| |

Ad

সর্বশেষঃ

জাহাঙ্গীরের প্রচারে জনতার ঢল

আপডেটঃ ১১:০৩ অপরাহ্ণ | জুন ২০, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক :‘বিএনপি শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টারের খুনির ভাইকে মনোনয়ন দিয়েছে। বিএনপি খুনির পরিবারকে প্রশ্রয় দিয়েছে। এতেই প্রমাণ হয় বিএনপি সংর্ঘষ এবং খুনের রাজনীতি করে। বিএনপি প্রার্থী ৫ বার জনপ্রতিনিধি হয়ে এলাকার কোন উন্নয়ন করতে পারেন নাই। নিজের পরিবারের ভাগ্যের পরিবর্তন করেছেন। এরশাদ নগরবাসীকে কথা দিচ্ছি আমি নির্বাচিত হলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহযোগীতা নিয়ে জমি-দোকান স্থায়ীভাবে এখানকার দরীদ্রদের নামে বরাদ্দের ব্যবস্থা করবো। আগামী নির্বাচনে আপনাদের সহযোগীতা চাই ভোট চাই।’ গতকাল ৪৯ নম্বর ওয়ার্ড এরশাদ নগর পথসভায় মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম এসব কথা বলেন।
মহানগরীর ৫০ নম্বর ওয়ার্ড গাজীপুরায় পথসভার মাধ্যমে প্রচারণা শুরু করেন। পরে ৪৯, ৪৮, ৪৬ নম্বর ওয়ার্ডের এরশাদ নগরে ৩টি, হোসেন মার্কেটের সামনে, বণমালা হাউজ বিল্ডিং, নোয়াগাঁও এলাকায় পথসভা এবং গণসংযোগ করেন। দুপুরে ৪৭, ৪৪, ৪৩, ৪৫, ৫৬, ও ৫৭ নম্বর ওয়ার্ড এর টি এন্ড টি বাজার, আমতলী মোড়, পাগাড়, সালাউদ্দিন গাজীর মার্কেটের সামনে, মধুমিতা রোড রেল লাইন ও মফিজ কমিশনার রোডে পথসভা ও প্রচারণা চালান।
জাহাঙ্গীর আরও বলেন, রাজধানী উত্তরার পরই টঙ্গী। তিনি নির্বাচিত হলে টঙ্গীর উন্নয়নে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিবেন। অতিতে বিএনপি প্রার্থী জনপ্রতিনিধি ছিলেন। অথচ টঙ্গীতে বড় রাস্তা নাই, ড্রেন নাই, রাস্তায় ফুটপাথ নাই। জনগণের কর্মচারি হয়ে তিনি এসব কাজ করতে চান। তিনি আগামী ২৬ জুন নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার আহ্বান জানান।

আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, তাঁতি লীগ, শ্রমিক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগসহ সকল অংগ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ প্রচারণায় অংশগ্রহন করেন। তাছাড়া মহাজোট শরিক জাতীয় পার্টি ও অন্যান্য দলের নেতৃবৃন্দও প্রচারণা চালান। পথসভায় মহানগর সভাপতি ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির এক নম্বর এজেন্ট মোঃ আজমত উল্লাহ খান, সাবেক এমপি কাজী মোজাম্মেল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ফজলুল হক, মোঃ মতিউর রহমান মতি, মোঃ রজব আলী, কাজী ইলিয়াস আহমেদ জাতীয় পার্টির থানা সভাপতি মোঃ বজলুর রহমান প্রমুখ নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। বক্তারা বলেন, আহসান উল্লাহ মাষ্টারের খুনির ভাই বিএনপি প্রার্থীকে টঙ্গী-গাজীপুরের মানুষ ভোটে প্রত্যাখ্যান করে জবাব দেবে। পৌর মেয়র, সংসদ সদস্য হয়ে এরশাদ নগরে গরীবের দোকান দখল করেছে , হিন্দুদের বিতারিত করে জমি দখল করেছে। খুনি পরিবারর সদস্য, দখলবাজকে ভোটের মাধ্যমে প্রতিহত করতে হবে। বক্তারা আগামী ২৬ তারিখ পর্যন্ত ঘরে ঘরে গিয়ে ভোট চাওয়ার অঙ্গিকার করেন। তারা আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জাহাঙ্গীরকে জয়যুক্ত করার আহ্বান জানান।
তাছাড়া বেলা ৩ টায় তিনি জয়দেবপুর বঙ্গতাজ অডিটরিয়ামে আয়োজিত নির্বাচন কমিশনের মতবিনিময় সভায় যোগ দেন। মতবিনিময়ে তিনি বলেন, সরকার এবং নির্বাচন কমিশনকে বেকায়দায় ফেলানোর জন্য তারা নিজেরাই ইস্যু তৈরী করে মিডয়ায় প্রচার করে। তিনি নির্বাচন কমিশন এবং সরকারের গোয়েন্দা সংস্থাকে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান। মেয়র প্রার্থী হিসাবে এবং আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সুষ্ঠু এবং শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে কমিশনকে শতভাগ সহযোগীতা করার প্রত্যাসা ব্যক্ত করেন।
অপরদিকে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় নেতা শাহাজাদা মহিউদ্দিন, বলরাম পোদ্দার প্রার্থীর সাথে প্রচারণায় অংশগ্রহন করেন। ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডে কেন্দ্রীয় নেতা অসীম কুমার উকিল, এস এম কামাল, গোলাম মোস্তফা কাজল, মহানগর নেতা মহিউদ্দিন মহি প্রচারণা চালান। কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ মন্তব্য করেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্তাভাজন তরুণ্যের প্রতিক জাহাঙ্গীরের পক্ষে, নৌকার পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। আগামী ২৬ জুন গাজীপুরে নৌকার ঐতিহাসিক বিজয় হবে।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে মোঃ ওসমান আলী, আব্দুস সাত্তার মোল্লা, মোস্তফা হুমায়ুন হীমু, কাজী আবু বক্কর সিদ্দিক, মোঃ সাইফুল ইসলাম, মোঃ কাজিম উদ্দিন, জাকির হোসেন খোকন, মোঃ নুরুল ইসলাম, মোঃ জলিল গাজী, মোস্তাফিজুর রহমান টিটু, আব্দুল আলীম, ইকবাল হোসেন পাঠান, রেজাউল করিম, কাজী মঞ্জুরসহ সকল অংগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।