বৃহস্পতিবার ৪ঠা মার্চ, ২০২১ ইং ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

কক্সবাজারে ছিনতাইকারির গডফাদার আটক

আপডেটঃ ৬:২৮ অপরাহ্ণ | জুলাই ১৩, ২০১৪

জসিম উদ্দিন সিদ্দিকী কক্সবাজার
কক্সবাজার শহরের দুর্ধষ ছিনতাইকারি একাধিক মামলার আসামি মিজানকে আটকের পর ২ লাখ টাকায় ছেড়ে দেয়ার গুরুতর অভিযোগ ওঠেছে। ছিনতাইকারি লিডার মিজান আটকের পর গভীর রাতে ছাড়া পাওয়ায় পুলিশের ভাবমূর্তি ও ঘুষ বাণিজ্য নিয়ে শহর জুড়ে তোলপাড় চলছে। জানা যায়, শহরের টেকপাড়া এলাকার গোলাম মাওলা বাবুল প্রকাশ জজ বাবুলের পুত্র ছিনতাইকারি লিডার মিজান দীর্ঘদিন যাবত শহর ও শহরতলীসহ পর্যটন এলাকায় ছিনতাই, ডাকাতি ও নানা অপকর্ম করে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে রাখছিলো। তার অপকর্মের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহসও পেতনা। যে কারনে প্রতিনিয়ত অহরহ ঘটনার জন্ম দেয়ার পরেও টাকার কাছে জিম্মি হয়ে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করতোনা। তবে একের পর এক মামলা হলেও মিজান তার ছিনতাইকারি দলবল নিয়ে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন এলাকায় বীরদর্পে ঘুরে বেড়াতো এবং তার পেশা হিসেবে চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি ও মারামারি পাশাপাশি ভূমিদস্যুদের কাছে ভাড়াটে সন্ত্রাসি হিসেবে জমি ও বসতবাড়ি দখলের মতো জগন্যতম ঘটনা ঘটাতো। এছাড়া সম্প্রতি ঈদ মৌসুম শরু হওয়ার পর থেকে তার দল দিয়ে শহরের বিভিন্ন এলাকায় ছিনতাই, ডাকাতি শুরু করে। পরে একাধিক অভিযোগ ও মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানা নিয়ে ১১ জুলাই রাত সাড়ে ১১টার দিকে ছিনতাইকালে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে বার্মিজ মার্কেট এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। পরে গ্রেফতারের খবর ও তার অপকর্মসহ মামলার পলাতক আসামি বলে স্বীকারও করেন স্বয়ং কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনর্চাজ মাহফুজুর রহমান। কিন্তু গভীর রাতে তদবির বাজদের কবলে পড়ে ২ লাখ টাকার লোভ সামলাতে না পেরে ওসি নগদ টাকায় মিজানকে ছেড়ে দেয় বলে গুরুতর অভিযোগ ওঠেছে। এদিকে মিজানের আটকরে খবর শহরে ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ লোকজনসহ এলাকাবাসির মধ্যে স্বস্থি ফিরে আসলেও পুলিশের গভীর রাতের ঘুষ বাণিজ্য ও মিজানকে ছেড়ে দেয়ায় বর্তমানে আবারো সকলের মাঝে আতংক বিরাজ করছে। একাধিক ভুক্তভোগিদের অভিযোগ সম্প্রতি ছিনতাইকারি মিজান তার দাবীকৃত টাকা না পেয়ে শহরের পৌর এলাকার এক বরফ কলে গিয়ে তার সন্ত্রাসি বাহিনী নিয়ে ব্যাপক তান্ডব চালায়। পরে এ ঘটনায় কক্সবাজার মডেল থানায় অভিযোগও দায়ের করা হয়। কিন্তু এ অভিযোগেরও পাত্তা দেয়নি পুলিশ। এছাড়াও আমিরিকা প্রবাসি এক যুবককে জনসম্মুখে টেকপাড়ায় এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে নগদ টাকা মোবাইল সেটসহ সর্বস্ব ছিনিয়ে নিয়েছিলো মিজান। মামলার বাদী জানান, মিজানের এই মামলায়ও গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। কিন্তু অর্ধ-ডজন গ্রেফতারি পরোয়ানা থাকার পরেও পুলিশ অর্থের কাছে বিক্রি হয়ে রাতের আধারে এ ছিনতাইকারি লিডারকে ছেড়ে দেয়ায় পুরো শহর জুড়ে পুলিশের ন্যাক্কারজনক ঘটনা নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠেছে। এব্যাপারে পৌর নাগরিক কমিটির নেতা আব্দুল হক জানিয়েছেন, ছিনতাইকারির গডফাদার মিজান আটক হওয়ায় শহরের বেশ কিছু ব্যবসায়ীদের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছিল। কিন্তু গভীর রাতেই মোটা অংকের বলি হয়ে পুলিশ মিজানকে ছেড়ে দিয়েছে। তিনি আরো জানান, পুলিশ যদি টাকার বিনিময়ে এ রকম জগন্যতম ঘটনা ঘটায় তাহলে সাধারণ মানুষ নিভাবে নিরাপত্তা পাবে। তাই পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদের প্রতি অনুরোধ যত দ্রুত সম্ভব মিজানকে আটক করে সাধারণ লোকজনদের স্বস্থি দেয়া হউক।
………………………………………………………………………….