মঙ্গলবার ১৫ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

খাস কামরায় নারীকে ‘শ্লীলতাহানি’ করেন বিচারক

আপডেটঃ ১০:০৩ অপরাহ্ণ | জানুয়ারি ১৫, ২০২১

মোঃরফিকুল ইসলাম মিঠু: খাস কামরায় ডেকে মামলার বাদী ভুক্তভোগী নারীকে পুলিশি হয়রানীর ভয় দেখিয়ে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে ঢাকার সিএমএম আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট কনক বড়ুয়ার বিরুদ্ধে। বুধবার (১৩ জানুয়ারি) মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল ৩-এ বিচারাধীন এক মামলার বাদীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ম্যাজিস্ট্রেট কনক বড়ুয়াকে ছুটিতে পাঠানো হয়।
মঙ্গলবার খাস কামরায় এক নারী বিচার প্রার্থীকে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ উঠেছে ঢাকার সিএমএম আদালতের এই বিচারকের বিরুদ্ধে। এরইমধ্যে বিচারক কনক বড়ুয়ার বিরুদ্ধে লিখিত আকারে মুখ্য মহানগর হাকিম, জেলাজজ ও আইনজীবী সমিতিতে অভিযোগ দিয়েছে ওই নারী।
অভিযোগপত্রে ভুক্তভোগী নারী উল্লেখ করেন, গত ১২ জানুয়ারি আদালতে স্বাক্ষী প্রদানের তারিখ ছিল। সেদিন তিনি ও তার পরিবার সিএমএম-৩২ নং কোর্টে উপস্থিত হন। এ সময় ম্যাজিস্ট্রেট কনক বড়ুয়া তাকে স্বাক্ষী প্রদানের কথা বলে তার খাস কামরায় নিয়ে দরজা-জানালা বন্ধ করে দেন। এপর ভুক্তভোগী নারীর দায়ের করা মামলাকে মিথ্যা মামলা উল্লেখ করে সেইসাথে এই মামলা আর কোনও আদালত আমলে নেবে না জানান ম্যাজিস্ট্রেট।
ভুক্তভোগী নারী আরও জানান, আঘাতের স্থান দেখতে চেয়ে ম্যাজিস্ট্রেট কনক বড়ুয়া তাকে বোরকা খুলতে বলেন। পরে তিনি নিজেই ওই নারীর বোরকা খুলে নেন। তারপর তিনি ওই নারীর স্পর্শকাতর স্থানে হাত দিতে শুরু করেন।
এসময় মামলার বাদী ওই নারী আপত্তি জানালে কনক বড়ুয়া তাকে বলেন, ‘তুমি আমার কথা না শুনলে আমি এই মামলা আমলে নেব না এবং তোমাকে পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দেব। আমাকে কেউ কিছু করতে পারবে না।’
তারপর তিনি দ্রুতই ম্যাজিস্ট্রেটের খাস কামরা ত্যাগ করেন বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন ভুক্তভোগী নারী।