| |

Ad

বেজা ও বিজিএমইএ এর মধ্যে ৫০০ একর জমি বরাদ্ধ সমঝোতা স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে চট্রগ্রামের মিরসরাইয়ে ৫০০ একর জমি নিয়ে গঠিত গার্মেন্টস পার্কের উন্নয়নের কাজ শুরু হবে ———- প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সমন্বয়ক মো: আবুল কালাম আজাদ

আপডেটঃ ১১:০২ অপরাহ্ণ | মার্চ ২১, ২০১৮

এস. এম. মনির হোসেন জীবন : প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের (এমডিজি) বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক মো: আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে চট্রগ্রামের মিরসরাইয়ে পরিকল্পিত শিল্প অর্থনৈতিক অঞ্জল হিসেবে একটি গার্মেন্টস পার্ক স্থাপনের জন্য ৫০০ একর জমি বরাদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে অর্থনৈতিক অঞ্জল গার্মেন্টস পার্কের উন্নয়ন তথা নির্মান কাজ শুরু করা হবে। এতে করে দেশে পরিকল্পিত শিল্প স্থাপনের সুযোগ সৃষ্টি হবে।
আজ বুধবার দুপুর ২টায় রাজধানীর রেডিসন হোটেলের নিচতলা ব্লু হল রুমে বেজা ও বিজিএমইএ এর মধ্যে চট্রগ্রামের মিরসনাই অর্থনৈতিক অঞ্জলে একটি গার্মেন্টস পার্ক স্থাপনের জন্য ৫০০ একর জমি বরাদ্ধ ও সড়ট এর সাথে এক সমঝোতা স্বাক্ষর অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবুল কালাম আজাদ বলেন, বর্তমান সরকার ব্যবসা বান্ধব সরকার। দেশের উন্নয়নের জন্য পাবলিক ও প্রাইভেট পার্টনারশীপ ব্যবসা সফল করার লক্ষ্যে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচেছন।
তিনি বলেন, বাংলাদেশের গার্মেন্টস ব্যবসায়ীরা সবচেয়ে বড় ভাগ্যবান । আমরা গরিব দেশ থেকে আজ মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হয়েছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচেছ, এগিয়ে যাবে। এর কোন বিকল্প নেই।
তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নের দিক থেকে থেমে থাকেনি। সরকার পরীক্ষা করছে ২০০০ সালে দেশ কোথায় যাবে। গার্মেন্টস সেক্টরের লোকেরা দেশের উন্নয়নের ব্যাপক অবদান রাখছেন। আমরা ইতিমধ্যে অনেকদূর এগিয়ে গেছি এবং সফল হয়েছি। আগামী দিনে আমরা নিষ্ঠার সাথে কাজ করে আরো একধাপ এদিয়ে যেতে চাই।
মূখ্য সমন্বয়ক মো: আবুল কালাম আজাদ আরো বলেন, সরকারী কর্মচারীদের দায়বদ্ধতা সামনে বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত। বিজিএমইএ ও বেজা’র মধ্যে সম্পর্ক আরো সুদৃঢ হবে এবং ভবিষ্যতে এধরনের প্রকল্পের সফল বাস্তবায়নে বেজা ও বিজিএমইএ একসাথে নিষ্টার সাথে কাজ করবে।
বেজা’র নির্বাহী চেয়ারম্যান (সচিব) পবন চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বানিজ্য সচিব শুভাশিষ বসু, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান, এফবিসিসিআই এর সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমইএ সভাপতি মো: সিদ্দিকুর রহমান, সাবেক সভাপতি আব্দুস সালাম মোশের্দী, সাবেক সভাপতি মো: আতিকুল ইসলাম, বেজার নির্বাহী সদস্য মোহাম্মদ আইয়ুব প্রমুখ। অনুষ্টানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বেজা’র নির্বাহী সদস্য ড. এম এমদাদুল হক।
সভাপতির বক্তব্যে পবন চৌধুরী বলেন, বিজিএমইএ দ্রুত ও প্রকল্প বাস্তবায়নের কারণে ঢাকা শহরের উপর এ জন¯্রােতের চাপ কিছুটা হলে ও হ্রাস পাবে। সমুদ্রবন্দরের নিকটবর্তী হওয়ায় পরিবহন ব্যয় কম হবে এবং প্রতিযোগিতামূলক বিশ^ বাজারে বাংলাদেশের পোষাক রপ্তানী বৃদ্ধি পাবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানোফেকচারার এন্ড এক্রপোর্টার এসোসিয়েশন (বিজিএমইএ) চট্রগ্রামের মিরসরাই এলাকায় অর্থনৈতিক অঞ্জল ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করার পরিকল্পনা গ্রহন করেছে। যার মাধ্যমে প্রায় ৫ লাখ লোকের কর্মস্থান হবে। তারা মূলত গার্মেন্টস ও গার্মেন্টস একসেসোরিজ সেক্টরে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী সেই লক্ষ্যে বেজা’র মালিকানাধীন মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্জলে ৫০০ একর জমি বরাদ্ধ প্রদানে বেজা সম্মত হয়।
তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে ২০৩০ সালের মধ্যে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্জল প্রতিষ্ঠা,১ কোটি লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে প্রতিবছর অতিরিক্ত ৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সমমানের পণ্য উৎপাদন ও রপ্তানী আয় প্রত্যাশা নিয়ে অর্থনৈতিক অঞ্জল প্রতিষ্টার কার্যক্রম বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাস্তবায়ন করা হচেছ। ইতিমধ্যে বেজা ১৮টি প্রাইভেট অর্থনৈতিক অঞ্জল প্রতিষ্টায় প্রি-কোয়ালিফিকেশন লাইসেন্স প্রদান করেছে। তার মধ্যে ৬টি বেসরকারী অর্থনৈতিক অঞ্জলকে চুড়ান্ত লাইসেন্স প্রদান করেছে।
পবন চৌধুরী আরো বলেন, মোংলা অর্থনৈতিক অঞ্জল ও মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্জল (প্রথম পর্যায়ে) ডেভেলপার নিয়োগ সম্পন্ন করা হয়েছে। এছাড়া নাফ ও সাবরাং ট্র্যুরিজম পার্ক উন্নয়ন কাজ চলমান আছে। পাশাপাশি শ্রীহট্র অর্থনৈতিক অঞ্জলে বিনিয়োগকারীদের ২১২ একর জমি বরাদ্ব প্রদান করা হয়েছে। সেখানে ১.৩ বিলিযন ইউএস ডলার বিনিয়োগের মাধ্যমে প্রায় ৪৩ হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে।
অন্য দিকে, মিরসরাই ও ফেনী অর্থনৈতিক অঞ্জলে বিনিয়োগকারীদের নিকট থেকে ১৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগের প্রস্তাব বেজা পেয়েছে।
আজ বেজা ও বিজিএইএ –এর মধ্যে মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্জলে একটি গার্মেন্টস পার্ক স্থাপনে ৫০০ একর জমি বরাদ্ধে জন্য সড়ট সমঝোতা স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত হয়। বেজা’র পক্ষে সমঝোতা স্বাক্ষর করেন নির্বাহী সদস্য মো: হারুনুর রশিদ এবং বিজিএমইএ’র পক্ষে স্বাক্ষর করেন সংগঠনের সভাপতি মো: সিদ্দিকুর রহমান। এসময় বিজিএমইএ পক্ষ থেকে সংগঠনের সভাপতি মো: সিদ্দিকুর রহমান বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরীর হাতে ২৫ কোটি টাকার একটি চেক হস্তান্তর করেন।
বিজিএমইএ সভাপতি মো: সিদ্দিকুর রহমান বলেন, বিজিএমইএ মিরসরাই এ পরিকল্পিত একটি গার্মেন্টস পার্ক করার জন্য বেজা’র সাথে আলোচনা শুরু করে। তার ৩ মাসের মধ্যে ৫০০ একর জমি বরাদ্ধ চূূড়ান্ত করার লক্ষ্যে বেজার আন্তরিকতার কারণে আজ সমঝোতা স্বাক্ষর হয়েছে।
তিনি বলেন, বিজিএমইএ আগামী ১ বছরের মধ্যে একটি পরিকল্পিত গার্মেন্টস পার্ক স্থাপনের কাজ শুরু করবে। কাংখিত লক্ষ্য মাত্রা অনুযায়ী উৎপাদন,রপ্তানী ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টিতে সক্ষম হবে। যার কারণে দেশের ভাবমূতি বিশ^ বাজারে বৃদ্ধি পাবে।
এফবিসিসিআই’র সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, আজ বেজা ও বিজিএমইএ’র মধ্যে যে সমঝোতা স্বারক স্বাক্ষরিত হয়েছে তার মাধ্যমে বিজিএমইএ’র দীর্ঘ দিনের গার্মেন্টস পার্ক স্থাপনের চাওয়া বা স্বপ্ন পূরণ হবে।
বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি মো: আতিকুল ইসলাম বলেন, রানা প্লাজার ঘটনার পর বাংলাদেশ নেমে নেই। দেশ উন্নয়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এদিয়ে চলেছে। এটি গার্মেন্টস মালিকদের জন্য বড় একটি ম্যাসেজ।
অনুষ্টানে বিজিএমইএ’র পরিচালকগন, সিভিল সোসাইটি’র নেতৃবৃন্দ,ব্যবসায়ী,বিনিয়োগকারী,গার্মেন্টস মালিক, সরকারের বিভিন্ন বিভাগের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা সহ প্রায় দুই শতাধিক ব্যবসায়ী এসময় উপস্থিত ছিলেন।