সোমবার ২২শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং ৯ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Ad

ছোট্ট পরিসরে- ছোট্ট নির্বাচন- চৌগাছার উপ-নির্বাচনে কে করিবে মান অর্জন

আপডেটঃ ৪:০৪ পূর্বাহ্ণ | এপ্রিল ১৭, ২০১৯

আব্দুল আলীম, চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরের চৌগাছা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন যেতে না যেতে পোরসভার একটি ওয়ার্ডের উপ-নির্বাচন হতে চলেছে। চৌগাছা পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদের বিপরীতে এই উপ-নির্বাচন জমে উঠেছে। আগামি ১৭ এপ্রিল ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে চৌগাছা সরকারি শাহাদৎ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এই ভোট কার্যক্রম সম্পন্ন হবে বলে জানা যায়। ৪নং ওয়ার্ডের এই নির্বাচনে ১ হাজার ৮৩৬ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মারুফুল আলম জানান, ইভিএম মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও সেটি হচ্ছেনা।এ নির্বাচনে ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে মাঠে নেমেছেন চৌগাছা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের সাবেক দু’বার নির্বাচিত কাউন্সিলর ও খড়িঞ্চা দাখিল মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষক মোঃ মহিউদ্দিন এবং উক্ত ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ। জানা যায়, প্রার্থীদ্বয় চাচা-ভাতিজা। চাচা হারুন অর রশিদের প্রতিক (পানির বোতল) ও ভাতিজা মহিউদ্দিনের প্রতিক (উটপাখি)। তারা দুজনই দিনভর ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন। ওয়ার্ডে উভয়ের ব্যানার ও পোস্টারে ভরে গেছে।

সেই সঙ্গে সমানতালে চলছে মাইকিং। চৌগাছা উপজেলা পরিষদ, চৌগাছা থানা, চৌগাছা সরকারি শাহাদৎ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং চৌগাছা শহরের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এই ওয়ার্ডর মধ্যে পড়ায় ওয়ার্ডটি চৌগাছা শহরবাসীর কাছে গুরুত্বপূর্ণ এক ওয়ার্ডে পরিণত হয়েছে। উটপাখি প্রতীকের প্রার্থী মহিউদ্দিন সাহেব বলেন, আমি দুইবার এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছি। গত নির্বাচনে আমি পরাজিত হয়েছিলাম। দুইবার নির্বাচত হয়ে কতটুকু তাদের সেবা করতে পেরেছি জানি না। তবে আবারো কাউন্সিলর হয়ে ওয়ার্ডবাসীর সুখ দু:খের সঙ্গী হতে চাই।

পানির বোতল প্রতীকের প্রার্থী হারুন অর রশিদ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এ ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। সে সুবাদে এলাকাবাসীর পাশে থেকে সেবা করে আসছি। তাই দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ ভোটাররা আমার পাশে রয়েছে। এ নির্বাচনে বিজয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মারুফুল আলম বলেন, নির্বাচনের সকল প্রস্ততি গ্রহণ করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সবাইকে সাথে নিয়ে সুষ্ঠ ও সুন্দর পরিবেশে একটি চমৎকার নির্বাচন উপহার দেয়া হবে। নির্বাচন উৎসবমুখর হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। একই সাথে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সকলের সহযোগীতাও কামনা করেন।

এলাকার ভোটারদের বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, এই উপনির্বাচনেও ভোটারদের মাঝে নির্বাচনের যে ইমেজ তা লক্ষ্য কর যাচ্ছে। সকলের মাঝে ছোট্ট নির্বাচনে, বিপুল আশা ভরা মনের জোয়ার। উপজেলা থেকে যেনো নির্বাচনের হাওয়া যেতেই চাচ্ছে না। একটি নির্বাচন শেষ তো আরেকটি নির্বাচন শুরু। যদিও নির্বাচনটি মাত্র একটি ওয়ার্ডের কিন্তু উক্ত ওয়ার্ডসহ সমস্ত উপজেলা শহরে নির্বাচনের বহর বইছে। বইছে নির্বাচনী প্রচার। আবারও যেনো মাইকিং প্রচারে শহর কম্পিত। তবুও ভোটারদের ভালো লাগা, ভালোবাসা, ভালো ইমেজে থাকা থেকে চায়ের কাপে চুমুকে চুমুকে উক্ত উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চলছে বিভিন্ন আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। এইটুকু নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণা, চায়ের দোকানে নির্বাচনী আলোচনা, নির্বাচনী প্রস্তুতি সব মিলে যেনো নির্বাচনটিতে একটি জাতীয় নির্বাচনের মতোই হাওয়া বইছে। সব মিলে নির্বাচন সুষ্টু ও সুন্দর হোক, যোগ্য লোক জয়ী হোক, সকলেই এইকামনা করছে।

উল্লেখ্য থাকে যে, গত ৩১ শে মার্চ অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্য চার নং ওয়ার্ডের নির্বাচিত কাউন্সিলর ও যুবলীগ নেতা সিদ্দিকুর রহমান পদত্যাগ করায় এ ওয়ার্ডে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।