বুধবার ২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

মণিরামপুরে আল-আমিন পার্কে মাদক ও অনৈতিক কর্মকান্ড চালানোর অভিযোগ….

আপডেটঃ ১:৫৭ অপরাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২০

বিশেষ প্রতিনিধি : প্রশাসনের নামে অর্থ হাতিয়ে মণিরামপুর পৌর শহরের বহুল আলোচিত একটি কথিত বিনোদন পার্কের মধ্যে মাদকের কারবার ও অনৈতিক কর্মকান্ডসহ একাধিক স্থানে অপরাধের ঘটনা ঘটলেও ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়না মর্মে উপজেলা পরিষদের মাসিক আইন-শৃংঙ্খলা কমিটির সভায় অভিযোগ করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, অপরাধের স্পট চিহ্নিতপূর্বক বিষয়টি তদন্ত করে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সোমবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসানের সভাপতিত্বে উপজেলা পরিষদের হলরুমে মাসিক আইন শৃংঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও আইন-শৃংঙ্খলা কমিটির উপদেষ্টা নাজমা খানম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু, সহকারী কমিশনার ভূমি খোরশেদ আলম চৌধুরী, সদস্য থানার ওসি (তদন্ত) শিকদার মতিয়ার রহমান, প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্যরে প্রতিনিধি সাবেক চেয়ারম্যান জিএম মজিদ, মণিরামপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি ফারুক আহাম্মেদ লিটন প্রমুখ। জানতে চাইলে আইন-শৃংঙ্খলা কমিটির উপদেষ্টা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু বলেন, আইন-শৃংঙ্খলা কমিটির সভা চলাকালে প্রতিমন্ত্রীর প্রতিনিধি জিএম মজিদ অভিযোগ করেন পৌর শহরের তাহেরপুর এলাকায় অবস্থিত কথিত আল-আমিন পার্কের মধ্যে প্রশাসনের নামে টাকা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মাদকের কারবারসহ নানা অনৈতিক কর্মকান্ড চলে আসছে। ইতিপূর্বে ওই পার্কের মধ্যে একাধিকবার ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চালিয়ে নানা অপরাধ হাতে-নাতে ধৃত করে জরিমানাসহ পার্কের কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়। অথচ, চলমান করোনা পরিস্থিতির মধ্যে পূর্বের কার্যক্রম শুরু করে পার্ক কর্তৃপক্ষ। স্থানীয় অনেকে জানান, বিশাল একটি বাগানের চারিদিকে প্রাচীর দিয়ে আল-আমিন আনন্দ বিনোদন পার্ক নামকরণ করা হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক শিক্ষকসহ কয়েকজন জানান, ওই পার্কের মধ্যে টাকার বিনিময়ে ঘন্টা চুক্তিতে যে সমস্ত কর্মকান্ড চালানো হয় তা প্রকাশ করার মত নয়। প্রতিবাদ করতে গেলে মামলা-হামলার আশংকা রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, প্রভাবশালীদের পাশাপাশি কয়েকটি কিশোর গ্যাংকে হাত করে সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যার পরেও নানা অপরাধ কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে কথিত পার্ক কর্তৃপক্ষ। এছাড়া পৌর শহরের আরো কয়েকটি স্থানে এমন অপরাধ কর্মকান্ড চালানো হচ্ছে মর্মে আইন-শৃংঙ্খলা কমিটির সভায় অভিযোগ করা হয়। অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রতিমন্ত্রীর প্রতিনিধি আইন-শৃংঙ্খলা কমিটির সদস্য জিএম মজিদ বলেন, বিষয়টি রেজ্যুলেশন ভুক্তসহ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অপরাধের স্পট চিহ্নিত করে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।