সোমবার ২৭শে মে, ২০১৯ ইং ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

ঠাকুরগাঁওয়ে পরিত্যক্ত বিমান বন্দর পরিদর্শনে রেল মন্ত্রী- সুজন

আপডেটঃ ২:৫৩ পূর্বাহ্ণ | এপ্রিল ১৬, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক:ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁওয়ের পরিত্যক্ত বিমানবন্দরটি চালু হতে পারে বলে আশ্বাস দিলেন রেল মন্ত্রী এড্যঃ নুরুল ইসলাম সুজন।
আজ সোমবার বিকেল ৪টায় স্ব-পরিবারে ঠাকুরগাঁওয়ে এসে পৌঁছান এবং তিনি স্ব-পরিবারেই ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দরের অবকাঠামো পরিদর্শন করেন। পরে সেখানে তিনি বিমানবন্দর চালু করার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

তিনি জানান বর্তমান সরকার জনকল্যানে প্রতিনিয়ত কাজ করে চলেছেন। প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা জনগনের চাওয়াকে কখনও অবমূল্যায়ন করেননি। তিনি এও বলেন বিমান বন্দরটি চালু হলে এলাকার মানুষের ব্যাপক উন্নয়ন হবে। এবং তিনি বর্তমান সরকারের বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রীর সাথে মুঠোফোনে এব্যাপারে কথা বলেছেন এবং মন্ত্রী সুজনসহ মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর নিকট ঠাকুরগাঁও বিমান বন্দর চালু করা বিষয়ে আলাপ করবেন তা জানান। আজ তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে রাওনা দিবেন এবং যতদ্রত সম্ভব তিনি মাননীয় প্রধান মন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর সাথে এ ব্যাপারে আলাপ করবেন। তিনি ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দরের অবকাঠামো পরিদর্শন শেষে এক মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন। এ সময়ে তিনার সাথে ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ সাদেক কুরায়েশী, ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম, পুলিশ সুপার মোহাঃ মনিরুজ্জামান, ঠাকুরগাঁও প্রেস ক্লাব সভাপতি মোঃ মুনসুর আলী, নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান অরুনাংশ দত্ত টিটু, জেলা সেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি- সুনাম,সাধারণ সম্পাদক- এ্যাপোলো। ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৪০ সালের দিকে সদর উপজেলার শিবগঞ্জ এলাকায় একটি বিমানবন্দর নির্মাণ করা হয়। ১৯৭৮-৭৯ সালের দিকে এ বিমানবন্দরটি বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘদিন পড়ে থাকার পর চালুর লক্ষ্যে ১৯৯৪ সালে বিমানবন্দরটি সংস্কার করা হয়। পরে সেটি আর চালু হয়নি।

বর্তমান সরকারের বিগত সময়ের বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, ২০১৬ সালের ৩ ফেরুয়ারী ঠাকুরগাঁও বিমান বন্দর পরিদর্শন শেষে তিন মাসের মধ্যে এটি চালু করার জন্য যা দরকার সে কাজ শুরু করব। এ পর্যটন বছরের মধ্যে এ বিমানবন্দরটি চালু করব। তবে বর্তমানে বিমানবন্দর পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে।