বুধবার ২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং ৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

শ্রীপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি খন্দকার ইমামের নেতৃত্বে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

আপডেটঃ ৩:৩৫ অপরাহ্ণ | অক্টোবর ১৭, ২০২০

রকিবুল হাসান, শ্রীপুর (গাজীপুর): গাজীপুরের শ্রীপুরে পৌর ভাংনাহাটি ৪নং ওয়ার্ডের বিট পুলিশিংএর উদ্যোগে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। আজ শনিবার সকাল ১১ টায় সমাবেশটি শ্রীপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার ইমাম সাহেবের নেতৃত্বে ও সাব ইন্সপেক্টর দেলোয়ার এবং এ এস আই শাহিন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানটি পরিচালিত হয়।এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং এর সাধারন সম্পাদক জনাব মাসুদ আলম ভাঙ্গী। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং এর সম্মানিত সদস্য ও যুবলীগ নেতা জনাব রাশেদুল হাসান রাশেদ ও পৌর ৪ নং ওয়াড কমিউনিটি পুলিশিং এর প্রচার সম্পাদক শেখ সোহাগ ভান্ডারী। সময় বিশেষ বক্তব্য রাখেন কালিয়াকৈর ও শ্রীপুর সার্কেল এস,পি, মামুন অর রশিদ এবং শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের নবনিযুক্ত( ইউ এন ও), তাসলিমা মোস্তারী। বক্তব্যে শ্রীপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার ইমাম হোসেন বলেন সারা দেশে উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর নয় মাসে প্রতিদিন গড়ে, তিনটির বেশি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। আর অক্টোবরে এ সংখ্য বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। নারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন ধর্ষণের মূহুর্তে নিজেকে রক্ষা করার উপায় সমূহ ও কৌশলঃ (১). ভীত হয়ে প্রথমেই গা ছেড়ে না দিয়ে যতটা সম্ভব মাথা ঠান্ডা রাখুন। (২). ধাক্কা, থাপ্পড়, আঁচড় না দিয়ে… পারলে নাক বরাবর ঘুষি দিন। হাত মুষ্ঠি ঘুষি নয়, আঙ্গুল প্যারালাল রেখে লম্বালম্বি ঘুষি। এতে সে বেশ কিছুক্ষণের জন্য ব্যালেন্স হারাবে। (৩). যতটা সম্ভব পুরো সময়টা চিৎকার করুন। (৪). জোরে তালি দেওয়ার মতো করে দুই হাত দিয়ে একই সাথে তার দুইকানে জোরে থাপ্পড় দিন। এতে সে পুরো ব্যালেন্স হারাবে। (৫).যখন সে আপনার দুই হাতের উপর হাত রেখে মুখের কাছে মুখ নিয়ে আসবে, তখন কপাল দিয়ে তার মুখে জোরে আঘাত দিন৷ এতে তার দাঁত দিয়েই তার ঠোট ও জিহবা কেটে যাবে (৬). কাপড়ে সেফটি পিন থাকলে ঠান্ডা মাথায় সেগুলো গলায় ঢুকিয়ে দিন। অজ্ঞান হয়ে যাবে। (৭). ধর্ষক যখন উভয়ের কাপড় অপসারণ করবে সুযোগ বুঝে তার অন্ডকোষ বরাবর আপনার হাঁটু দিয়ে কিক করুন। এতে সে লুটিয়ে পড়বে। (৮). চুলে চিকন ক্লিপ থাকলে সেগুলো একটু কৌশনে গলায় অথবা কানের গোড়ায় ঢুকিয়ে দিন। এতে অজ্ঞান হয়ে যাবে। (৯). আপনার হাত বেঁধে ফেলার আগেই শেষ অস্ত্র আপনার হাত৷ দুই হাতের তর্জনী আঙুল ধর্ষকের দুই চোখের গোড়ায় সোজাসুজি প্রেসার দিয়ে ঢুকিয়ে চোখ নষ্ট করে দিন৷।মনে রাখবেন অন্তত আপনার সম্মানের কাছে পৃথিবীর সব খারাপ অপশক্তিই কিছুই না। তিনি আরও বলেন সমাজে সাধারণত, ধর্ষণের বিচার স্থানীয় মেম্বার, চেয়ারম্যান করে থাকে, এতে করে যারা প্রকৃত অপরাধী তাদের অপরাধ ধামাচাপা পড়ে যায় অনেক সময়। তাই নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের কোন ঘটনা ঘটলে সরাসরি থানায় অভিযোগ করবেন অথবা বিট পুলিশিং এর সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল পুলিশের সহায়তা নিন।