| |

Ad

সর্বশেষঃ

সিদ্ধিরগঞ্জে ১০ লাখ টাকা মূল্যের ১ হাজার ৩ পিস ভারতীয় শাড়ী বোঝাই কাভার্ডভ্যানসহ চালক হেলপার আটক

আপডেটঃ ১:৫০ পূর্বাহ্ণ | মার্চ ১৫, ২০১৯

সোহেলরানাঃ সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে :  সিদ্ধিরগঞ্জে ১০ লাখ টাকা মূল্যের ১ হাজার ৩ পিস ভারতীয় শাড়ী বোঝাই কাভার্ডভ্যানসহ চালক-হেলপারকে আটক করেছে থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) সকাল ৭টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইব্রাহীম পাটোয়ারী ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের কাঁচপুর সেতুর পশ্চিম ঢাল থেকে ভারতীয় শাড়ী কাপড় বোঝাই একটি কভ্যার্ডভ্যানসহ চালক-হেলপারকে আটক করা হয় । এসময় কভার্ডভ্যান থেকে ৮০ হাজার টাকা জব্দ করা হয়।খবর পেয়ে সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ প্রশাসনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুবাস ( হেড কোয়ার্টার) থানায় আসলে তাঁর উপস্থিতি কভার্ডভ্যানের তালা খুলে মালামাল সিজার লিষ্ট করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো, কভার্ডভ্যানের চালক (ঢাকা মেট্রো-ন-১৫-৪৯০৬) কুমিল্লা জেলার চান্দিনা থানার মহিচাইল এলাকার মৃত বজলুর রহমানের ছেলে মোঃ রফিকুল ইসলাম (৩০) ও হেলপার কুমিল্লা কতোয়ালী থানার জোরামেহের এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে।সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইব্রাহীম পাটোয়ারী ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি কুমিল্লা জেলার সিমান্ত এলাকা থেকে চোরাকারবারী চক্র একটি কাভার্ডভ্যান বোঝাই কাপড় নিয়ে বুধবার শেষ রাতে ঢাকার উদ্দেশ্যে আসছে। গভীর রাত থেকে আমরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের কাচপুর ব্রীজের পশ্চিম ঢালে উৎপেতে থাকি। সকাল ৭ টার দিকে আমরা ঐ গাড়ীটি আটক করতে সক্ষম হয়। তাৎক্ষনিক চালক এবং হেলপারকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পারি গাড়ীতে ২৬টি বস্তায় শাড়ী কাপড় রয়েছে। পরে বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে এ চোরাকারবারের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদেরকে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করি।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সকাল ৭টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের কাঁচপুর সেতুর পশ্চিম পাশ থেকে ১০ লাখ টাকা মূল্যের ২৬টি বস্তায় থাকা ১ হাজার ৩ পিস ভারতীয় শাড়ী কাপড় বোঝাই একটি কভ্যার্ডভ্যানটি ও চালক-হেলপারকে আটক করা হয়। পরে কভার্ডভ্যানে তল্লাশী চালিয়ে ৮০ হাজার টাকা জব্দ করা হয়েছে। শাড়ীর মালিকের সন্ধান করতে গিয়ে অভিযান সম্পর্কে তথ্য দিতে আমাদের সাময়িক বিলম্ব হয়ছে। তাদেরকে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করে এ পাচার কাজের সম্পৃক্তদেরকে অন্তর্ভুক্ত করে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।