বুধবার ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের চাপ সৃষ্টি করে পরীক্ষা নেয়ার অভিযোগ..করোনা মহামারীতেও অনিয়মের খেলায় মেতে উঠেছে টঙ্গীর সাহাজ উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজ…

আপডেটঃ ৩:৩৬ অপরাহ্ণ | জুন ১৮, ২০২০

শেখ রাজীব হাসান, গাজীপুর প্রতিনিধি : টঙ্গীর একটি গণবসতিপূর্ণ এলাকা হওয়ার কারণে টঙ্গীর সাহাজ উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা প্রায় ৪ হাজার। সারা বিশে^ করোনা ভাইরাসে চলমান পরিস্থিতিতে মোকাবেলা করতে সাধারণ মানুষ আজ লকডাউনে ঘরবন্ধি অবস্থায় আছে। এরই মাঝে বাংলাদেশে বিভিন্ন এলাকা ভিত্তিক রেডজোন ঘোষণা ও জনসম্মুখ থেকে এড়িয়ে চলার জন্য সরকারি নিষেধাজ্ঞা। সরকারিভাবে আগামী ৮ই অক্টোবর সকল স্কুল কলেজ বন্ধ ঘোষণা থাকা সত্ত্বে নিয়ম নীতি তোয়াক্কা না করে নানা অনিয়মে মেতে উঠেছে টঙ্গীর সাহাজ উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজ।

ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকরা বলেন, তাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করে প্রথম সাময়িক পরীক্ষার জন্য জুন মাস পর্যন্ত বেতন ও পরীক্ষার ফি পরিশোধ করে প্রবেশপত্র নিয়েছে। গত ১৩ জুন সাহাজ উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ৩টি বিষয়ের জন্য প্রশ্নপত্র ও খাতা দেওয়া হয়েছে। তা বাসায় বসে পরীক্ষা দিয়ে গতকাল মঙ্গলবার জমা দিয়ে পুর্নরায় ৩টি বিষয়ের খাতা ও প্রশ্নপত্র নিয়ে যান। বেতন ও পরীক্ষার ফি পরিশোধ করে পরীক্ষা না দিলে তাদের বার্ষিক পরীক্ষায় এলাও করা হবে না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ছাত্রছাত্রীরা বলেন, দীর্ঘ প্রায় ৪ মাস করোনা ভাইরাসের কারণে আমার বাবা লকডাউনে ঘরবন্ধি ছিল। আমাদের সংসার চলতে হিমসীম খেতে হচ্ছে। এরই মাঝে বিদ্যালয় থেকে চাপ সৃষ্টির কারণে আমার মায়ের কানের জিনিস বিক্রি করে বিদ্যালয়ের ৪ মাসের বেতন ও পরীক্ষার ফি বাবদ ২৫শ’ টাকা পরিশোধ করতে হয়েছে। এ ঘটনায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো: দেলোয়ার হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোন সদউত্তর দিতে পারেননি।

এ বিষয়ে গাজীপুর জেলা শিক্ষা অফিসার রেবেকা সুলতানার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অনলাইনে মাধ্যমে পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে। কিন্তু কোন বেতন ও পরীক্ষার ফি নিয়ে লিখিত কোন পরীক্ষা নিতে পারবে না এবং ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের বিদ্যালয়ের বেতনের জন্য চাপ সৃষ্টি করতে পারবে না। এ রকম কোন অভিযোগ পাওয়া গেলে ওই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে গাজীপুর জেলা প্রশাসক এস.এম তরিকুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হলে প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এছাড়াও গাজীপুর জেলা অতিরিক্ত শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম আজাদ ও গাজীপুর সদর থানা উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ জাকি বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে এ প্রতিনিধিকে জানান।