বৃহস্পতিবার ২১শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং ৭ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

আরো ৬৪ উপজেলায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি

আপডেটঃ ৩:৪৩ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ০৮, ২০১৬

  প্রতিবেদক : চ্যানেল সেভেন বিডি: বেকার যুবক-যুবতীদের অস্থায়ী কর্মসংস্থানের জন্য দেশের দরিদ্রতম আরও ৬৪ উপজেলায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। এজন্য ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি সম্প্রসারণের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সচিবালয়ে সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম প্রেস ব্রিফিংয়ে এ অনুমোদনের কথা জানান।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘পঞ্চম, ষষ্ঠ ও সপ্তম পর্বে দেশের আরও ৬০ উপজেলায় এবং পার্বত্য ৩ জেলার ৪ উপজেলাসহ মোট ৬৪ উপজেলায় সম্প্রসারণ করা হবে।’

পঞ্চম, ষষ্ঠ ও সপ্তম পর্বে ২০টি করে উপজেলায় সম্প্রসারণের প্রস্তাব করা হয়েছিল জানিয়ে শফিউল আলম বলেন, ‘পরে আলোচনায় বলা হয় পার্বত্য অঞ্চলটি অবহেলিত থেকে যাচ্ছে একেবারেই, পার্বত্য অঞ্চলে কোন কর্মসূটি নেওয়া হয়নি। এজন্য খাগড়াছড়িতে ২টি, বান্দরবানে একটি ও রাঙ্গামাটিতে একটি উপজেলায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি সম্প্রসারণ করা হবে। পরিসংখ্যান ব্যুরোর জরিপ অনুযায়ী, বেশি দারিদ্র্যপীড়িত এলাকায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে।’

২০১৬-১৭ অর্থবছর থেকেই এ সম্প্রসারিত কর্মসূচি শুরু হবে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘তিন পর্বের জন্য মোট বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ৫৪৪ কোটি ৯০ লাখ টাকা। বর্তমানে হাতে ২১৫ কোটি টাকা আছে, আরও ৩৩০ কোটি টাকা নতুন করে সরকারকে বরাদ্দ দিতে হবে।’

এ তিন পর্বে সুবিধাভোগীর সংখ্যা জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘কতজন এ সুবিধা পাবেন তা নির্ধারণ করা হয়নি। বাছাই পর্বটি এখনও হয়নি।’

তিনি জানান, এ কর্মসূচির আওতায় বেকার যুবক-যুবতীরা ৩ মাস প্রশিক্ষণের পর দুই বছর মেয়াদে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি পেয়ে থাকে। প্রশিক্ষণকালীন প্রতিদিন ১০০ টাকা (মাসে তিন হাজার টাকা) ও চাকরির সময় প্রতিদিন ২০০ টাকা হারে (মাসিক ছয় হাজার টাকা) ভাতা দেওয়া হয়। সুবিধাভোগীদের বয়স হবে ১৮ থেকে ৩৫ বছর ও শিক্ষাগত যোগ্যতা এইচএসসি।

ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচির আওতায় গত আগস্ট পর্যন্ত এক লাখ ১১ হাজার ১১৬ জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে জানিয়ে শফিউল আলম বলেন, ‘এরমধ্যে এক লাখ ৮ হাজার ৭৮২ জন কাজ পেয়েছে।’

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে বলা হয়, উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ নতুন প্রজন্মের সকল যুব সমাজকে দুই বছরের জন্য ‘ন্যাশনাল সার্ভিস’ এ নিযুক্ত করার জন্য প্রকল্প গ্রহণ করা হবে। সে অনুযায়ী ২০১০ সালের ৬ মার্চ কুড়িগ্রাম জেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি উদ্বোধন করেন।

প্রথম ও দ্বিতীয় পর্বে ২৭টি উপজেলা, তৃতীয় ও চতুর্থ পর্বে ৩৭টি উপজেলায় ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।