সোমবার ১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ১লা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

এই প্রথম বাজেট উপস্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী

আপডেটঃ ৪:১০ অপরাহ্ণ | জুন ১৪, ২০১৯

নিউজ ডেস্ক: টানা তিন মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগ সরকারের বর্তমান মেয়াদের প্রথম বাজেট উপস্থাপনকালে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল মাঝপথে অসুস্থতা অনুভব করলে বাজেট নিজেই উপস্থাপন শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের ইতিহাসে কোনো প্রধানমন্ত্রীর এটাই প্রথম বাজেট উপস্থাপন।

অর্থমন্ত্রী বেশ কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ। এরপরও তিনি সংসদে এসে বাজেট উপস্থাপন করছিলেন। কিছুক্ষণ বাজেট উপস্থাপনের পর তিনি অসুস্থতা অনুভব করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাকিটুকু নিজেই উপস্থাপন করতে চান। যদিও তিনি নিজেও গলার ব্যথায় ভুগছেন। তবু অর্থমন্ত্রীর অসুস্থতার কারণে কষ্ট করে হলেও নিজেই বাজেট উপস্থাপন শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী।

জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমীন চৌধুরীর কাছে প্রধানমন্ত্রী বাজেট উপস্থাপনের অনুমতি চেয়ে বলেন, ‘আমার অর্থমন্ত্রী অসুস্থ। আমি নিজেও গলার সমস্যায় আছি। এরকম কখনো হয়নি। এবার হলো। যাহোক, মাননীয় অর্থমন্ত্রী যতটুকু পড়েছেন, তার পর থেকে আমি শুরু করছি।’

এ সময় স্পিকারকে তিনি বলেন, ‘তিনি বসে বাজেট উপস্থাপন করতে পারবেন কি না।’ স্পিকার তাকে বলেন, ‘আপনার যেভাবে সুবিধা, বসেও পড়তে পারেন।’

বাংলাদেশের বাজেটের ইতিহাসে এই প্রথম অর্থমন্ত্রীর অসুস্থতার কারণে প্রধানমন্ত্রী তাকে সহায়তা করার জন্য নিজেই বাজেট উপস্থাপন করলেন। বাজেট উপস্থাপনের ইতিহাসে এটি এরকম প্রথম ঘটনা।

২০১৮-১৯ অর্থবছরের এই বাজেট দেশের ৪৮তম বাজেট। আওয়ামী লীগ সরকারের ১৯তম এবং বর্তমান অর্থমন্ত্রীর প্রথম বাজেট প্রস্তাব। ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ : সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শিরোনামে প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা।

চলতি অর্থবছরের মূল বাজেট ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেট ৪ লাখ ৪২ হাজার ৫৪১ কোটি টাকা। অর্থাৎ আগামী বাজেটের আকার সংশোধিত বাজেট থেকে ৮০ হাজার ৬৪৯ কোটি টাকার মতো বেশি।

নতুন বাজেটে ব্যয় মেটাতে সরকারি অনুদানসহ আয়ের পরিমাণ ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৮১০ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) আয় ধরা হয়েছে ৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। এনবিআর–বহির্ভূত করব্যবস্থা থেকে আসবে ১৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা এবং বিভিন্ন সেবামূলক থেকে ৩৭ হাজার ৭১০ কোটি টাকা আদায়ের লক্ষ্য ঠিক করে রাখা হয়েছে। বরাবরের মতো আগামী বাজেটের ঘাটতিও থাকছে জিডিপির ৫ শতাংশ। মোট ঘাটতি ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা।