মঙ্গলবার ২৬শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

শাহজালাল বিমানবন্দরে নিরাপত্তার কোন ঘাটতি নেই —————–বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী

আপডেটঃ ৩:০৯ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ০৮, ২০১৬

এস,এম মনির হোসেন জীবন : চ্যানেল সেভেন বিডি: বিশ্বের যে কোন বিমানবন্দরের চেয়ে ঢাকা হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্ত্ াব্যবস্থা স্বাভাবিক আছে। এখানে নিরাপত্তার কোন ঘাটতি নেই বলে মন্তব্য করেছেন বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন ( এমপি)।
মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন আরো বলেন, জীবন দিয়ে হলেও তারা এটিকে ঠেকিয়েছেন। নিহতের পরিবারকে সরকারের পক্ষ থেকে ১ লাখ টাকা প্রদান, বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রীর পক্ষ থেকে আরো ১ লাখ টাকা তাকে দেয়া হবে বলে ঘোষনা করা হয়। এছাড়া যারা আহত হয়েছেন তাদের দায়িত্ব নিবেন সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ।
হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের শিহাব নামে এক যুবকের ছুরিকাঘাতে আনসার সদস্য সোহাগ আলী (৩২) নিহত হওয়া ও বিমানবন্দরে ছুরি নিয়ে প্রবেশের চেষ্টার ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় সাংবাদিকদের সাথে এক প্রেসব্রিফিংয়ে তিনি এ মন্তব্য করেন।
বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, উদ্ভুত পরিস্থিতির কারণে আমাদের সকল নিরাপত্তা ব্যবস্থা আমরা রিভিয়ু করেছি। এতে কোন ধরনের ত্র“টি আছে বলে আমাদের মনে হয়নি। তবে, যে হামলার ঘটনা ঘটেছে সেটা আমাদের দেশে বিমানবন্দরের জন্য উদ্বেগজনক।
গত রোববার ঘটে যাওয়া ঘটনা প্রসঙ্গ তুলে ধরে রাশেদ খান মেনন প্রেসব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের বলেন, হামলা ও আক্রমনকারী যুবক শিহাব হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদেরকে ধোঁকা দেওয়ার জন্য একটি পরিচছন্নকারী সংস্থার হলুদ রংয়ের পোষাক গায়ে পরিছিল। প্রথমে বিমানবন্দরের বাহিরে ডিপারচার টার্মিনালের দু’তলায় ওঠার জন্য সে সিঁড়ির দিকে যায়। এসময় দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা তার পরিচয় পত্র দেখতে চাইলে পরিচছন্নকারী শিহাব তা দেখাতে পারেনি। পরবর্তীতে এনিয়ে আনসার কর্মীদের সাথে শিহাবের হট্রগোল,বাকবিতন্ড ও তর্কবিতর্ক বাঁধে। এঘটনার পর শিহাব কৌশলে দৌঁড়ে দু’তালায় উঠে আসে। এরপর অন্য আনসার সদস্যরা শিহাবকে ধরতে গেলে সে তার সাথে থাকা ছুরি বের করে ৪ নম্বর গেইট দিয়ে ডিপারচার টার্মিনালের ভেতরে ঢুকার চেষ্টা করেন। পরবর্তীতে বাধাপ্রাপ্ত হয়ে শিহাব হাতের ছুরি দিয়ে দায়িত্বরত আনসার সদস্যদেরকে উপর্যুপরি হামলা চালায়। এসময় আনসার ও এপিবিএন সদস্যরা এগিয়ে আসলে হামলাকারী শিহাব দৌঁড়ে ৩ নম্বর গেইট দিয়ে ভেতরে দৌঁড়ে প্রবেশ করে।
বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন সাংবাদিকদেরকে আরো বলেন, উক্ত ঘটনার পর সবাই মিলে বিমানবন্দরের ট্রলি দিয়ে হামলাকারী শিহাবকে ঘিরে ফেলে এবং পরবর্তীতে তার শরীরে আঘাত করে তাকে মাটিতে শুইয়ে দেয়। ওই সময়টা বিমানবন্দরের ভেতরে যাত্রী সাধারণের প্রচুর চাপ ছিল। সে কারনে হামলাকারী শিহাবকে ধরতে তা পা লক্ষ্য করে আইনশৃংখলা বাহিনী তাকে গুলি ছুড়ে। কিন্তু গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। তবে, এতে উপস্থিত যাত্রীদের মধ্যে এক ধরনের আতংক তৈরী হয়।
হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তা বিষয়ে রাশেদ খান মেনন সাংবাদিকদেরকে বলেন, নিরাপত্তার বিষয়ে বিশ্বের যে কোন দেশের চেয়ে আমরা বেশি সচেতন ও দক্ষ। আমরা বিষয়টি বেশ গুরুত্বের সাথে খতিয়ে দেখছি যে এর সাথে জঙ্গীর কোন সংশ্লিষ্টতা আছে কিনা। এখন পর্যন্ত পুলিশ ও আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা হামলাকারী শিহাবের কাছ থেকে তেমন কিছু তথ্য পায়নি। তাকে জিঞ্জাসাবাদ করা হয়েছে এবং সে বিভিন্ন সময় নানা ধরনের তথ্য দিচেছন।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, শিহাব নামে এক হামলাকারী যুবককে আটক করা হয়েছে। তার কাছ থেকে একটি পরিচছন্ন কোম্পানীর পোষাক ( কাপড়) পাওয়া গেছে। তার প্রমান ও মেলেনি। আশা করি খুব শিঘ্রই এটির প্রমান করতে পারব। সেই সাথে শিহাবের ও বিস্তারিত পরিচয় পাওয়া যাবে। এই জন্য আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা কাজ করছেন।
প্রেসব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, বাংলাদেশ নিরপপত্তার প্রশ্নের অনেকটা সচেতন আছে। আজকের বৈঠকের পর সকলের মতামত ও সুপারিশ গুলোকে একত্রিত করে সকলে নিয়ে এবিষয়ে আরো একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। এছাড়া সিভিল এভিয়েশনের পক্ষ থেকে ইতি পূর্বে আরো একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
বিমানবন্দরে হামলা ও রেড এলার্ট প্রসঙ্গ নিয়ে রাশেদ খান মেনন বলেন, বিমানবন্দরে হামলা হতে পারে এমন তথ্য আমাদের জানা নেই। এধরনের তথ্য আমাদের কাছে ছিলনা। হামলার ঘটনার পর থেকে হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিশেষ ধরনের ব্যস্থা সাথে সাথে নেওয়া হয়নি। রেড এলার্ট ও ওয়ারেন্স এলার্ট নেওয়া হবেনা। প্রয়োজন ও নেই।
সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আরো বলেন, ঘটে যাওয়া হামলার ঘটনার পর থেকে বিমানবন্দরে আজকের আলোচনার বৈঠকে বেশ কিছু সুপারিশ এসেছে। বিমানবন্দরের নিরাপত্তার স্বার্থে এখন থেকে ৬ মাস পরপর মহড়া অনুষ্টিত হবে। এছাড়া বিমানবন্দরে ডগস্কায়ার্ড,স্কাইটিং ফোর্স সদস্যদেরকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ফিজিক্যাল সিকিউরিটি ফোর্স হল আনসার, পুলিশ ও এপিবিএন।
ঢাকা হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এর আগে উদ্ভুত পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে বিমানবন্দরের সার্বিক নিরাপত্তায় নিয়োজিত সকল সংস্থার সাথে আজ মঙ্গলবার সকাল ৯টায় টার্মিনাল-১ এর তৃতীয় তলায় কনফারেন্স রুমে এক জরুরী বৈঠক করেন বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন ( এমপি)।
ঢাকা হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এর আগে উদ্ভুত পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে বিমানবন্দরের সার্বিক নিরাপত্তায় নিয়োজিত সকল সংস্থার সাথে আজ মঙ্গলবার সকাল ৯টায় টার্মিনাল-১ এর তৃতীয় তলায় কনফারেন্স রুমে এক জরুরী বৈঠক করেন বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন ( এমপি)। ওই আলোচনা বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বেসরকারী বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব ( ভারপ্রাপ্ত) স্বপন কুমার, সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এহসানুল গণি চৌধুরী, সিভিল এভিয়েশনের অপারেশন সদস্য (অপস) এয়ার কমডোর মোস্তাফিজুর রহমান, হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্র“প ক্যাপ্টেন মো: জাকির হাসান,বিমানবন্দর থানার ওসি নূরে আযম মিয়া প্রমুখ।
এছাড়া ওই আলোচনা বৈঠকে দেশের সকল গোয়েন্দা সংস্থা,আইনশৃংখলা বাহিনীর প্রতিনিধি,সিভিল এভিয়েশনের কর্মকর্তা, র‌্যাব, পুলিশ, আনসার, এপিবিএন, এস,বি, এনএসআই, ডিজিএফআই সহ সরকারের অন্যান্য উর্ধ্বতন বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, গত রোববার সন্ধ্যা ৬টা ৪০ মিনিটের দিকে হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে শিহাব (২১) নামে এক হামলাকারীর ছুরিকাঘাতে আনসার সদস্য সোহাগ আলী (৩১) নিহত হন। এঘটনায় আনসার সদস্য জিয়াউর রহমান ও এপিবিএন সদস্য আশিক ও ইশতিয়াক সহ ৩জন গুরুতর আহত হন।