মঙ্গলবার ১৫ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

কিশোর গ্যাং থেকে আতংকে সাধারণ মানুষ-লোকজনকে মারধর, চুরি-ছিনতাই, মাদক ব্যাবসা এরপর সক্রিয় একটি বাহিনী- কিশোর গ্যাং ……….

আপডেটঃ ৭:৫৭ অপরাহ্ণ | জুন ০৯, ২০২১

এস.এম.এ মনসুর মাসুদ, -:গাজীপুরের টঙ্গীতে কিশোর গ্যাং সদস্যরা সক্রিয়। প্রথমে শুরু করে আড্ডা। এরপর রাস্তায় নারী উত্ত্যক্ত, মাদক সেবন ও মানুষকে হয়রানি। একপর্যায়ে লোকজনকে মারধর, চুরি-ছিনতাই, মাদক ব্যাবসা এরপর সক্রিয় একটি বাহিনী।

স্থানীয় সূত্রগুলো বলছে, প্রতিটি কিশোর দল বা বাহিনীর পেছনে আছেন এলাকার একশ্রেণির ‘বড় ভাই’। তাঁরা কোনো না কোনোভাবে স্থানীয় রাজনীতিতে যুক্ত। এই বড় ভাইদের অধীনে থাকে ১৫ থেকে ২২ বছর বয়সী কিশোর ও তরুণেরা। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, মানুষকে হয়রানি, মারধর বা রাজনৈতিক মিছিলে এসব কিশোর–তরুণকে ব্যবহার করেন তাঁরা।

কিশোর গ্যাং সক্রিয় এলাকা —
টঙ্গীর ‘সবচেয়ে অপরাধপ্রবণ’ এলাকা বউবাজার, পূর্ব আরিচপুর ও নদীবন্দর। এখানে তুরাগ নদের পাশ ঘেঁষে হাঁটার পথ, তুরাগবাজার, ঢাকা ডাইংয়ের পেছনের দিকসহ আশপাশের এলাকায় সারাক্ষণই থাকে কিশোরদের আড্ডা। অন্তত ১৫টি দল এখানে গড়ে উঠেছে। একেকটি দলে ১০ থেকে ১২ জন করে সদস্য।

আছে টঙ্গীর পাগাড় টঙ্গীর মধুমিতা, ভূঁইয়াপাড়া, জামাই বাজার-সহ আশপাশে আছে আরও ৬টি কিশোর বা উঠতি বয়সের তরুণদের দল। টঙ্গী বাজার এলাকায় ভরানে এখনো সক্রিয় তারা, টঙ্গীর ব্যস্ততম এলাকা টঙ্গী বিসিক ও নতুনবাজার। টঙ্গীর আরেক এলাকা এরশাদনগর। অনুসন্ধানে দেখা যায়, আটটি ব্লকে বিভক্ত এ এলাকায় ছোট-বড় ছয় থেকে সাতটি বাহিনী রয়েছে। টঙ্গীর কলেজগেট, সফিউদ্দিন রোড, মুক্তারবাড়ি রোড, আছে বেশ কিছু কিশোর ও উঠতি বয়সের তরুণ। বিভিন্ন সময় মারামারি বা আধিপত্য বিস্তারে এসব কিশোর–তরুণকে ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে কথিত বড় ভাইদের বিরুদ্ধে। এর বাইরে টঙ্গীর খাঁ পাড়া, দত্তপাড়া আউচপাড়া সহ টঙ্গী মিলগেইট নামার বাজার এলাকায় রয়েছে এসব কিশোর গ্যাং এর সন্ধান।

সবচেয়ে অপরাধপ্রবণ এলাকা টঙ্গী। এখানে দখলবাজি, আধিপত্য বিস্তার, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপকর্মে কিশোর বা উঠতি বয়সী তরুণদের উৎপাতের অভিযোগ আছে এলাকার রাজনৈতিক বড় ভাইদের উপর। তাই সাধারণ মানুষ চান এদের প্রশ্রয়দাতার না বেরিয়ে আসুক এবং আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তি দেওয়া দরকার।