শনিবার ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Ad

সর্বশেষঃ

হেলে পড়েছে কল্যাণপুরের মিজান টাওয়ার

আপডেটঃ ১০:১৬ অপরাহ্ণ | মে ২৮, ২০১৪

ঢাকা: রাজধানীর কল্যাণপুরের ১৪ তলা মিজান টাওয়ারটি খানিকটা হেলে পড়েছে। এতে আতঙ্কিত হয়ে টাওয়ারের লোকজন নীচে নেমে আসে। এসময় বেশ কয়েকজন আহত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী রিপন বাংলামেইলকে জানান, ভবনের আন্ডার গ্রাউন্ডে সন্ধ্যার দিকে হঠাৎ করেই বিস্ফোরণ হয়। পরে ভবনটি দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে খানিকটা হেলে পড়ে। এতে নিচতলার বেশকিছু দোকানের ডেকোরেশন ধসে পড়ে। ভবনের প্রথম থেকে তৃতীয় তলা পর্যন্ত দোকান, অফিস ও ব্যাংক। বাকিগুলো আবাসিক।

ঘটনার পর আজিমপুর-মিরপুর রোডের রাস্তা বন্ধ রয়েছে। আসাদগেট থেকে টেকনিকেল মোড় পর্যন্ত রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। এ কারণে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন ম্যানেজার আব্দুল আলীম  বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে ভবনের সুয়ারেজ ট্যাংকের পাশের গ্যাস লাইন বিস্ফোরিত হওয়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।’

এ বিষয়ে ফারায় সার্ভিসের পক্ষ থেকে রাজউকের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীনের সঙ্গে তাদের কথা হয়েছে। ভবনের অবকাঠামোগত দিক পরীক্ষা করার জন্য রাজউকের একটি বিশেষ টিম কিছুক্ষণের মধ্যেই সেখানে পৌঁছাবে বলে জানিয়েছেন আব্দুল আলীম। তবে ভবনটি ধসে পড়ার আশঙ্কা দেখছে না ফায়ার সার্ভিস কতৃপক্ষ। এ দাবিও করেন তিনি।

মিরপুর থানার ওসি সালাহউদ্দিন বাংলামেইলকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘ভবনের গ্যাস লাইনে হঠাৎ করে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ভবনের এক পাশের সিঁড়ি দেবে যায়। সেই সঙ্গে বিদ্যুতের খুঁটিগুলো বাঁকা হয়ে গেছে। যে কোনো সময় তারগুলো ছিঁড়ে যেতে পারে। এ কারণে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে।’  

ভবনের বাসিন্দা গোবীন্দ সরকার বলেন, ‘হঠাৎ বিস্ফোরণের শব্দ শুনে আমি স্বপরিবারে বের হয়ে আসি। আমার মতো কয়েকশ মানুষ ভবন থেকে নীচে নেমে এসেছে।’

মিজান টাওয়ারের সামনের ভবনের বাসিন্দা বান্টি জানান, দুর্ঘটনার পর ৪ জনকে তিনি আহত অবস্থায় প্রথমে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে যান। এর মধ্যে আনুমানিক ৮ ও ৩ বছরের ২ শিশু এবং একজন নারী রয়েছেন। ওই নারী হেলে পড়া ভবনের নীচতলায় মুসলিম সুইটসে কেনা-কাটা করছিলেন। সঙ্গে ২ শিশু সন্তান ছিল।