সোমবার ১০ই মে, ২০২১ ইং ২৭শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

গাইবান্ধায় বাসা থেকে লাশ উদ্ধারের ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ …

আপডেটঃ ১১:১৭ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ১১, ২০২১

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি: গাইবান্ধায় জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর স¤পাদকের বাড়ি থেকে হাসান আলী নামে এক জুতা ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে গাইবন্ধা সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে নিহতের স্ত্রী। অপহৃত হাসান আলীকে উদ্ধারের পর পুলিশ ফের অপহরণকারীর হাতে তুলে দেওয়ার অভিযোগ করেন তার স্ত্রী। নিহত হাসান আলীর স্ত্রী বিথী বেগম গত ১০ এপ্রিল শনিবার রাতে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মজিবর রহমান, এসআই মোশাররফ ও আওয়ামী লীগ নেতা মাসুদ রানাসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করে। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, গত ৫ মার্চ হাসান আলীকে পাওনা টাকার জন্য জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর স¤পাদক মাসুদ রানা তুলে নিয়ে গিয়ে বাড়িতে আটকে রাখে। থানায় অভিযোগের পর ৭ মার্চ হাসান আলীকে উদ্ধার করে আবারো অপহরণকারী মাসুদ রানার জিম্মায় দেয় পুলিশ। এরপর শনিবার সকালে মাসুদ রানার বাড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় বিচার দাবি করেন নিহতের স্ত্রী ও স্বজনরা। নিজেকে নির্দোষ দাবি করে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মজিবর রহমান অভিযোগের আঙুল তোলেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহফুজার রহমানের দিকে। মজিবর রহমান বলেন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএসআই মোশাররফ হোসেনকে দায়িত্ব দিয়েছেন, এএসআই মোশাররফ হোসেন তাদের নিয়ে এসেছেন এবং তারাই বিচার আচার করেছেন। শনিবার দুপুরে মাসুদ রানাকে বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। আটকের আগে হাসান আলীকে অপহরণের কথা স্বীকারও করেন তিনি। অপহৃত ব্যক্তিকে উদ্ধারের পর অপরাধীর হাতে ছেড়ে দেয়ার ঘটনায় উদ্বিগ্ন সচেতন মহল। গাইবান্ধা নাগরিক পরিষদের সদস্য সচিব এ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম বাবু বলেন, প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন করে দোষী এবং চিহ্নিত ব্যক্তিদের আইনত ব্যবস্থা গ্রহণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গত শনিবার ভোরে হাসান আলী স্বজনদের খুদে বার্তায় জানান, মাসুদ রানা তাকে বাড়িতে আটকে রেখে নির্যাতন করেছে ও থানায় পুলিশের সামনে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়েছে।