| |

Ad

সর্বশেষঃ

কোন ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতি সহ্য করা হবে না ———– মেয়র আতিকুল ইসলাম

আপডেটঃ ৪:২০ অপরাহ্ণ | মার্চ ১৪, ২০১৯

এস,এম,মনির হোসেন জীবন ॥ ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, কোন ধরনের অনিয়ম ও দুর্নীতি সহ্য করা হবে না। দুর্নীতিতে জিরো টলারেন্স এ বার্তা ইতি মধ্যে ডিএনসিসি’র সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীর কাছে পৌঁছে দিয়েছি। আমরা নাগরিকদের সেবা দিতে একযোগে কাজ করে দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে যাবো।আজ বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর গুলশান-২ হোটেল লেকশোরে আয়োজিত ‘টুওয়ার্ডাস রিজিলেন্স ঢাকা সিটি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ সব কথা বলেন।‘টুওয়ার্ডাস রিজিলেন্স ঢাকা সিটি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হাই, সচিব রবীন্দ্র শ্রী বড়ুয়া, পরিবেশ, জলবায়ু ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী তারিক বিন ইউসুফসহ আয়োজক সংগঠনের গুলোর প্রতিনিধিরা সাথে ছিলেন।
মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত কাজ করে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। দেশটাকে আরও সামনের দিকে এগিয়ে নিতে হলে এবং সুন্দর একটি আধুনিক শহর গড়ে তুলতে হলে প্রতিটি নাগরিকের সহযোগিতা প্রয়োজন রয়েছে।

তিনি বলেন,আমি মেয়র হিসেবে নয়; আমি কাজের মাধ্যমে নগরবাসীর সেবক হতে চাই। কাজের জন্য সমস্ত প্রোটকল ভেঙে সুন্দর ভাবে কাজ করতে চাই। দুর্যোগ মোকাবেলায় সাধারণ মানুষের প্রশিক্ষণ কর্মকান্ডের প্রশংসা করে মেয়র বলেন, দুর্যোগের ঝুঁকি, জানমালের নিরাপত্তা এবং ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে সব সাধারণ মানুষেরই এমন প্রশিক্ষণ নেওয়া উচিত। ‘টুওয়ার্ডাস রিজিলেন্স ঢাকা সিটি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় ওয়ার্ল্ড ব্যাংক, জাইকা, সিডিস, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সহযোগিতায় আরবান রিজিলেন্স প্রজেক্ট, ক্যাপাসিটি বিল্ডিং ডিজাজটার্ট রিস্ক রিডিউশন ইন আরবান এরিয়া নামক প্রকল্পের মাধ্যমে নগর জনগোষ্ঠীর দুর্যোগ ঝুঁকিহ্রাস সক্ষমতায় করণীয় বিষয়ে আলোকপাত করা হয়।

সভায় বক্তারা বলেন, নগরবাসীর মধ্যে কমিউনিটি পরিচালিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার সংস্কৃতি সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রকল্প চলমান রয়েছে। ঘূর্ণিঝড়, ভূমিকম্প, বন্যা, তাপদাহের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগকে আমরা প্রতিরোধ করতে পারি না। বক্তারা আরো বলেন, আমরা এসবের ক্ষতির মাত্রা কমিয়ে আনতে পারি। দুর্যোগ ঝুঁকিহ্রাস কেবল সরকারের দায়িত্ব নয়, বরং আমাদের প্রত্যেকেরই দায়িত্ব। প্রকৃতপক্ষে আমরাই আমাদের জীবন ও সম্পদ রক্ষায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারি। সচেতনতার লক্ষ্যে এ প্রকল্পের মাধ্যমে বিভিন্ন এলাকার দুর্যোগের ঝুঁকি সনাক্ত করে সে সব ঝুঁকিহ্রাসে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ নিতে পারি।