শুক্রবার ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ ইং ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্থানীয় এমপির দ্বন্দ্ব…

আপডেটঃ ২:৩৭ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ১৮, ২০২০

  নামফলক নিয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্থানীয় এমপির দ্বন্ধ…….

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ নামফলক নিয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্থানীয় এমপির দ্বন্ধ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের দাবী উন্নয়ন প্রকল্পটি আমার। এমপির দাবী আমার। চেয়ারম্যানের প্রকল্প উদ্বোধনী নামফলকটি ভাঙ্গা নিয়ে  উভয়পক্ষের দ্বন্দ্বেের  কারণে শেষ পর্যন্ত কাজটি আটকে যাওয়ার শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সেই এমপির বিরুদ্ধে উন্নয়ন প্রকল্পটির নামফলক ভাঙচুর করার অভিযোগ তুলেছেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। আর এমপি বলছেন, ‘আমি কি মিস্ত্রী নাকি?’।
জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলায় অবস্থিত সোনারগাঁও জি আর ইনিষ্টিটিউশনের মেইন গেইট ও সীমানা প্রাচীন নির্মাণ হচ্ছিল জেলা পরিষদের অর্থায়নে। কাজটির নামফলকে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন নাম ছিল। সন্ধায় কে বা কারা সেই নামফলকটি ভাঙচুর চালিয়েছেন।
নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বলেন, আমি কাজটির উদ্বোধন করেছি বলে হিংসায় নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা নিজে দাঁড়িয়ে থেকে দারোয়ানদের দিয়ে নামফলকটি ভাঙ্গিয়েছে। সে নিজেকে সোনারগাঁয়ের সম্রাট মনে করে। সে চায় সব স্থানেই তার নাম থাকতে হবে। কাজটি জেলা পরিষদের অর্থায়নে হচ্ছে। ঠিকাদার যদি গেইট না লাগায়, তাহলে বিল পাশ হবে না। আমি ব্যাপারটি এমপি, এসপি, ডিসি সকলকেই জানিয়েছি। কালকে মন্ত্রণালয়ে জানাবো। এরপর সিদ্ধান্ত নিবো কি করা যায়।
ভাংচুরের ব্যাপারটি অস্বীকার করে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা লাইভ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘আমি কি মিস্ত্রী না কি? আমি নামফলক ভাঙ্গবো। এটা জেলা পরিষদের উন্নয়ন কাজ কোথা থেকে আসলো? এটা আমার প্রজেক্ট। আমি ডিইউ দিয়ে পাশ করিয়েছি। আমার প্রজেক্টে উনি নাম দিবে কেন? তার যদি স্পেশাল কোন প্রজেক্ট থাকে, তাহলে সেখানে গিয়ে উদ্বোধন করতে পারে। আর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কি আমার উপরে নাকি?’
স্থানীয়রা ধারণা করছে, এমপি আর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের রেষারেষির কারণে কাজটি বন্ধ হয়ে যেতে পারে।’