শনিবার ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

তুরাগে এক ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার…

আপডেটঃ ২:৩১ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ২১, ২০২০

মোঃ ইলিয়াছ মোল্লাঃ রাজধানীর তুরাগে এক গৃহবধূকে ধর্ষন মামলার পলাতক আসামী সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন (৫০)কে আটক করেছে তুরাগ থানা পুলিশ । মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তুরাগ থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক ( এস আই ) মোঃ রুবেল শেখ মামলার বরাত দিয়ে জানান, ধর্ষণের শিকার ঐ গৃহবধূর স্বামীর বন্ধু সালাউদ্দিন আহম্মেদ ( শাওন ) । আর এই বন্ধুত্বের সুবাদে বিগত প্রায় ৫মাস পূর্বে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূর কাছ থেকে রড সিমেন্ট দেওয়ার কথা বলে ৪ লক্ষ টাকা নেয় সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন । পরে তাকে রড সিমেন্ট না দিয়ে বিভিন্ন রকম তাল বাহানা করতে থাকে সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন । এক পর্যায় গত ১৭/৭/২০২০ইং তারিখে সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন টাকা ফেরত দিবে বলে ঐ গৃহবধূকে তুরাগের কালিয়ারটেক তার ভাড়া বাসায় খবর দেয় । খবর পেয়ে ঐ দিনই দুপুর ১টার দিকে সরল মনে সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওনের ভাড়া বাসায় আসেন ঐ গৃহবধূ । এর পর এই ভাড়া বাসায় আটকিয়ে গৃহবধূকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন । ধর্ষণ শেষে ভয়ভীতি দেখিয়ে পাওনা টাকা ফিরত না দিয়ে গৃহবধূকে পাঠিয়ে দেয় । এই ঘটনা লোকলজ্জার ভয়ে ঐ সময় গৃহবধূ কাউকে জানায়নি । আর এই ঘটনা লোক সমাজে প্রকাশ করে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে পর্যায় ক্রমে আরও বেশ কয়েকবার একই কায়দায় তাকে ধর্ষণ করে সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন । এক পর্যায় ঐ গৃহবধূ গর্ভবতী হয়ে পড়ে । গর্ভবতী হওয়ার প্রায় ৩মাস পর গৃহবধূর পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বিষয়টি টের পেয়ে গৃহবধূকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে গৃহবধূ মুল ঘটনা পরিবারের সদস্যদের খুলে বলেন, তারপর পরিবারের সদস্যরা গৃহবধূকে সাথে নিয়ে গত ২৯/১০/২০২০ইং তারিখে তুরাগ থানায় উপস্থিত হয়ে ধর্ষণ আইনে একটি মামলা দায়ের করেন, যার মামলা নং- ২৬ । এদিকে মামলা হওয়ার পর কৌশলে গাঁ ঢাকা দেয় সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন । এর পর হন্যে হয়ে সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওনকে খুঁজতে থাকে পুলিশ । দীর্ঘ প্রায় ২০ দিন চেষ্টা চালিয়ে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় বৃহস্পতিবার ( ১৯ নভেম্বর ) দিন গত রাত ৯টার দিকে উত্তরার ১১নং সেক্টরের একটি জিম সেন্টার থেকে সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওনকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় পুলিশ । গ্রেফতারকৃত সালাউদ্দিন আহম্মেদ শাওন, মুন্সিগঞ্জ জেলার, সিরাজদিখান থানার, খাসকান্দি মধ্যর চর গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে । বর্তমানে তুরেগের কালিয়ারটেক এলাকার ১৯/২১নং বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করতো । তার বিরুদ্ধে আশুলিয়া ও উত্তরা থানায় নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের আরও কয়েকটি মামলা রয়েছে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা এস আই রুবেল শেখ ।