| |

Ad

সর্বশেষঃ

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বাকী মাত্র ৪ দিন অবশেষে জামিনে মুক্তি পেলেন ধানের শীষের নির্বাচন পরিচালক বিএনপি নেতা ও স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শওকত হোসেন সরকার

আপডেটঃ ২:০২ অপরাহ্ণ | জুন ২২, ২০১৮

এস. এম. মনির হোসেন জীবন ॥ গাজীপুর থেকে ফিরে ॥ গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ধানের শীষ প্রতীকে মেয়র পদপ্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা হাসান উদ্দিন সরকারের কাশিমপুর ও কোনাবাড়ি অঞ্চল লের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক সাবেক কাশিমপুর ইউপি স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান শওকত হোসেন সরকার বৃহস্পতিবার অবশেষে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। গত ১৪ জুন তাকে বিমানবন্দর থেকে গ্রেফতার করেছিল ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা ডিবি পুলিশ। গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রভাবিত করতেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে মর্মে গত বুধবার বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীর গণমাধ্যমে বিবৃতি দেন। বিবৃতিতে বলা হয় সাবেক কাশিপুর ইউপি চেয়ারম্যান শওকত হোসেন সরকার গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। বিবৃতিতে শওকত হোসেন সরকারের মুক্তির দাবি জানিয়ে বলঅ হয়, জনগণের মধ্যে ভীতি ও আতঙ্ক ছড়ানোর উদ্দেশ্যেই জনপ্রিয় এই নেতাকে গ্রেফতার করা হয়।
গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীকের মিডিয়া সিলের প্রধান সমন্বয়কারী ডা. মাজহারুল আলম জানান, সাবেক কাশিমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গাজীপুর জেলা বিএনপির সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক শওকত হোসেন সরকার সস্ত্রীক ওমরা হজ¦ পালন শেষে সৌদী আরব থেকে গত ১৪ জুন দিবাগত রাত আড়াইটায় হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন। তিনি বিমান বন্দর থেকে বের হওয়ার পথে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ তাকে আটক করে মিন্টু রোডের ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যায়। সেখানে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে একদিন পর বাড্ডা থানার একটি রাজনৈতিক মামলায় আদালতের মাধ্যমে জেলে পাঠানো হয়। বৃহস্পতিবার তিনি জামিনে মুক্তিলাভ করেন। তার মুক্তির সংবাদে কাশিমপুর ও কোনাবাড়ি অ লের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে প্রাণ চা ল্য ফিরে এসেছে।
উল্লেখ্য, কাশিমপুর ইউনিয়ন বিলুপ্ত করে গাজীপুর সিটি করপোরেশনে অন্তর্ভূক্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত শওকত হোসেন সরকার ইউনিয়ন পরিষদটির পর পর দুই বার চেয়ারম্যান ছিলেন। এর আগে তার পিতা, দাদা তথা পরিবারের সদস্যরা ইউনিয়নটির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন।