বৃহস্পতিবার ২৫শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং ১২ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

সুদ ব্যবসায় জমজমাট, বিপাকে হতদরিদ্র পরিবার

আপডেটঃ ১২:৩৯ পূর্বাহ্ণ | এপ্রিল ১৪, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক :সুনামগঞ্জ:সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলায় বেড়েই চলছে জমজমাট সুদ ব্যবসা। মানুষকে নিঃস্ব করার অন্যতম এ ব্যবসা জামালগঞ্জ উপজেলার সকল গ্রামগুলোতে ছড়িয়ে এ ব্যবসা পড়েছে। দেখাযায় সুদ ব্যবসা মহামারী আকার ধারণ করেছে। সুদ ব্যবসায়ীদের রোষানলে পড়ে অসহায় হয়ে পড়েছে সমাজের নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত পরিবারের সাধারণ মানুষগুলো।

এ উপজেলার অনেক জায়গায় কয়েকজন মিলে বিভিন্ন নামে সমিতি গঠন করেছে। কিন্তু এদের কোন সরকারি অনুমতি নেই। কোন এনজিওর সাথেও তাদের কোন সংশ্লিষ্টতা খুঁেজ পাওয়া যায়নি। কিন্তু দিনের পর দিন কোন বাঁধা বিপত্তি ছাড়াই চালিয়ে যাচ্ছে সুদের ব্যবসা। এসব ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পড়ছে সমাজের মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবার গুলো। অনেকেই বিপদ-আপদে পড়ে বাধ্য হয়ে সুদের টাকা নিয়ে থাকেন। পরে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্য সুদ ও আসল টাকা পরিশোধ করতে না পারলেই সুদ ব্যবসায়ীদের হাতে লাঞ্ছীত হতে হয়।

জানাযায়, উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়ন, গ্রাম, পাড়া, মহল্লায় নারী ও পুরুষসহ সুদ ব্যবসায়ীরা মহাজনি প্রাথায় চালচ্ছেন সুদ ব্যবসা। এসব সুদ ব্যবসায়ীদের চক্রবৃদ্ধি সুদের রোষানলে দিশেহারা হয়ে পড়েছে বিভিন্ন ইউনিয়ন ও গ্রাম অ লের সাধারণ অসহায় মানুষ। আর্থিক প্রয়োজনে বেকায়দায় পড়ে এসব সুদ ব্যবসায়ীদের খপ্পরে পড়েছে মধ্যবিত্ত কৃষক, বর্গাচাষী, স্বল্প আয়ের লোকজনসহ অনেকে। কেউ ব্যবসা করতে, বিদেশ গমনে, সিএনজি ক্রয়ে বা বিভিন্ন অসুবিধায় সুদ ব্যবসায়ীদের নিকট চড়া সুদে টাকা নিয়ে ১০০/৩০০ টাকার সাদা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর বা টিপ দিয়ে টাকা নিতে হয়। আর ওই সব সাদা ষ্ট্যাম্পে সাক্ষী নেওয়া হয় সুদ ব্যবসায়ীদের পছন্দমত ব্যক্তিদের এবং ইচ্ছামত তারা ষ্ট্যাম্প পূরণ করে রাখেন কিংবা প্রয়োজন মত লেখার জন্য ফাঁকা রাখেন। আর বেকায়দায় পড়া ব্যক্তিদের অনেকে সুদ ব্যবসায়ীদের চাপে বন্ধক রাখতে জমির দলিল পত্র, স্বর্ণালংকার, চাকরিজীবীদের মাসিক বেতনের চেকও বন্ধক রাখতে বাধ্য হচ্ছেন সুদ ব্যাবসায়ীদের কাছে। মাসিক, সাপ্তাহিক এমনকি দৈনিক ভিত্তিতে নগদ ঋণ দিয়ে দেড় থেকে দুই গুন মুনাফা লাভ করে। একদিকে যেমন সুদ ব্যবসায়ীরা সম্পদের পাহাড় গড়ছেন অন্যদিকে সাধারণ ও মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষ দিন দিন গরিব ও ভূমিহীনে পরিণত হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানান, সুদের ব্যবসা দিনের পর দিন বেড়েই চলছে। এই ব্যবসায় পুরুষের পাশাপাশি মহিলা সুদ ব্যবসায়ী ও আছে। সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারলে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে সুদের টাকা আদায় করেন। এই ব্যবসার মাধ্যমে টিনের ঘর থেকে দু’তলা বাড়ি পর্যন্ত বানিয়েছেন। অথচ সুদ ব্যবসায়ীদের এমন কর্মকান্ডে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষেরও নেই কোন পদক্ষেপ। যে কারণে ঋণের নামে এসব শোষণ বেড়েই চলছে। সমাজের এই ক্ষতিকর সমাজ বিরোধী অবৈধ সুদ ব্যবসা উচ্ছেদে এলাকাবাসীর দাবি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসন এ ব্যাপারে জরুরী পদক্ষেপ নিবেন।