বৃহস্পতিবার ৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

মেহার দক্ষিণ ইউনিয়নে আ’লীগ সদস্য ফরম বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ…

আপডেটঃ ৮:০৭ পূর্বাহ্ণ | নভেম্বর ১৭, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক :চ্যানেল সেভেন – : শাহরাস্তি: চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার মেহার দক্ষিণ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে (ফতেপুর) আওয়ামী লীগের সদস্য ফরম বিতরণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। গতকাল শনিবার মেহার দক্ষিণ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারাণ সম্পাদক জুলফিকার আলী (জুয়েল পাটোয়ারী) এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। এছাড়া উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং মেহার দক্ষিণ ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতিকে এ দরখাস্তের অনুলিপি প্রেরণ করেছেন।
লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ওই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সদস্য নবায়ন ফরম বিতরণের দায়িত্ব বর্তমান কমিটির নেতৃবৃন্দদের না দিয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শফি আহমেদ মিন্টু তার অনুগত লোকদের মাধ্যমে ফরম বিতরণ করছেন এবং সাংগঠনিক নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে রাতের আঁধারে নিজের পছন্দের লোকদের মাঝে গোপনে ফরম বিতরণ করেছেন। যা স্বেচ্ছাচারিতা ও নিজ ইচ্ছা চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।
এছাড়া অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, ইউনিয়ন সভাপতি তার নিজের অবস্থান ধরে রাখার জন্য জামায়াত-বিএনপির লোকদের কাছে গোপনে আ’লীগের সদস্য ফরম বিতরণ করছেন বলে জানা যায়। যা আ’লীগের আগামি দিনের রাজনীতির জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াবে বলে মনে করছেন দরখাস্তকারী। এমন অভিযোগ ১নং ওয়ার্ডের সভাপতি মাঈনুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জুয়েল পাটোয়ারী, সাংগঠনিক সম্পাদক রিপন পাটোয়ারী ও সাবেক ছাত্রনেতা সিদ্দিক পাটোয়ারী সহ এলাকার অনেকের।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ইউনিয়ন সভাপতি শফি আহম্মেদ মিন্টু বর্তমানে দায়িত্বে থাকা কমিটিকে পাশ কাটিয়ে মোজাফফর হোসেন, আমির হোসেন ও খোরশেদ আলমসহ কমিটির বাইরের এমন কয়েকজনকে দিয়ে আওয়ামী লীগের সদস্যপদ নবায়ন ও নতুন সদস্য অন্তর্ভুক্তি ফরম বিতরণের দায়িত্ব দিয়েছেন। যার প্রেক্ষিতে বর্তমান কমিটির নেতৃবৃন্দের ভেতরে একধরনের ক্ষোভ বিরাজ করেছে। এ নিয়ে এলাকাজুড়ে চলছে ব্যাপক তোলপাড়।
এ বিষয়ে বর্তমান ১নং ওয়ার্ডের সদস্য ফরম বিতরণ করার দায়িত্ব পাওয়া মোজাফফর হোসেনের সাথে কথা বলে জানা যায়, যারা বিগত স্থানীয় সরকার উপ-নির্বাচন ও উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচনে দলের প্রতীকের বিরুদ্ধে থেকে বিদ্রোহী প্রার্থীর নির্বাচন করেছেন। তারা দলের কাছে এখন অনেক বিতর্কিত হয়েছেন। তাই তাদেরকে সকল ধরণের দায়িত্ব থেকে দূরে রাখা হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যতো কিছুই হউক আমরা চাই ভবিষ্যৎ কমিটির প্রতিটি সদস্যই যেনো সংগঠন বান্ধব হয় এবং আমরা এ কাউন্সিলে এমন সংগঠন বান্ধব কমিটিই নির্বাচিত করার চেষ্টা করবো। মোজাফফর হোসেনের সাথে একাত্মতা পোষণ করে এমন বক্তব্য দিয়েছেন সদস্য ফরম পূরণের দায়িত্বে থাকা আমির হোসেন পাটোয়ারী ও খোরশেদ আলম পাটোয়ারী।
সদস্য ফরম বিতরণের অনিয়মের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মেহের দক্ষিণ ইউনিয়নের বর্তমান সভাপতি ও চেয়ারম্যান শফি আহম্মেদ মিন্টু বলেন, যারা দায়িত্বে থেকে অলসতা ও বিভিন্ন বিদ্রোহের সাথে জড়িত ছিলো এবং রয়েছে তাদেরকে বাদ দিয়ে তাদের চেয়ে আরোও বেশি যোগ্য যারা তাদেরকে দিয়েই বর্তমানে কাজ চালানো হচ্ছে। এছাড়া বর্তমান কমিটির নেতৃবৃন্দ যারা রয়েছেন তারা সকলেই সাধরাণ সদস্য হিসেবে নতুন কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত থাকবেন। শুধুমাত্র সাংগঠনিক বিভিন্ন কার্মকান্ড থেকে আপাততঃ বিরত থাকবেন। এসময় এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান নির্বাচন করেছি তা ঠিক ঐ সময় দল যাকে মনে করেছে তাকে দলীয় প্রতীক বরাদ্দ দিয়েছে। তবে আমি দলের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে নির্বাচন করেও বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়েছি। নির্বাচনে আমি প্রমান করে দিয়েছি জনপ্রিয়তা আমার কতটা বেশি ছিল। যদি দল সঠিকভাবে মূল্যায়ন করে প্রতীক বরাদ্দ দিতো তবে আমার বিদ্রোহীতার প্রশ্ন আসার তো কোন কারন ছিলনা।
এদিকে এমন অনিয়মের অভিযোগ সম্পর্কে জানার জন্য মেহার দক্ষিণ ইউনিয়নের আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিনের ফোনে বারবার ফোন দেওয়ার পরও কলটি রিসিভড না করায় তার কোন প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।
অপর দিকে মেহার দক্ষিণ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সভাপতি মাঈনুল ইসলামের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি মায়ের অসুস্থতার কারনে ঢাকায় মায়ের চিকিৎসা নিয়ে ব্যস্ত আছেন বলে জানান।