| |

Ad

সর্বশেষঃ

হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে মহেশপুর পুড়াপাড়া পশু হাট ইজারা না পেয়ে চৌগাছার ঋষি পাড়ায় পশু হাট বসাচ্ছেন ডাবলু

আপডেটঃ ১২:৩০ পূর্বাহ্ণ | ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ  ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার পুড়াপাড়া পশু হাট ইজারা না পেয়ে আনোয়াররুল ইকবল ডাবলু অবৈধ ভাবে পার্শবর্তী চৌগাছার ঋষি পাড়ায় হাট বসাচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার বিবরণে প্রকাশ খুলনা বিভাগের সর্ব বৃহৎ পশু হাট ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার মান্দারবাড়ীয়া ইউনিয়নের পুড়াপাড়া পশু হাট। বাংলা ১৪২৪ সালে সিডিউলের মাধ্যমে হাটটি ডাক হয় । সর্বোচ্চ দরদাতা হিসাবে হাটটি ইজারা পান ঝিনাইদহের ওয়াহিদ সাদিক। তিনি প্রায় দেড় কোটি টাকায় হাট ইজারা নেন। কিন্তু বাংলা ১৪২৩ সালের হাট ইজারাদার জনাব আনোয়ারুল ইকবল ডাবলু ১৪২৪ সালের জন্য হাট ইজারা না পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। তিনি স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তিদের নিয়ে পুড়াপাড়া পশু হাটের দিন বুধ ও রবিবার পার্শবর্তী চৌগাছা পৌরসভার ভিতর ঋষি পাড়া নামক জায়গায় পশু হাট বসান। উল্লেখ্য যে, পুড়াপাড়া বাজারের পূর্ব নির্ধারিত হাট হচ্ছে বুধ ও রবিবার এবং চৌগাছা পশু হাটের পূর্ব নির্ধারিত দিন হচ্ছে শুক্র ও সোমবার। আনোয়ারুল ইকবল ডাবলু জোর পূর্বক ঋষি পাড়ায় হাট বসানোর প্রেক্ষিতে পুড়াপাড়া পশু হাট ইজারাদার ওয়াহিদ সাদিক বিভাগীয় কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট জায়গায় ঋষি পাড়ার পশু হাট উচ্ছেদের জন্য আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে বিভাগীয় কমিশনার সরেজমিন তদন্ত করে ঋষি পাড়ার পশু হাট অবৈধ বলে প্রতিবেদন দিলে স্থানীয় মন্ত্রনালয় যশোর জেলা প্রশাসকের সহোযোগীতায় র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি দিয়ে হাটটি উচ্ছেদ করেন। উচ্ছেদ এর বিরুদ্ধে আনোয়ারুল ইকবল ডাবলু সুপ্রীম কোর্টের হাইকোট বিভাগে মাননীয় বিচারপতি জনাব নাইমা হায়দারের একক বেে ১৩৮৫০/২০১৭ নং একটি মামলা করেন। মাননীয় বিচারপতি ঋষি পাড়ায় ৩০শে চৈত্র পর্যন্ত হাট বসানোর রায় প্রদান করেন। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্র ও পুড়াপাড়া হাটের ইজারাদার আপিল করলে আপিল বিভাগ মাননীয় বিচারপতি জনাব নাইমা হায়দার এবং মাননীয় বিচারপতি জনাব জাফর আহমেদ এর সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেে মামলাটি শুনানী করে নিষ্পত্তির জন্য পাঠান। মাননীয় বিচারপতি জনাব নাইমা হায়দার এবং মাননীয় বিচারপতি জনাব জাফর আহমেদ এর সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বে গত ০৫/০২/২০১৮ তারিখ আনোয়ারুল ইকবল ডাবলুর রিট ১৩৮৫০/২০১৭ নং শুনানী অন্তে অবৈধ বলে খারিজ করে পুড়াপাড়া পশু হাটের পক্ষে রায় প্রদান করেন। এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়, বিভাগীয় কমিশনার, খুলনা, জেলা প্রশাসক, যশোরসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশ দেন। কিন্তু সুপ্রীম কোর্টের হাইকোট বিভাগ রায় প্রদান করলেও আনোয়ারুল ইকবল রায়কে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে গত ৮ ও ১১ই ফেব্রুয়ারী/১৮চৌগাছার ঋষি পাড়ায় পশু হাট বসিয়েছে। ফলে আইনের শাসন নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন উঠেছে। বাদী আনোয়ারুল ইকবল ডাবলুর পক্ষে হাইকোট বিভাগের আইনজীবী ছিলেন মেহেদী হাসান। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন ডিওজি এ্যাডঃ ইউসুফ হোসেন হুমায়ন ও এ্যাডঃ মেহেদী হাসান। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য জরুরী ভিত্তিতে ঋষিপাড়ার পশু হাটটি বন্ধের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট এলাকাবাসী আহবান জানিয়েছেন। উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে গত২৬ এপ্রিল ও ২৫ মে ১৭ইং সালে বিভিন্ন প্রকার জাতীয় দৈনিকে সংবাদ প্রকাশিত হলে জেলা প্রশাসক এর নির্দেশে ও সহোযোগীতায় র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি দিয়ে হাটটি উচ্ছেদ করেন।