল মালেক ও তার সহযোগি ভূমি দস্যুরা তাদের অকথ্য ভাযায় গালিগালাজ ও মারমুখি আচারন করে। নিরুপায় হয়ে মাইনুল হক চৌধুরীর ওয়ারিশগনের পক্ষে তার ছেলে গাজীপুর আদালতে আবেদন করলে আদালত উক্ত জমিতে ১৪৪ ধার জারি করে। আদালতের নির্দেশ পেয়ে টঙ্গী থানার এএসআই সিদ্দিকুর রহমান বাদী বিবাদীকে নোটিশ প্রদান করে। নোটিশ পেয়েও বিবাদী আবদুল মালেক তার নির্মান কাজ অব্যাহত রাখে। বিষয়টি টঙ্গী থানার এ এস আই সিদ্দিকুর রহমানকে জানালে তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ব্যর্থ হন। নিরুপায় হয়ে বাদী পক্ষ আবারো গাজীপুর আদালতকে জানালে আদালত আবারো ১৪৪ধারা কার্ষকরের জন্য টঙ্গী থানাকে নিদেশ দেয় এবং আদেশ তামিল করে তার প্রতিবেদন আদালতকে জানাতে নির্দেশ দেয়। মামলার দায়িত্ব পেয়ে এবার টঙ্গী থানার এস আই অজয় বাদী ও বিবাদীকে নোটিশ প্রদান করেই তার দায়িত্ব পালন শেষ করে। বিবাদী পক্ষ এবারো নোটিশ পেয়ে তার নির্মান কাজ অব্যাহত রাখে। ঘটনার পর থেকে বাদী ও বিবাদীদের মধ্যে প্রতিদিনই কথা কাটাকাটি, হাতাহাতি হছ্চে।

এ সব জেনেও থানা পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে না। বাদী পক্ষ ব্যাপারটি ডি আই জি ঢাকা রেঞ্জ কে অবহতি করলে ডি,আই, জি ঢাকা অফিস গত ২৫-১০-২০১৬ইং গাজীপুর এসপি বরাবর ৭১৮৮/এস-২ স্বারকে একটি চিঠি প্রেরন করে। এরপরও থানা পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে না ভূমি দস্যু আবদুল মালেক বাহিনীর বিরুদ্বে।