শুক্রবার ১৭ই জানুয়ারি, ২০২০ ইং ৪ঠা মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

দেশ ও জাতির জন্য বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন ছিলো তা বাস্তবায়নে আমাদের কাজ করতে হবে …………….গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী

আপডেটঃ ৫:০৯ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯

হাসান মামুন-পিরোজপুর-:গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ.ম রেজাউল করিম এমপি বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে, এই বাংলার জন্ম হতো না। হতো না স্বাধীন বাংলাদেশের। বঙ্গবন্ধু বাঙ্গালী জাতির অহঙ্কার। বাংলাদেশের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর বিকল্প কোন নেতা আর আসবেনা। তার জন্যই আমরা একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ পেয়েছি। দেশ ও জাতির জন্য বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন ছিলো তা বাস্তবায়নে আমাদের কাজ করতে হবে। আর সে স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য তিনি বাংলাদেশ চেয়ে ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর রক্ত যার ধমনীতে বহমান, বঙ্গবন্ধুর ডাকে যারা মুক্তিযুদ্ধে সাড়া দিয়েছিলেন, তাদেরকে এ জাতীয় উজার ভালবাসা অবনত চিত্তে শ্রদ্ধা করা কেবল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই পারেন, অন্য কেউ নয়। মন্ত্রী আজ রোববার সকালে ৮ ডিসেম্বর পিরোজপুর হানাদার মুক্ত দিবস পালন উপলক্ষে জেলা প্রশাসন আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেছেন, তিনি নিজের জীবন বিসর্জন দিয়ে এ দেশ স্বাধীন করেছেন। কিন্তু দেশ স্বাধীনের পরে পরাজিত শক্তিরা দেশের স্বাধীনতাকে মেনে নিতে পারে নি। স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারত সহ বিশ্বের অনেক দেশ আমাদের সহায়তা করলেও কিছু দেশ স্বাধীনতার পরেও আমাদের মেনে নিতে পারে নি। পরাজিত শক্তিদের কর্তৃক বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর তারা এদেশের স্বাধীনতাকে স্বীকার করেছিলো।

বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ৮ ডিসেম্বর পিরোজপুর মুক্ত দিবস পালন করা হয়েছে। মুক্ত দিবস উপলক্ষ্যে ওই দিন সকাল সাড়ে ৯টায় শহরের ভাগীরথী চত্বরে শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে পুস্পমাল্য অর্পন, আনন্দ শোভাযাত্রা শেষে শহরের স্বাধীনতা চত্ত্বরে স্বধীনতা মে র উদ্বোধন এবং এর আগে মন্ত্রী জেলা প্রশাসন কর্তৃক পরিচালিত শহরের পূরাতন ডিসি অফিস সংলগ্ন কালেক্টরেট স্কুল এন্ড কলেজের ১ জানুয়ারি ২০২০ শিক্ষা কার্যক্রম শুরু উপলক্ষে ভবনের উদ্বোধন করেছেন। এসময় তিনজন বিশেষ প্রবীন মুক্তিযোদ্ধাকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও ক্রেষ্ট বিতরন করেন মন্ত্রী ও জেলা প্রশাসক।

শহরের টাউন ক্লাবের স্বাধীনতা মে সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসক আবু আলী মোঃ সাজ্জাদ হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য শেখ এ্যানি রহমান, জেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান মালেক, জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এম এ হাকিম হাওলাদার, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ হোসেন, সাবেক জেলা ও দায়রা জজ ও মুক্তিযোদ্ধা মো. সালাম শিকদার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের প্রশাসক নাহিদ ফারজানা ছিদ্দিকী, মুক্তিযোদ্ধা গৌতম নারায়ন চৌধুরী, জেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হাসান গাজী সহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অংগ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভায় মন্ত্রী বলেন, ত্রিশ লক্ষ শহীদ ও দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রম ও মূল্যবান সম্পদ ইজ্জত বিলিয়ে দেবার মধ্য দিয়ে লাল-সবুজের এই বাংলাদেশকে আমরা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি, তাই তাদেরকে বিন¤্র শ্রদ্ধাভরে স্মরন করছি উল্লেখ করে তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা এ জাতির গর্ব, এ জাতির গৌঁরব, এ জাতির অহংকার। মুক্তিযুদ্ধ দ্বিতীয়বার আসবেনা, অনেকের লক্ষ কোটি টাকা হতে পারে, মন্ত্রী হতে পারে, এমপি হতে পারে, প্রধানমন্ত্রী হতে পারে, রাষ্ট্রপতি হতে পারে কিন্তু একজন মুক্তিযোদ্ধা হওয়ার সুযোগ নেই। ফলে আপনারা জাতির বীর সন্তান; এই গর্বের যায়গাটা কেউ স্পর্শ করতে পারবেনা, এমন একটি অনন্য উচ্চতায় আপনারা অধীষ্টিত আছেন; আপনাদেরকে শ্রদ্ধা জানাতে বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য যতপ্রকার সুযোগ-সুবিধা দেয়া প্রয়োজন সেগুলো দিয়ে যাচ্ছেন, তার লক্ষ রয়েছে মুক্তিযোদ্ধার পরিবার, তার সন্তান এমনকি তাদের উত্তরশুরীরাও যাতে রাষ্ট্রের সকল সুবিধা পেতে পারেন সেজন্য সবকিছু তিনি নিশ্চিত করবেন।