বুধবার ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার গোয়েন্দা সংবাদ সোসাইটি প্রতারক চক্র …..

আপডেটঃ ৮:৪২ অপরাহ্ণ | জুন ২১, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার:  মোঃ শাকিল……..:-আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংবাদসোসাইটি  এক স্কুলছাত্রের কাছ থেকে ১  লাখ ৪০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। চাকরি দেওয়ার কথা বলে ভুলভাল বুঝিয়ে তার থেকে টাকা নিয়েছে।

সরকারি চাকরির কথা বলে প্রথমে এক বছর মেয়াদের  ৬০০০ টাকা চাই। তারা সারাদেশে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখা মেলে ফেসবুকে। হকি টকি জন্য ৬০০০টাকা প্রথমে নাই, ডিবি পুলিশ, Rab, গোয়েন্দা পুলিশ, পোশাকের জন্য ১০,৫০০ টাকা, ট্রেনিংয়ের জন্য ১০,০০০ টাকা, পিস্তলের ও লাইসেন্স,২০,০০০টাকা নেয়। বুলেট জাকেট জন্য ৫,০০০ টাকা, হাতিয়ে নিয়েছে।৩ মাস ট্রেনিং এর পর প্রতি মাসে ৩৭ হাজার টাকা করে ভাতা  আসবে।
ব্যাংকে তোমার আসবে ১ লক্ষ ১১ হাজার টাকা সরকারি হয় চাকরি। প্রথমে এস আই, পথে চাকরি দিবে । কিছু দিন পরে টাকা জমা দেওয়ার পরও বলে,যে আরও বড় পদে তোমাকে দিয়ে দিব আরো সরকারি ফ্রি ২১ হাজার টাকা জমা দিতে হবে।

পুলিশ ভেরিফিকেশন করতে হবে আরজেন করতে হলে ৬০০০টাকা লাগবে, তাড়াতাড়ি করো নইলে তো আমি চলে যাব।

আমরা তোমার পুলিশ ভেরিফিকেশন, পিস্তলের লাইসেন্স, ডিবি জ্যাকেটের, হকি টকি সবকিছু আমাদের কাছে।
আমি তো আপনার মত শপ টাকা জমা দিয়ে দিয়েছি ২১ হাজার টাকা, জনিং এর জন্য ১০.৫০০টাকা জমা দিতে হবে। তা নাহলে চাকরি হবে না। এসপি মনির খান এক প্রতারক চক্রের সদস্য, আক্তারুজ্জামান খান চক্রের মূল হোতা, তিনি বিভিন্ন পুলিশ সুপার,Rab. কমিশনার এসপি ডিসির সাথে ছবি তোলে ফেসবুকে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার গোয়েন্দা সংবাদ সোসাইটির নিজেকে পরিচয় দেন। তিনি বলেন আমি মহাসচিব গোয়েন্দা সোসাইটির।

ভুক্তভোগী কাজ থেকে প্রায় ১,৪০,০০০টাকা হাতিয়ে নেয়। ফাস্টে ফেসবুকে মেসেঞ্জারে কথা বলে আরেকজন ইমুতে এসপি আইডি খুলে নিজেকে পরিচয় দেন। সাধারণ মানুষদেরকে এভাবে তারা ঠকা।  

সবকিছু তারপর সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সামনে দাঁড় করিয়ে রাখে। ধার করার পর ওদের ফোনে ফোন দেওয়ার সত্বেও ফোন আর রিসিভ করেনা।

ভুক্তভোগী অভিযোগ যে আমার মত আর কেউ যেন তাদের এই ফাঁদে পারোনা । আমার সব টাকা-পয়সা নিয়ে গেছে আমার চাকরি আর হলো না এখন আমি আর নিঃস্ব।

ভুক্তভোগী সরকার ও পুলিশ প্রশাসন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আমার একটাই অনুরোধ এই প্রতারক চক্র কে খুব দ্রুততার সাথে। ঋণের আওতায় আনা হোক তাদের বিচার চাই।
তাদের হেড অফিস বলে দক্ষিণ বাড্ডা, এস এম টাওয়ার , দ্বিতীয় তলায় বলে জানতে পারি।