মঙ্গলবার ১৫ই জুলাই, ২০১৯ ইং ১লা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

মেঘনায় অবৈধ ড্রেজার গুড়িয়ে দিল বিআইডব্লিউটিএ

আপডেটঃ ২:১১ পূর্বাহ্ণ | জুন ১৯, ২০১৯

বিশেষ প্রতিনিধি-নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের চর রমজান এলাকায় ড্রেজার দিয়ে মেঘনার শাখা নদীর প্রবেশমুখ ভরাটের মাধ্যমে কমপক্ষে ৪০ বিঘা জমি দখলের করছিল ভূমিদস্যুরা। যার বাজারমূল্য প্রায় ৩০ কোটি টাকা। মঙ্গলবার ১৮ জুন বিকেলে খবর পেয়ে বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে এক্সাভেটর (ভেকু) দিয়ে ৫টি ড্রেজার ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে। এসময় অভিযানকারী দলকে দেখে ঘটনাস্থলে থেকে পালিয়ে যায় ভরাটের চেষ্টাকারীরা।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, চর রমজান সোনা উল্লাহ মৌজায় মেঘনা নদীর শাখা নদীর প্রবেশমুখে ভরাট শুরু করেছে স্থানীয় প্রভাবশালী একটি চক্র। একটি শিল্প গ্রুপের পক্ষ হয়ে শাহজালাল মিয়া নামের স্থানীয় এক প্রভাবশালী সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে এই দখল উৎসবে মেতে উঠেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। সন্ত্রাসীরা অস্ত্রের মহড়া দিয়ে চর দখলের মতো নদী ও সরকারি সম্পত্তি দখল করে নিয়েছে। কমপক্ষে ৫০-৬০ জন লাঠি, রামদা, চায়নিজ কুড়াল নিয়ে মেঘনা নদীর তীরে ট্রলারে করে মহড়া দিচ্ছে। গ্রামবাসীরা জানান, মেঘনার শাখা নদীটি ভরাট করা গেলে কমপক্ষে ৪০ বিঘা জমি দখল হয়ে যাবে। এই জমির বর্তমান বাজারমূল্য প্রায় ৩০ কোটি টাকা।
বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের উপ পরিচালক মো. শহীদুল্লাহ জানান, নদীখেকোরা মেঘনার শাখা নদীর প্রবেশমুখে ড্রেজার দিয়ে বালু ফেলে শাখা নদীটি ভরাটের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ জায়গা দখলের পায়তারা করছে। গত ২৮ মে ঐ এলাকায় মেঘনার শাখা নদীর প্রবেশমুখ ভরাট করাকালীন ১২টি ড্রেজার ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছিল বিআইডব্লিউটিএর অভিযানকারী দল। ১৮ জুন মঙ্গলবার বিকেলেও আমরা খবর পেয়ে ভরাটস্থলে গেলে ট্রলারে থাকা ক্যাডাররা পালিয়ে যায়। এসময় আমরা ৫টি ড্রেজার ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছি।

উল্লেখ্য গত ২৮ মে বিআইডব্লিউটিএ’র ভ্রাম্যমান আদালত চলাকালীন সোনারগাঁয়ের চর রমজান এলাকায় মেঘনা নদী ভরাট করে ওরিয়ন গ্রুপের গড়ে তোলা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ সহ আটককৃত তিন কর্মচারীর ভিডিও চিত্রধারণ করায় গণমাধ্যম কর্মীদের উপর চড়াও হয়ে ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন ওরিয়ন গ্রুপের এক শীর্ষ কর্মকর্তা। বিআইডব্লিউটিএ’র ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতেই তিনি গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে এ মারমুখী আচরণ করেন। এ সময় তিনি কয়েকটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের ক্যামেরাপার্সনকে ধাক্কা দেন এবং তেড়ে আসেন। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিস্থিতি শান্ত করেন।