সোমবার ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং ৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

মাইকের ব্যবসার অন্তরালে……… মাদক ব্যবসা, তুরাগে চন্ডাল ভোগে বাংলা মদ সহ শাপলা মাইকের মালিক বাক্কা মিয়া আটক…..

আপডেটঃ ৭:২৯ অপরাহ্ণ | মে ১৫, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর তুরাগে চন্ডাল ভোগ গ্রামে  শাপলা মাইকের মালিক মো: বাক্কা মিয়া ওরফে বাকা (৫২) বিপুল পরিমান বাংলা (চোলাই) মদ সহ তুরাগ থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) তুরাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) গনমাধ্যমকে জানান,মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৯টার দিকে তুরাগ থানার চন্ডাল ভোগ গ্রামের আরাফাত সুপার মার্কেটের মাইকের দোকান থেকে তাকে বাংলা মদ সহ হাতেনাতে আটক করে। আজ বুধবার সকালে তাকে মাদক মামলায় আটক দেখিয়ে ঢাকার আদালতে পাঠানো হয়। ডিএমপি তুরাগ থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো: ওয়াজিউর রহমান গসমাধ্যমকে বলেন, মঙ্গলবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে তুরাগ থানার একদল পুলিশ এসআই মো: শাহীন এর নেতৃত্বে তুরাগের আরাফাত সুপার মার্কেট এর ভেতর অভিযান চালায়। এসময় পুলিশ ওই মার্কেটের ভেতরে শাপলা মাইক এর দোকানে অভিযান চালালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক সেবনকারী মো: নূরা মিয়া ও শাপলা মাইকের মালিক মো: বাক্কা মিয়া ওরফে বাকাকে ধরতে অভিযান চালায়। কৌশলে নুরা ও তার সঙ্গীরা পালিয়ে গেলে বাকা মিয়াকে পুলিশ আটক করে। এসময় তুরাগ থানার এসআই মো: শাহীন সঙ্গীয় ফোর্স সহ তার দোকান ও ক্যাশ তল্লাশী চালিয়ে বড় দুইট পলিথিন ব্যাগে ভর্তি অবস্থায় ২ থেকে ৩ লিটার বাংলা চোলাই মদ সহ তাকে আটক করে । এসময় পুলিশকে ম্যানেজ করার জন্য মাদক ব্যবসায়ীরা দহরম মহরম চালায়। মার্কেটের ভেতরে অন্ধকারে কথপকথন ও শলামর্শ দফায় দফায় চালায়। পরিশেষে মাদকসহ আসামীকে ছেড়ে দেয়ার চেষ্টা,টাকা পয়সার  দেন দরবার করার সময় স্থানীয় বাসিন্দারা ঘটনার টের পেয়ে উত্তরা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) নাবিদ কামাল শৈবাল, এডিসি মো: কামরুজ্জামান, এসি শচীন মল্লিক ও তুরাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)মো: নুরুল মোত্তাকিনকে বিষয়টি অবহিত করলে পুলিশ দেরিনা করলে ব্যাগ ভর্তি মদ সহ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।ওসি মো: নুরুল মোত্তাকিন আজ গনমাধ্যমকে বলেন, মদসহ আটক ব্যবসায়ী বাক্কাকে জিঞ্জাসাবাদ শেষে আজ বুধবার ঢাকার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। তার বিরুদ্বে মাদক আইনে তুরাগ থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে।আরাফাত সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ী ও স্থানীয়রা অভিযোগ করে গনমাধ্যমকে বলেন, ধৃত বাক্কা মিয়া একজন মাদক সেবনকারীও ব্যবসায়ী। সে দীর্ঘ দিন ধরে এর সাথে জড়িত। তার দোকানে প্রতিনিয়তই বহিরাগতদের আড্ডা হয়। ইতোপূর্বে এই মার্কেট থেকে তুরাগ ও উত্তরা থানা পুলিশ ইয়াবা ও মদ সহ দিপু সহ একাধিক মাদকব্যবসায়ী ও সেবনকারীকে আটক করেছে। এছাড়া সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এখানে মাদক ব্যবসায়ী,সেবনকারী ও আড্ডাবাজদের অভয়ারণ্যে পরিনত হয়। একটি সংশ্লিষ্ট সুত্র গনমাধ্যমকে জানায়, পুলিশের হাতে ধৃত শাপলা মাইকের মালিক বাক্কা মিয়া ইতিপূর্বে টঙ্গী বাজারে বসবাস করতো। বেশ কিছু দিন ধরে সে তুরাগের চন্ডালভোগ গ্রামে এসে আস্তানা গাড়ে। সংসার জীবনের বিয়ে করেছেন দুইটি। মাইকের ব্যবসার অন্তরালে মাদক ব্যবসা। নেশা তার মাইক বাজানো আর বাংলা মদ সেবনকরাই তার আসল নেশা।মাঝে মধ্যে পুলিশ ও ডিবি পুলিশ এখানে অভিযান চালায়।