বৃহস্পতিবার ১লা অক্টোবর, ২০২০ ইং ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে অর্ধেক ঝাঁপ খোলা রেখে ব্যবসার সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিক লাঞ্ছিত…

আপডেটঃ ৬:০০ অপরাহ্ণ | মে ১৫, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার : প্রশাসন ঘোষিত লকডাউন উপেক্ষা করে দোকানের অর্ধেক ঝাঁপ খোলা রেখে কৌশলে ব্যবসা পরিচালনা ও মোবাইল কোর্টে জরিমানার সংবাদ প্রকাশ করাকে কেন্দ্র করে প্রিয় চাঁদপুর প্রধান সম্পাদক এবং দৈনিক আলোকিত সকালের হাজীগঞ্জ প্রতিনিধি এবং মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস এক্টিভিটিস ফাউন্ডেশন চাঁদপুর জেলা সভাপতি মজিবুর রহমান রনিকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও পুলিশের উপস্থিতিতে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে কয়েকজন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে।

শুক্রবার (১৫ মে) হাজীগঞ্জ মধ্যবাজার পৌর হকার্স মার্কেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে।
লাঞ্ছিতের শিকার সাংবাদিককে প্রাণ নাশের হুমকি দেন ওই ব্যবসায়ীরা।
হামলার শিকার সাংবাদিক মজিবুর রহমান রনি জানান, বৃহস্পতিবার প্রিয় চাঁদপুর পত্রিকায় ‘অর্ধেক ঝাঁপ ফেলে হাজীগঞ্জে চলছে দোকানদারি’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সেখানে আমি পুরো উপজেলার কিছু দোকান খোলা রাখার বাস্তবতা তুলে ধরি।

এর জের ধরে শুক্রবার দুপুর ১১টার সময় চাঁদপুরের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও পুলিশের উপস্থিতিতে সাগরিকা বিশাল শপিং সেন্টারের মালিক মনির হোসেন ও স্বপ্ন এক্সক্লুসিভ’র ডিলার নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে আমাকে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। তারা আমাকে গালিগালাজ করে বলে “যত টাকা লাগুক তোরে মাইরা পালামু”। পরে পুলিশ ও সাংবাদিকরা আমাকে উদ্ধার করে নিরাপদে নিয়ে আসে। বর্তমানে আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

এ ব্যাপারে শুক্রবার হাজীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করবেন বলে জানিয়েছেন সাংবাদিক মজিবুর রহমান রনি।

সাংবাদিক লাঞ্ছিতের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন হাজীগঞ্জ প্রেসক্লাব, চাঁদপুর অনলাইন প্রেসক্লাব, চাঁদপুর অনলাইন সাংবাদিক ফোরাম ও মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস এক্টিভিটিস ফাউন্ডেশন নেতৃবৃন্দরা।

তারা বলেন, সংবাদ প্রকাশের জেরে সংবাদকর্মী মজিবুর রহমান রনিকে প্রকাশ্যে, খোদ নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও পুলিশের উপস্থিতিতে লাঞ্ছিত করার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। সেই সাথে প্রশাসনের কাছে দাবি জানাই, অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে তাদেরকে বিচারের আওতায় আনা হোক।

হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলমগীর হোসেন রনি বলেন, এখনও অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।