রবিবার ৫ই জুলাই, ২০২০ ইং ২১শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

এনোনটেক্স গার্মেন্টস পরিদর্শন করলেন গাসিক তদন্ত নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট -এস এম সোহরাব হোসেন …

আপডেটঃ ৩:৫৭ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯

শেখ রাজীব হাসান-টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ গতকাল শুক্রবার গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের আঞ্চলিক জোন-১ এর নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এস এম সোহরাব হোসেনের নেতৃত্বে ৩সদস্য তদন্তকারী কমিটি গঠন করে এনোনটেক্সের সিমপ্লেক্স ভবনটি আগুনে পুড়ে যাওয়া বিভিন্ন ফ্লোর পরিদর্শন করেন। এ সময় তদন্তকারী টিমে উপস্থিত ছিলেন এবিএম সিদ্দিকুর রহমান খান, তত্ত্বাবধায়ক নির্বাহী প্রকৌশলী মো: ইব্রাহিম খলিল, নির্বাহী প্রকৌশলী বিদ্যুৎ বিভাগ। এ সময় তদন্ত কাজে কারিগরি সহযোগিতায় ছিলেন ফায়ার সার্ভিস টঙ্গী জোনের কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান, মো: আতিকুল ইসলাম, তদন্তকারী টিম পর্দিশনকালে এনোনটেক্স গ্রুপের পক্ষ থেকে কোম্পানীর এডমিন ম্যানেজার ইব্রাহিম খলিল উপস্থিত ছিলেন। পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এসএম সোহরাব হোসেন জানান, পরিদর্শনে দেখা যায় ফায়ার এক্সজিট পয়েন্ট ত্রুটিপূর্ণ ছিল। এ সময় ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে জানানো হয়, কারখানাটিতে ফায়ার এক্সজিটেশন ছিল না। আগুন লাগার প্রকৃত কারণ এখনো জানা যায়নি। আরো তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তীতে জানানো হবে। এ সময় কোম্পানীর এডমিন কর্মকর্তা ইব্রাহীম খলিল জানান, আগুন লাগার সময় আমি বাহিরে ছিলাম। আগুন লাগার খবর পেয়ে আমি দৌড়ে আশি। আগুন লাগার প্রকৃত কারণ জানতে পারিনি। তিনি আরো জানান, বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টা ৪০মিনিটে আগুন লাগে। এ সময় আমারদের কারখানার ফায়ার ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করা হয় এবং ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে ফায়ার সার্ভিসের ১১টি ইউনিট এসে একযোগে প্রায় ৩ ঘন্টা চেষ্টায় আগুন নেভানো সম্ভব হয়। প্রাথমিক ভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানানো যাচ্ছে না। কোম্পানী বোর্ড গঠন করে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রেসব্রিফিংয়ের মাধ্যমে জানানো হবে। এ সময় সিটি কর্পোরেশনের কর কর্মকর্তা জানান, এ ফ্লোরটির ট্রেডলাইসেন্স ২ বছর যাবত হালনাগাত করা হয়নি। এ প্রসঙ্গে কোম্পানীর কর্মকর্তার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, নদী বাঁচাও আন্দোলনের পক্ষ থেকে হাইকোটের একটি স্থগিতাদেশ জারি করা আছে। যার কারণে নবায়ন করা সম্ভব হয়নি। আগামী ৩ কার্যদিবসে সকল বিষয়ে পর্যালোচনা করে একটি চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে বলে জানিয়েছেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের তদন্তকারী দল।