মঙ্গলবার ১১ই মে, ২০২১ ইং ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

গাইবান্ধায় অনুমোদনবিহীন ২ শতাধিক ইটভাটা ….

আপডেটঃ ১১:২২ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ১৭, ২০২১

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি: গাইবান্ধার সাত উপজেলায় ১৯টির অনুমোদন থাকলেও অনুমোদনবিহীন দুই শতাধিক ইটভাটাতে ইট পোড়ানো হচ্ছে। এসব ইটভাটার কারণে দিন দিন কমে যাচ্ছে আবাদি জমির পরিমাণ। অনেক জমির মালিক বাধ্য হয়ে ইটভাটাগুলোতে বিক্রি করছে ফসলি জমির উর্বর মাটি। এতে করে একদিকে যেমন পরিবেশের বিপর্যয় ঘটছে, অন্যদিকে হুমকির মুখে পড়ছে খাদ্য নিরাপত্তা। অনুমোদনহীন এসব ইটভাটার মাটির জোগান দিতে গিয়ে হারিয়ে যাচ্ছে উর্বর ফসলি জমি। গত বছর ভালো আবাদ হয়েছিল যে জমিগুলোতে তেমন অনেক জমিতেই এখন হচ্ছে না ফসলের চাষ। কৃষি বিভাগের নির্দেশ অমান্য করে ইট তৈরীর জন্য উর্বর আবাদি জমির মাটি কেচে নেয়ায় ফসলি জমির কমে যাচ্ছে। জানা যায়, ইট ভাটার মালিকরা প্রথমে কয়েকজন কৃষকের সাথে আলোচনার মাধ্যমে মোটা অংকের টাকায় মাটি কেনার চুক্তি করেন। ওই কৃষকদের জমি থেকে মাটি কেটে নেয়ার পর সেই জমির আশেপাশের জমিগুলো উঁচু জমিতে পরিণত হয়ে হারিয়ে ফেলে পানি ধারণ ক্ষমতা। ফলে আবাদের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। ফলে বাধ্য হয়েই ইটভাটার মালিকদের কাছে মাটি বিক্রি করছে অন্য কৃষকরাও। ইটভাটার আগ্রাসনে শুধু ফসলি জমির মাটিই সাবাড় হচ্ছে না, আবাসিক এলাকা, প্রধান সড়কের পাশে ও ফসলি জমির মাঝে ভাটা স্থাপন করায় মারাত্নকভাবে দুষিত হচ্ছে পরিবেশ। ক্ষমতা হারাতে বসেছে ফলজ গাছপালা। এছাড়াও ইটভাটাতে ব্যবহৃত অবৈধ যানবাহন অবাধ চলাচলের কারণে নষ্ট হতে বসেছে গাইবান্ধার সাত উপজেলার অধিকাংশ কাঁচা-পাকা সড়ক। পরিবেশ অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বেশ কয়েকটি ভাটায় অভিযান পরিচালনা করা হলেও অভিযান শেষে আবারো সেসব ভাটায় পোড়ানো হচ্ছে ইট। ভাটা মালিকদের দাবি, বিভিন্ন অফিসকে ম্যানেজ করার জন্য জেলা সমিতিকে বাৎসরিক চাঁদা দিয়ে তারা চালাচ্ছেন এসব অবৈধ ভাটা। গাইবান্ধা জেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুল লতিফ হক্কানী বলেন, দীর্ঘ প্রক্রিয়ার কারণে অনুমোদন না পাওয়ায় বাধ্য হয়ে চালাতে হচ্ছে অবৈধ ইটভাটা। এ ব্যাপারে কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তর উপ পরিচালক মো. মাসুদুর রহমান বলেন, এভাবে ফসলি জমির মাঝে ইটভাটা স্থাপন করে জমির মাটির উর্বর উপরিভাগ কেটে নিয়ে গেলে সেসব জমিতে ৮ থেকে ১০ বছরেও ফসল ফলানো সম্ভব নয়। গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন বলেন, জেলায় এভাবে ইটভাটা গড়ে ওঠা অপ্রত্যাশিত। অনুমোদনহীন ইটভাটা বন্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।