| |

Ad

সাভার আশুলিয়া(ঢাকা-১৯) আসনের মনোনয়ন প্রতাশী মুরাদ জং এর বিশাল জনসংযোগ

আপডেটঃ ১১:৩৪ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১৩, ২০১৮

নুর হোসেন ( স্টাফ রির্পোটার )- : আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৯ আসনে মনোনয়ন প্রতাশী হতে চায় সাবেক সংসদ সদস্য তালুকদার তৌহিদ জং মুরাদ । বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলার কারণে নির্বাচনী এলাকায় তার জনপ্রিয়তা তুলনাহীন। ঢাকা-১৯ তথা সাভার আশুলিয়ায় আওয়ামীলীগ ও এর বিভিন্ন অংঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে, দলীয় সকল স্তরে তার জনপ্রিয়তা নজিরবিহীন। 

বিগত ২০০৮ সালের ৩০শে ডিসেম্বর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে সাভার আশুলিয়াবাসীর প্রতিনিধিত্ব করতে জাতীয় সংসদে যান। সেখানে রেখেছেন বলিষ্টতার ছাপ । ২০০৯থেকে ২০১৪সাল অবদী সাভার আশুলিয়ায় রেখেছেন উন্নয়নের ছাপ।উন্নয়নের বরপুত্র বলাহয় মুরাদ জংকে।

ইতিমধ্যে হাটে মাঠে ঘাটে এমনকি পাড়া মহল্লার চায়ের দোকান অবধী তাকে নিয়ে চলছে আলোচনা। আওয়ামীলীগের তৃণমূলের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে পোষাক শ্রমিক, ব্যবসায়ী ও সর্ব সাধারণের পছন্দের র্শীষে রয়েছেন মুরাদ জং। তার প্রচার প্রচারণা সবাইকে ছাড়িয়ে গেছে, সাভার আশুলিয়ার এমন কোন এলাকা নেই যেখানে মুরাদ জং সমার্থিত নেতা কর্মীদের ব্যানার পোষ্টার ফেস্টুন স্টিকার নেই।

মহাসড়ক গুলোর পাশে শোভা মুরাদ জংয়ের বড় বড় বিলবোর্ড, তোড়ন গুলো। সম্প্রতি মুরাদ জংয়ের সমার্থক আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় সরকারের নানামুখি উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড নিয়ে প্রকাশিত লিফলেট বিতরণ করে এলাকায় গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে সাভার উপজেলা আওয়ামীলীগের এক সিনিয়ার নেতা বলেন, মুরাদ জং সত্যিকারের ভদ্র একজন রাজনিতিক তার হাতে সাভার আশুলিয়ার বহু উন্নয়ন কাজ সাদিত হয়েছে তাকে আবারো মনোনয়ন দিলে আওয়ামীলীগের জন্য এ আসনটি ফিরে পাওয়া সহজ হবে।

তিনি আরো বলেন বিএনপি ঘাটি হিসেব পরিচিত এই সাভার আশুলিয়া। সেই বিএনপির দুর্গ কে ভেঙ্গে দিয়ে আজ আওয়ামীলীগের শক্ত ঘাটিতে পরিনত করতে সবচেয়ে বেশী কৃতৃত্বের অধিকারী মুরাদ জং। বিএনপি-র হেবী ওয়েট প্রার্থী ডাঃদেওয়ান সালাহ উদ্দিন বাবুর সাথে লড়াই করার ক্ষমতা একমাত্র মুরাদ জংয়ের-ই আছে।

মুরাদ জং ছাড়া এ আসনে লড়াই করার ক্ষমতা আর অন্যকারোর নেই। সাভার উপজেলা আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও মুরাদ জংয়ের ঘনিষ্ঠ সহচর সাইফুল ইসলাম হিকু বলেন, মুরাদ জং নেতাকর্মীদের সুখে দুঃখে পাশে ছিলেন তাকে ভালবেসে হাজার হাজার নেতাকর্মী অনেকটা নিরবে নিভৃতে রয়েছে মুরাদ জং মাঠে এলে তারা সরব হবে।

সাভার আশুলিয়ায় বসবাসরত বিভিন্ন বাসিন্দার সাথে কথা বলে জানা যানাজায় সাবেক এমপি মুরাদ জং যেভাবে সাভার আশুলিয়ার রাস্তাঘাট স্কুল কলেজ মাদ্রাসা মসজিদ মন্দিরের যে উন্নয়ন মূলক কাজ করেছেন তা সত্যিই ভুলবার নয়। অনেকেই বলেন যে কোন সমস্যায় মুরাদ জংয়ের কাছে গেলে তিনি তা দ্রুত সমাধান করে দিতেন।

সাভার উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ন আহবায়ক কবির হোসেন বলেন, মুরাদ জংয়ের মতো এত দ্বায়িত্ববোধ সম্পন্ন নেতা এই সময়ে মেলা দায়। বঙ্গবন্ধু আদর্শের সৈনিক নীতির প্রশ্নে কখনো আপোষ করেননি যার কারণে তিনি অনেকের চোক্ষুশূল। সৎ পথের পথিক এই নেতা নিজেকে সর্বদা আড়াল করতে ভালবাসেন। ইয়ারপুরর ইউনিয় আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ও ইয়ারপুর ইউপি ৬নং ওয়ার্ড মেম্বার আবু তাহের মৃধা বলেন,

ঢাকা-১৯ আসনের সাবেক সাংসদ তৌহিদ জং মুরাদ ২০০৯ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হন। তিনি যতসংখ্যক ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছিলেন অনেক বড় বড় নেতাও ততসংখ্যাক ভোট পাননি। তাই সাভার-আশুলিয়ার জনগণের কাছে তার গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে নতুন করে কোনো কিছু বলার নেই।

ধামসোনা ইউপি আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মোস্তাক হোসেন বলেন, আমরা সাভার-আশুলিয়ার জনগণ প্রত্যাশা করি আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ঢাকা-১৯ আসন থেকে মুরাদ জংকেই নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দিবেন। এতে করে এ অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের আশা-আকাঙ্খার বাস্তবায়ন ঘটবে।

এব্যাপারে আশুলিয়ার ভাদাইল এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও রাজনীতিবিদ শাহ্ আলম সরকার বলেন, ঢাকা-১৯ আসনের সাবেক সাংসদ তালুকদার মো. তৌহিদ জং মুরাদ সাভার-আশুলিয়ার সাধারণ জনতার পাশে সবসময় ছিলেন, আছেন ও থাকবেন। সাধারণ জনগণের কাছে তার জনপ্রিয়তা সকলের উর্ধ্বে। তাই তো আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে এলাকার সর্বত্র তাকে নিয়ে আলোচনা চলছে।

নিভৃতচারী এই নেতা এই প্রতিবেদককে জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে সাভার আশুলিয়াবাসীর সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন, আমি অবশ্যই সাধারণ জনগণ ও শ্রমিক ভাই বোনদের স্বপ্ন পূরণে কাজ করে যাব । আমি শাষক হতে চাই না অতীতেও আমি এই সাভার আশুলিয়াবাসীর সেবক ছিলাম আগামীতেও তাদের সেবা করতে চাই।

আমার কাজের মাঝে আমি যদি কোন ভূল করে থাকি সেজন্য আমি সকলের কাছে ক্ষমা চাই। আমার ভূল গুলো শুধরে নিয়ে জনগনের ভোটে নির্বাচিত হতে পারলে আমি এই সাভার আশুলিয়াকে উন্নয়নের রোল মডেল তৈরি করবো। তিনি আরো বলেন,একাদশ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের পক্ষে ঢাকা-১৯আসনটিতে নৌকা প্রতিককে বিজয়ী করে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিব ইনশাল্লাহ্।

গতকাল ১২ ই অক্টোবর পাথালিয়া ও আশুলিয়া ইউনিয়নের প্রায় অর্ধলক্ষাধিক নেতাকর্মীরা এক বিশাল জনসংযোগ করেন।বাইপাইল হইতে আশুলিয়া পর্যন্ত অর্ধলক্ষাধিক জনসাধারন ব্যান্ড পার্টি বাজিয়ে শত  শত পিকাপভ্যান ও মুরাদ জং এর নৌকা প্রতীকের মিছিল নিয়ে জনসংযোগ করে।এতে নেতৃত্ব দেন পাথালিয়া ইউনিয়ন ৬ নং ওয়ার্ডের মেম্বার ও আওমীলীগের ত্রান ও পুর্নবাসণ বিষয়ক সম্পাদক আবু তাহের মৃধা ও ইয়ারপুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো: বকুল হোসেন সরকারসহ অসংখ্য আওমীয়ামিলীগের অঙ্গসংগঠন ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীররা। তারা সমস্বরে বলেন তালুকদার তৌহিদ জং মুরাদকে ঢাকা-১৯ আসনের এমপি হিসেবে দেখতে চাই।