| |

Ad

সর্বশেষঃ

রাজশাহীতে পৃথক সংঘর্ষ ও সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

আপডেটঃ ৪:১৩ পূর্বাহ্ণ | মে ২৩, ২০১৮

নাজিম হাসান,রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীতে পৃথক দুটি সংঘর্ষ ও সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। জেলার পুঠিয়া,দুর্গাপুর ও বাগমারা উপজেলায় সংঘর্ষ ও সড়ক দুর্ঘটনায় ঘটে। নিহতরা হলেন,পুঠিয়ার জামিরা গ্রামের সুকুর আলীর ছেলে পিয়ারুল ইসলাম (৫০) ও দুর্গাপুরের সুখানদীঘি গ্রামের মৃত দেলু মন্ডলের ছেলে ইসহাক আলী (৫৫) এবং বাগমারার গণিপুর গ্রামের মৃত ফয়েজ উদ্দিন মুন্সীর ছেলে মাষ্টার আতাউর রহমান (৪৮)। এবিয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার মোশাররফ হোসেন জানান, পিয়ারুলকে হাসপাতালে আনা হয় সোমবার সকালে। আর ইসহাককে আনা হয়েছিল রোববার দিবাগত রাতে। হাসপাতালে পৌঁছার আগেই তারা মারা যান। এবং মাষ্টার আতাউর রহমারকে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসা দেয়ার আগে তার মৃত্যু হয়। নিহত পিয়ারুলের জামাতা মনজুর হোসেন জানান, জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে সোমবার সকালে পিয়ারুলের সঙ্গে তার ভাই ও ভাতিজাদের সংঘর্ষ বাঁধে। এ সময় পিয়ারুলকে লাঠি দিয়ে পেটানো হয়। মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়ে তার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। অন্যদিকে নিহত ইসহাকের ভাতিজা রাজু আহমেদ জানান, রোববার বিকালে সুখানদীঘি গ্রামের আবদুল আউয়াল নামের এক ব্যক্তির গরু অন্য আরেক ব্যক্তির মরিচ খেত নষ্ট করে। বিষয়টি নিয়ে রাতে গ্রামের মোড়ে স্থানীয়রা সমালোচনা করছিলেন। আবদুল আউয়ালের সমর্থকরা এর প্রতিবাদ করলে তাদের সঙ্গে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এ সময় গ্রামের কয়েকজন ব্যক্তি পিয়ারুল ইসলামকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন। পরে হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়ছে বলেও জানান রাজু আহমেদ। পুঠিয়ার বেলপুকুর থানার (ওসি) শেখ মো. গোলাম মোস্তফা ও দুর্গাপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক মিজানুর রহমান জানান,এই দুই হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িতদের আটক করতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলগুলো পরিদর্শনও করেছে। অপরদিকে, বাগমারার মাষ্টার নিহত আতাউর রহমান ব্যক্তিগত কাজে গতকাল সকালে রাজশাহী শহরে গিয়েছিলেন। কাজ শেষে বিকেল ৪ টার দিকে শহর হতে সিএনজি যোগে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে নওহাটা-মোহনগঞ্জ সড়কের বড়গাছি বাজারের আগে নিম গাছ তলা মোড়ে সিএনজি গাড়ি চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কা দেয়। এতে করে গাছের আঘাতে ঘটনাস্থলে শিক্ষক গুরুত্বর আহত হয়। তার মাথায় ও বুকে প্রচন্ড আঘাত লাগে। স্থানীয়দের সহযোগীতায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসা দেয়ার আগে তার মৃত্যু হয়।#