মঙ্গলবার ১১ই মে, ২০২১ ইং ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

সিদ্ধিরগঞ্জের চিটাগাং রোড শিমরাইলে স্বর্ণ ব্যবসার আড়ালে প্রিয়া জুয়েলার্স মালিক প্রদীপ কুমারের নানা অপকর্ম আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ

আপডেটঃ ৯:৩২ অপরাহ্ণ | আগস্ট ১৯, ২০১৬

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি:মোঃ সোহেল রানা।:
সিদ্ধিরগঞ্জ শিমরাইল মোড় চাঁন সুপার মার্কেটে প্রিয়া জুয়েলার্স এর মালিক প্রদীপ কুমার ধর স্বর্ণ চোরাকারবারীদের সাথে গোপন আঁতাত করে নিশ্চিন্তে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। রাতা রাত্রি আঙ্গুল ফলে কলা গাছ ভ’মির পল্টের ভিতরে ৬ তরা ভবন স্বর্ণ বন্দক রেখে সুদ ব্যবসাও চালাচ্ছে প্রদীপ কুমার। তার বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এক শ্রেণীর নারীদের কাছে বাকীতে স্বর্ণের গহনা বিক্রি করে সখ্যতা গড়ে তুলে দেহ ভোগ করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। আটি ভূমি পল্লী এলাকায় তার মালিকানাধিন ৬ তলা বাড়ীতে চলছে দেহ ব্যবসা। নকল স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রদীপ কুমার একজন নারী লিপ্সু ব্যক্তি বলে জানা গেছে।
নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্রে জানা গেছে, প্রিয়া জুয়েলার্স এর মালিক প্রদীপ কুমার ধর নকল স্বর্ণ ব্যবসার সাথে জড়িত। আন্তর্জাতিক স্বর্ণ চোরাকারবারী চক্রের সদস্যদের সাথে তার রয়েছে গোপন আঁতাত। চোরাই স্বর্ণ কম দামে কিনে প্রদীপ কুমার রাতা রাতি টাকার কুমিড় বনে গেছে। স্বর্ণ বন্দক রেখে সুদের ব্যবসা করছে সে। তার কাছে স্বর্ণ বন্দক রেখে টাকা নিয়ে বহু লোক গ্রতিগ্রস্থ হয়েছে। টাকা পরিশোধ করার পর বন্দক রাখা আসল স্বর্ণ আতœসাত করে প্রদীপ কুমার নগল স্বর্ণ ফিরত দেয় এমন অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তার দোকানে সুন্দরী পরস্ত্রী স্বর্ণের গহনা কিনতে গেলেই ভাব জমিয়ে পেলে। এমনকি নিজ ইচ্ছায় বাকীতে গহনা বিক্রি করে সুন্দরী নারীদের কাছে। সময় মত টাকা পরিশোধ না করতে পারলেও নারী লিপ্সু প্রদীপ কুমার আরো বাকীতে গহনা বিক্রি করতে আগ্রহ প্রকাশ করে সখ্যতা গড়ে তুলে। এক পর্যায় টাকা পাওনা নারীদের দেহ ভোগ করার ফন্দি ফিকির করে প্রদীপ। কৌশলে আটকিয়ে বহু নারীর দেহ ভোগ করেছে প্রদীপ। এসব ঘটনা নিয়ে তার সাথে একাধিকবার ঝামেলাও হয়েছে। তার নারী লিপ্সুতার কারণে প্রথম স্ত্রী চলে গেছে বলে সূত্রটি জানায়। এ ছাড়াও আটি ভূমি পল্লীতে তার ৬ তলা বাড়ীতে চলছে দেহ ব্যবসা। বাড়ীর মালিক প্রদীপের সহযোগীতায় মক্কীরানীরা কয়েকটি ফ্ল্যাটে মিনি পতিতালয় গড়ে তুলেছে। সুন্দরী পতিতাদের সাথে বিনা পয়সায় ফুর্তি করে বাড়ীর মালিক প্রদীপ। একজন স্বর্ণ ব্যবসায়ী হওয়ায় তার অপকর্ম রয়ে গেছে আড়ালে। তাই সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে চোরাই স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রদীপ কুমারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতন মহল।