বৃহস্পতিবার ১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং ৩০শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

দি লাইফ সেভিং ফোর্স বাহিনীকে আগামী দিনে একটি দক্ষ,যুগোপযোগী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হবে—–স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আপডেটঃ ৮:৫৯ পূর্বাহ্ণ | নভেম্বর ০৭, ২০১৯

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বাহিনীকে বর্তমান সরকার নতুন আঙ্গীকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। দি লাইফ সেভিং ফোর্স এই বাহিনীকে আগামী দিনে একটি সুদক্ষ, অভিঞ্জ, প্রশিক্ষিত,আধুনিক ও যুগোপযোগী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হবে। এনিয়ে বর্তমান সরকার নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচেছন।
দেশে জঙ্গীবাদ উৎপাটনের ক্ষেত্রে ফায়ার সার্ভিস অবদান রেখেছেন উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশে জঙ্গীবাদ উৎপাটনের ক্ষেত্রে ফায়ার সার্ভিস কাজ করে যাচেছন। জঙ্গী দমনের ক্ষেত্রে দি লাইফ সেভিং ফোর্স বাহিনীর সদস্যরা অবদান রয়েছে। তারা অগ্নি নির্বাপন, দুর্যোগ মোকাবেল, রোড এক্রিডেন্ট, জঙ্গী দমন সহ যে কোন দুর্যোগ মোকাবেলায় তারা কাজ করে যাচেছন।
তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য সরকার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচেছন।
বুধবার দুপুরে রাজধানীর অদূরে নারায়নগঞ্জের রূপগঞ্জ পূর্বাচল শহরে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স কমপ্লেক্র প্রাঙ্গণে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ’’ দি লাইফ সেভিং ফোর্স’’ সপ্তাহ-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর মহা-পরিচালক (ডিজি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো: সাজ্জাদ হোসাইন (এনডিসি,পিএসসি) এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীরপ্রতীক) (এমপি) ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সুরক্ষা বিভাগের সচিব মো: শহিদুজ্জামান। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন হাবিবুর রহমান যুগ্ন সচিব, পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ), লেফটেন্ট্যান্ট কর্ণেল এস.এম. জুলফিকার রহমান, (বিএসপি, বিএসসি,), লেফটেন্ট্যান্ট কর্ণেল জিল্লুর রহমান, পিএসসি, পরিচালক (অপরেশন ও মেইনটেন্যান্স), নারায়নগঞ্জ জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো: জসিম উদ্দিন, ইএনও মমতাজ বেগম, নারায়নগঝ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো: আব্দুল হাই, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বিমানবাহিনী, নৌ বাহিনী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়, সুরক্ষা বিভাগ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, র‌্যাব, পুলিশ, আনসার বাহিনী সহ সংশ্লিস্ট অন্যান্য বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী, অভিভাবক সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।
’’ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ ২০১৯ এর এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল- সচেতনতা, প্রশিক্ষণ ও প্রস্তুতি ভুমিকল্প মোকাবেলার সর্বোত্তম উপায়। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের প্রশিক্ষণ নিন-ভলান্টিয়ার হিসেবে মানবতার সেবায় যোগ দিন’’।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, দেশের প্রতিটি থানা এলাকায় একটি করে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অফিস গড়ে তোলা হবে। আমরা ফায়ার সার্ভিসকে সারা দেশ ব্যাপী ছড়িয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচিছ। সারা বিশ্ব ব্যাপী ফায়ার সার্ভিসের সংখ্যা তুলনামূলক ভাবে দিন দিন বৃদ্বি পাচেছ। সেই মোতাবেক বাংলাদেশে ও তার ব্যতিক্রম নয়। আমরা বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে দিন দিন সামনে দিকে এগিয়ে যাচিছ।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে দি লাইফ সেভিং ফোর্স বাহিনীর সদস্যরা অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচেছন। এক সময় আমাদের বলতে গেলে কিছু ছিলনা। আজ আমরা অনেক দূর এগিয়ে গেছি। এসময় ৯তলা বহুতল ভবনের আগুন নেভানো হতে। এখন আমরা ২৩ তলা উচুঁ ভবনের আগুন ও নির্বাপন করতে পারি।
তিনি আরও বলেন, দক্ষতা, অভিঞ্জতা, প্রশিক্ষণ ও যুগোপযোগী ফায়ার সার্ভিস বাহিনী আগামীতে গড়ে তোলা হবে। বাহিনী ভবিষ্যতে হেরিকপ্টারে আগুন নেভানো হবে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বাহিনীর জন্য আগামীতে হেরিকপ্টার ক্রয়য়ের উদ্যোগ গ্রহন করা হবে। এবিষয়ে সরকার চিন্তা ভাবনা করছে।
আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স বাহিনীতে কর্মরত সকল সদস্যদের প্রশিক্ষণ,তাদের বেতন ভাতা বৃদ্বি করণ সহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা আগের চেয়ে বাড়ানো হবে। এ নিয়ে বর্তমান সরকার নিষ্টার সাথে কাজ করে যাচেছন।
আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, পেশাগত দক্ষ, প্রশিক্ষণ জনগনের সাথে যোগাযোগ ও যুগপযোগী করা হয়েছে। ইতি মধ্যে ৬ হাজার ২শ জনকে প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তারা অগ্নিসেনাদের সাথে যে কোন দুর্যোগ মোকাবেলায় তারা এক সঙ্গে কাজ করবে। ফায়ার সার্ভিসকে ঢেলে সাজিয়েছি। এই বাহিনীকে আগামী দিনে একটি দক্ষ, অভিঞ্জ, প্রশিক্ষণ ও যুগপযোগী বাহিনী হিসেবে আগামী দিনে গড়ে তোলা হবে।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সারা দেশে দি লাইফ সেভিং ফোর্স বাহিনীর প্রায় ১২ হাজার কর্মকর্তা ও কর্মচারী রয়েছে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতীক) বলেন, আমাদের দেশের ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স যে কতটুকু উন্নত হয়েছে সেটা আজকের মহড়া দেখে বুঝতে পেরেছি।
তিনি বলেন, দেশে যে ভাবে অর্থনৈতিক ব্যবস্থা এগিয়ে যাচেছ সেখানে ফায়ার সার্ভিস তারা জীবন দিয়ে প্রমান করেছে। দেশের অর্থনীতি ব্যবস্থা আগের চেয়ে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। আগামীতে ফায়ার সার্ভিস এই বাহিনীকে আরও শক্তিশালী ও গতিশীল বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।
বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, পূর্বাচল উপ-শহর হবে দেশের মধ্যে একটি আধুনিক ও উন্নত শহরে পরিণত হবে। বেস্ট লোকেশন বাংলাদেশ রুপগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস। এটিকে দৃষ্টিন্দন করতে হবে। শিগগিরই মাঠ ভরাট করে সেখানে প্যারেড গ্রাউন্ট তৈরী করা হবে। এনিয়ে সরকার কাজ করছেন।
মন্ত্রী আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতি মধ্যে এই বাহিনীর প্রতি নজর দিয়েছেন। ভবিষ্যতে এই বাহিনীর সদস্যরা বিশ্বের মধ্যে পাল্লা দিয়ে যে কোন দুযোর্গ,ভুমিকল্প,অগ্নিনির্বাপণ সহ মোকাবেলায় নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাবেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের সুরক্ষা বিভাগের সচিব মো: শহিদুজ্জামান বলেন, উন্নত বাংলাদেশের পাশাপাশি নিরাপদ বাংলাদেশ গড়তে চাই। ফায়ার সার্ভিসের সক্ষমতা আগের চেয়ে বেড়েছে। ২০১৯ সালের সারা দেশে মোট ৪১১টি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন রয়েছে। যেখানে ২০০৯ সালে ছিল ১৯২টি স্টেশন। এই জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের সুরক্ষা বিভাগের পক্ষ থেকে অভিন্দন জানাচিছ।
তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট ঘাতকদের বুলেটের গুলিতে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ তার পরিবার যারা নিহত হয়েছেন তাদের সকলকে আজ আমি শ্রদ্বার সাথে স্বরণ করছি। আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে কাজ করে যাচিছ।
সুরক্ষা বিভাগের সচিব মো: শহিদুজ্জামান আরও বলেন, আগামীতে এই বাহিনীকে সুপ্রদান করা হবে। দেশবাসিকে নিরাপদে রাখতে এই বাহিনী দায়িত্ব পালনে নিয়োজিত থাকবে। পাশাপাশি একটি দৃশ্যমান একাডেমী তৈরী করা হবে। এই নিয়ে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচেছন।
সভাপতির বক্তব্যে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর মহা পরিচালক (ডিজি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো: সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিনে আজ থেকে ৭ দিন ব্যাপী অনুষ্ঠান মালা শুরু হল। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সকে আধুনিকায়ন করার ক্ষেত্রে অনেকাংশ বৃদ্বি পেয়েছে। বহুমাত্রিক কাজ ও সেবার সাথে ফায়ার সার্ভিস জড়িত। দি লাইন সেভিং ফোর্স বাহিনীর সদস্যরা দেশে ও বিদেশে প্রশিক্ষণ নিচেছন।
এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ’’ দি লাইফ সেভিং ফোর্স’’ সপ্তাহ-২০১৯ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের কুঁচকাওয়াজে ও অগ্নি মহড়ায় অংশ গ্রহন করেন। পরে তিনি ১২০০ বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্ধোধন ঘোষনা করেন।
কুঁচকাওয়াজে নেতৃত্ব দেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর উপ-সহকারী পরিচালক সালেহ উদ্দিন।
অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ২০জন ফায়ার কর্মীর হাতে রাষ্ট্রপতি’র পদক তুলে দেন। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে সারা বাংলাদেশ থেকে ১৪৫জন ফায়ার কর্মীকে রাষ্ট্রপতি পদকে ভুষিত করা হয়েছে।